ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্রধানমন্ত্রীর আরেকটি অঙ্গীকার পূরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ অক্টোবর ২০১৮ বুধবার, ০৩:৫২ পিএম
প্রধানমন্ত্রীর আরেকটি অঙ্গীকার পূরণ

বিসিএসসহ প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সকল সরকারি চাকরির নিয়োগে কোটা না রাখার সুপারিশ অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। আজ বুধবার সকালে মন্ত্রিসভার বৈঠকে গৃহীত এ সিদ্ধান্তের মাধ্যমে প্রমাণিত হলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কথা দিলে কথা রাখেন। যে অঙ্গীকারটি তিনি করেন, সেই অঙ্গীকার পূরণে কখনোই পিছু হটেন না তিনি।

চলতির বছরের গোড়ার দিকেই সব ধরণের সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে কোটার ভিত্তিতে নিয়োগের প্রচলিত ব্যবস্থার সংস্কারের দাবিতে চাকরি প্রত্যাশী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করে। আন্দোলন তীব্র আকার ধারণ করলে ১২ই এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা বাতিলের ঘোষণা দেন।

কোটা বাতিলের ঘোষণা দেওয়ার পর তা কার্যকর করতে প্রশাসনিক কাজে স্বাভাবিকভাবেই কিছু কালক্ষেপণ হয়। সেই সময়টাতে শেখ হাসিনার নিন্দায় মুখর হয়ে উঠেছিলেন নিন্দুকেরা। প্রধানমন্ত্রী অঙ্গীকার পূরণ করছেন না এরকম কথাবার্তা বলছিলেন তারা। এছাড়া কোটা সংস্কারকে ঘিরে বিভিন্ন মহলের ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত ও উসকানি তো ছিলই। কিন্তু সব ষড়যন্ত্রকে নস্যাৎ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ঠিকই কোটা বাতিল করলেন। কোটা বাতিল সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনও দু একদিনের মধ্যেই চলে আসবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

আসলে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যা বলেন তাই করেন। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক বাস্তবতায় কাজটি অনেক কঠিন হলেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে তিনি সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছেন। পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রেও একই রকম ভাবে নিজের প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছেন শেখ হাসিনা। বিশ্বব্যাংক যখন দুর্নীতির অভিযোগে পদ্মা সেতু প্রকল্পের অর্থায়নে অস্বীকৃতি জানায় তখন শেখ হাসিনা বলেছিলেন, আমরা নিজের টাকায় পদ্মা সেতু করবো। একটি উন্নয়নশীল দেশ এত বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারবে না বলে তখন ভবিষ্যৎ বাণী করেছিলেন দেশ ও বিদেশের উন্নয়ন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু স্বপ্নের পদ্মা সেতু আজ দৃশ্যমান। আর তা সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার অটল প্রতিজ্ঞার কারণেই। আজ কোটা বাতিলে নিজের অঙ্গীকার পূরণ করে আবারও প্রমাণ দিলেন শেখ হাসিনা, আস্থা রাখতে হবে তাঁর ওপরেই।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি/জেডএ