ঢাকা, সোমবার, ১০ মে ২০২১, ২৭ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

তারেক কে ‘বাদ’ দেওয়ার সুযোগ খুঁজছেন নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ অক্টোবর ২০১৮ বুধবার, ০৬:০০ পিএম
তারেক কে ‘বাদ’ দেওয়ার সুযোগ খুঁজছেন নেতারা

১০ অক্টোবরের পর কি শেষ হয়ে যাচ্ছে তারেক জিয়ার রাজনৈতিক অধ্যায়? বিএনপির নেতারাই এখন তাঁকে ‘ঝামেলা’ মনে করছে। বাইরে যাই বলুক না কেন, ভেতরে ভেতরে বিএনপি নেতারাও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের অপেক্ষায়। বিএনপির একজন নেতা খোলামেলা ভাবেই বললেন ‘এই রায়টা হয়ে গেলে আমরা তাঁকে নেতৃত্বে থেকে বাদ দেওয়ার সুযোগ পাই।’

বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র বলছে, গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর বিএনপির রাজনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন হতে পারে। এই রায়ের আগেই রাস্তায় বড় ধরনের আন্দোলন গড়ে তোলার যে নির্দেশ লন্ডনে থেকে তারেক জিয়া দিয়েছিলেন তা প্রতিপালিত হয়নি। বরং সরকারের নতুন করে মামলা এবং ধরপাকড়  বিএনপিকে আরও ব্যাকফুটে নিয়ে গেছে। ফলে, নির্বাচনের আগে বিএনপি নেতৃবৃন্দ নতুন কোন ঝুঁকি নিতে চাইছেন না। বিএনপিতে এখন স্পষ্টত:ই দুই ধারা। একটি বেগম জিয়ার ধারা। অন্যটি তারেক জিয়ার ধারা। বেগম জিয়া গতকালও জেল থেকে বার্তা পাঠিয়েছেন যে, শত প্রতিকূলতার মধ্যেও নির্বাচনে যেতে হবে। এখন থেকেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ারও তিনি নির্দেশ দিয়েছেন। সবথেকে বড় কথা, বেগম জিয়া গ্রেপ্তার হবার পর থেকেই শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের দিকে জোর দিচ্ছেন। দলের মহাসচিবকে তিনি বলেছেন, ‘কোনো রকম উসকানিতে পা না দিতে’। বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, ‘বেগম জিয়া গ্রেপ্তার হবার পর প্রায় ৮ মাস অতিবাহিত হচ্ছে। এখন পর্যন্ত আমরা একটি গাড়িও ভাঙিনি। এটা কি আমরা পারতাম না? পারতাম, কিন্তু ম্যাডামের কঠোর নির্দেশের জন্যই আমরা এটা করিনি।’

অন্যদিকে, তারেক জিয়া চান একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে। সন্ত্রাস, সহিংসতার মাধ্যমে সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করতে। যাতে সরকার পদত্যাগে বাধ্য হয় বা তৃতীয় পক্ষ ক্ষমতা দখল করতে পারে’। একাধিক সূত্র বলছে, অক্টোবর থেকেই তারেক এরকম নাশকতা সৃষ্টির নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু এরকম পরিস্থিতি যারা সৃষ্টি করতে পারেন, তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আইন প্রয়োগকারী সংস্থা দলের শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধেও নাশকতার মামলা দিয়েছেন। যদিও আজ বুধবার তাঁরা হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়েছেন, কিন্তু এখন তারাই ‘সতর্ক’ যেন কোনো সহিংসতা না হয়, সে ব্যাপারে। ফলে, তারেক জিয়ার মামলার রায় নিয়ে বিএনপি সাংগঠনিক ভাবে বড় ধরনের কর্মসূচি গ্রহণের ব্যাপারে আগ্রহী না। গত কয়েক মাস ধরেই তারেক জিয়াকে বিএনপির নেতৃত্ব থেকে বাদ দেওয়ার চাপ বাড়ছে। কূটনৈতিক চাপ তো আছেই, তারেক জিয়া জাতীয় ঐক্যের পথেও বড় বাধা বলে মনে করছেন বিএনপির নেতারা। তাই, বিএনপি নেতৃবৃন্দ মনে করছেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা বিএনপির সামনে এক বিরাট সুযোগ এনে দিয়েছে। বিএনপির একটি সূত্র বলছে, রায়ে তারেক জিয়া দণ্ডিত হলেই তাঁকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে যুক্তি হিসেবে বলা হবে, যেহেতু তিনি বিদেশে এবং আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ নাই, তাই রায়ের পর তিনি নেতৃত্ব থেকে সরে গেলেই বিএনপির জন্য মঙ্গলজনক। অবশ্য অন্য একটি সূত্র বলছে, তারেক দণ্ডিত হলে বিএনপির একটি অংশ তারেক জিয়াকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য আদালতের নির্দেশনা চাইতে পারে। এই অংশ মনে করছে, দণ্ডিত হলে তাঁর দলের নেতৃত্বে থাকা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ