ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ড. কামাল সন্তুষ্ট, ফখরুলের না

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২ নভেম্বর ২০১৮ শুক্রবার, ১২:১১ এএম
ড. কামাল সন্তুষ্ট, ফখরুলের না

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের চার ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন সংবিধানসম্মত ভাবে যেকোনো সমাধানের জন্য তিনি প্রস্তুত রয়েছেন। সংলাপে ড. কামাল হোসেনকে প্রধানমন্ত্রী জিজ্ঞেস করেন, সংবিধানে যদি থাকে নির্বাচনের সময় প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে হবে এবং পৃথিবীর কোনো সংসদীয় গণতন্ত্রে এমনটি যদি থাকে, তাহলে তিনি তা করতে প্রস্তুত।

সংলাপে প্রধানমন্ত্রী তাৎক্ষণিক ভাবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাত দফার তিনটি দাবি মেনে নেন। এই দাবিগুলো হলো,

প্রথমত, নির্বাচনে বিদেশি কূটনীতিকদের আসা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিদেশি কূটনীতিকদের নিয়ে তাঁর কোনো আপত্তি নেই।

দ্বিতীয়ত, ইভিএম ব্যবহার বন্ধ করা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ইভিএম সীমিত আকারে ব্যবহার হবে। বিরোধী দল চাইলে ইভিএম এটি বন্ধও রাখা যেতে পারে।

তৃতীয়ত, বিরোধী দলের সভা সমাবেশ করার স্বাধীনতা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিরোধী দলের সভা সমাবেশ করার অধিকার আছে। বিরোধী দল সভা সমাবেশ করছে। আরও কিছু দরকার হলে, সেটিও তিনি করতে রাজি আছেন।

ঐক্যফ্রন্টের দাবি করা রাজনৈতিক মামলা প্রত্যাহার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ড. কামাল হোসেনকে অনুরোধ করেছেন, কাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক মামলা রয়েছে, সেই তালিকা যদি তিনি দেন, তাহলে প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগত ভাবে সেটি দেখবেন এবং এটি নিয়ে বিবেচনা করবেন।

সংলাপে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে, আসুন আমরা সবাই মিলে একটি নির্বাচন করি, যখন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে, তখন পুরো ক্ষমতাই নির্বাচন কমিশনের হাতে চলে যাবে, তখন সরকারের ভূমিকা হবে খুবই নগন্য। নির্বাচন কমিশনকে আরও শক্তিশালী করার জন্য সকল দলের অংশগ্রহণ অত্যন্ত জরুরি বলেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর সকল রাজনৈতিক দলের প্রতি অনুরোধ জানান, আসুন আমরা নির্বাচন করি।

ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন সংলাপেই প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে ড. কামাল বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক বলেই তিনি মনে করেন। তিনি বলেছেন, এমন অনেক বিষয়গুলো প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যা আসলে তিনি জানতেন না। বা বিষয়গুলো সম্পর্কে তাঁর কিছু তথ্যের স্বল্পতা ছিল। তিনি মনে করেন, সরকার যদি আন্তরিক হয়, নির্বাচন কমিশন যদি সত্যিকার ভাবে কাজ করে তাহলে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব।

তবে ড. কামাল হোসেনের বক্তব্যে সন্তুষ্ট হতে পারেননি সংলাপে অংশগ্রহণকারী ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক বিএনপির নেতৃবৃন্দরা। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ওই বৈঠকেই বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রসঙ্গটি উত্থাপন করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়াকে আটক তো আমরা করিনি। মামলা হয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। আপনাদের কোনো না কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় মধ্যে তো যেতেই হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটি সম্পূর্ণই আইনি ব্যাপার।

ড. কামাল হোসেন প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য গ্রহণ করে বলেন, এই বিষয়টি যেহেতু আদালতে বিচারাধীন বিষয়, তাই এ বিষয়ে আমাদের নাক না গলানই ভালো।

সংসদ ভেঙে দেওয়ার বিষয়টি সংলাপে উত্থাপন করা হলে প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন করেন, পৃথিবীর কোথায় সংসদ ভেঙে দেয় সেই উদাহরণটি দিলে তিনি উপকৃত হবেন। প্রধানমন্ত্রী সর্বশেষ বলেন, আমরা অঙ্গীকার করছি সরকার নির্বাচনে কোনো রকম হস্তক্ষেপ করবে না। কোনো রকম প্রভাব বিস্তার করবে না। সরকারের প্রভাবমুক্ত ভাবেই নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে। নির্বাচনে আপনারা অংশগ্রহণ করেন, যদি কোনো কারচুপি করা হয়, তাহলে তো তাৎক্ষণিক ভাবেই ব্যবস্থা নেওয়া যাবে। কিন্তু নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে, আপনারা কীভাবে এ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন।

এ সময় ড. কামাল হোসেন বলেছেন, এই বক্তব্যে যুক্তি আছে। তাৎক্ষণিক ভাবেই মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এটি কোনো বিশ্বাসযোগ্য বক্তব্য নয়। তিনি বলেছেন, ১৯৯১ সাল থেকে যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা আছে, সেই ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়া যায় কিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে, আমরা একটি সংসদীয় গণতন্ত্রের দেশ এবং আমরা সংগ্রাম করে বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে একটি জায়গায় নিয়ে এসেছি। আমরা কেন একটি অনির্বাচিত সরকারের হাতে ক্ষমতা তুলে দেব।

সেনাবাহিনী মোতায়েন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশে এ পর্যন্ত যত নির্বাচন হয়েছে এর মধ্যে শুধু ২০০১ সাল ছাড়া কোনো নির্বাচনেই সেনা মোতায়েন করা হয়নি। এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেন ড. কামাল হোসেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আগামী ৮ নভেম্বর পর্যন্ত আপনাদের হাতে সময় আছে। আমরা বিভিন্ন দলের সঙ্গে বৈঠক করবো। এর মধ্যে যদি আপনারা মনে করেন, ছোট পরিসরে আবার বৈঠক করবেন, আমার দরজা সবসময় খোলা আছে। তিনি বলেন, আপনারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুন। নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করুন। আপনারা দেখুন যে, একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় কিনা?

ড. কামাল হোসেন এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করলেও বিএনপির অধিকাংশ নেতারা এর সঙ্গে একমত হননি।

বৈঠকের শেষ পর্যায়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্বাচনের স্বার্থে বেগম জিয়াকে মুক্তির প্রসঙ্গটি তুললে ড. কামাল হোসেন বৈঠকের মধ্যেই মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে থামিয়ে দেন। এর ফলে, স্পষ্ট হয়ে গেল যে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে ড. কামাল হোসেন ও আ. স. ম. আব্দুর রব এবং অন্যদিকে বিএনপি ও মাহমুদুর রহমান মান্নার মধ্যে মতপার্থক্য স্পষ্ট হয়ে গেল। ভবিষ্যতে সংলাপে বিএনপি আর কতটুকু উৎসাহী হবে সেটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই গেল। তবে এর ফলে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়ে গেছে, ড. কামাল হোসেন এই সংলাপে সন্তুষ্ট হয়ে ঐক্যফ্রন্টকে নির্বাচনমুখী করতে আগ্রহী হবেন। সেখানে বিএনপির কজন বা বিএনপির কোন অংশ নির্বাচনে যাবে বা যাবে না সেটা বোঝা যাবে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই।  

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ