ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগ: শরীয়তপুর- ২ আসন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২ নভেম্বর ২০১৮ শুক্রবার, ১১:০৭ এএম
আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগ: শরীয়তপুর- ২ আসন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষণ গণনা শুরু হয়ে গেছে। দেশজুড়ে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী হাওয়া। কিন্তু গুরুত্বপুর্ণ এই সময়টাতে বেশ কয়েকটি নির্বাচনী এলাকায় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অন্তর্কোন্দলে স্বস্তিতে নেই আওয়ামী লীগ। শরীয়তপুর-২ আসনটিও আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে জর্জরিত এমনই একটি আসন।

২ লাখ ৩৪ হাজার ৩৫৯ জন ভোটার সংবলিত শরীয়তপুর- ২ আসনটি নড়িয়া উপজেলা ও সখিপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত। এটি জাতীয় সংসদের ২২২ নং আসন। এই আসনটিকে আওয়ামী লীগের বিশেষ করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কর্নেল (অব.) শওকত আলীর ঘাঁটি হিসেবে অভিহিত করা যায়। ১৯৯১ সালে অনুষ্ঠিত ৫ম, ১৯৯৬ সালে অনুষ্ঠিত ৭ম, ২০০১ সালে অনুষ্ঠিত ৮ম এবং ২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা কর্নেল (অব.) শওকত আলী এই আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হন। কেবল ১৯৯৬ সালের বাতিল হয়ে যাওয়া ৬ষ্ঠ নির্বাচনেই এখানে বিএনপি প্রার্থী অধ্যাপক ডা. খন্দকার আবদুল জলিল জয়লাভ করেন।

বর্তমান এমপি শওকত আলী ২০০৮ সালের ৯ম নির্বাচনে ১ লাখ ১৪ হাজার ৮০৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। আর তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মো. সফিকুর রহমান কিরন ৮০ হাজার ১৯৬টি ভোট পেয়ে প্রায় ৩০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন।

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামি প্রবীণ রাজনীতিক শওকত আলী এবারও খুব সম্ভবত শরীয়তপুর-২ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন। তবে বয়সের ভারে ন্যুব্জ হওয়ায় এ আসনে তাঁর বদলে তরুণ কাউকে মনোনয়ন দিতে পারে আওয়ামী লীগ। যদি নতুন কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হয় তাহলে কর্নেল শওকত আলী বিকল্প হিসেবে তাঁর ছেলে ডা: খালিদ শওকত আলীকে প্রস্তুত করতে চাইছেন। বাবা-ছেলে নির্বাচন সামনে রেখে গণসংযোগও করছেন নিয়মিত।

এই আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীমও। উদীয়মান তরুণ নেতা হিসেবে ভোটারদের কাছে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এছাড়া গণসংযোগেও এগিয়ে রয়েছেন তিনি।

বর্তমান এমপি শওকত আলী দীর্ঘদিন ধরে এই এলাকার এমপি। কিন্তু রাস্তাঘাটের বাজে অবস্থাসহ অনেক ক্ষেত্রেই পর্যাপ্ত উন্নয়ন হয়নি বলে অভিযোগ রয়েছে। এই নিয়ে শওকত আলীর ওপর নড়িয়া ও সখিপুরের লোকদের চাপা ক্ষোভ রয়েছে। এই বিবেচনায় শওকত আলী কিংবা তাঁর ছেলের বদলে এনামুল হক শামীমকেই শরীয়তপুর- ২ আসনের জন্য আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

এই অঞ্চলে আওয়ামী লীগের জন্য সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে অন্তর্কোন্দল। দীর্ঘদিন ধরেই এই এলাকায় আওয়ামী লীগের মধ্য অন্তর্কোন্দলের সমস্যা রয়েছে। এমনকি অন্তর্কোন্দলে এ আসনে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাকর্মী নিহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে যা এখনো কমেনি। স্থানীয়রা জানান, কর্নেল (অব.) শওকত আলী দীর্ঘদিন এমপি থাকায় এলাকায় তাঁর নিজস্ব একটি বলয় তৈরি হয়েছে। এই বলয়ের বাইরে এলাকায় অন্য কারো রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তারের সম্ভাবনা দেখা গেলে এমপির কর্মীরা তা ভালোভাবে নেয় না। এসব কারণে গত উপজেলা, পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচনে দলের মনোনয়ন নিয়ে কোন্দল চরম আকার ধারণ করে। ওই সব নির্বাচনে শওকত আলীর প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকার কারণে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের অনেকেই তাঁর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন।

এদিক থেকে ছাত্ররাজনীতির সুবাদে এলাকায় পরিচিত মুখ এ কে এম এনামুল হক শামীম সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। বর্তমানে নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কারণে তিনি জনপ্রিয়। একই সঙ্গে তিনি পুরোদমে নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম চালাচ্ছেন। এছাড়া এই আসনে শামীম ছাড়া আওয়ামী লীগের কোনো কেন্দ্রীয় নেতা না থাকায় নতুন ভোটারদের মধ্যে তাকে নিয়ে প্রাণচাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

বর্তমানে শরীয়তপুর- ২ আসনে শওকত আলী ও এনামুল হক শামীম – দুজনের গ্রুপই ভালোমতো সক্রিয় রয়েছে।  ফলে এ আসনে দলটি দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছে। কর্নেল (অব.) শওকত আলী এবং এনামুল হক শামীম দুজনই হেভিওয়েট প্রার্থী হওয়ায় এই আসনে প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়া নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় আছে আওয়ামী লীগের হাই কমান্ড।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি