ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৯ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সরকারে ফ্রন্টের ২, বিকল্পধারার ১ জন থাকছেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫ নভেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৬:০০ পিএম
সরকারে ফ্রন্টের ২, বিকল্পধারার ১ জন থাকছেন?

নির্বাচনকালীন সরকারে সংসদের বাইরে থেকে ৪ জন মন্ত্রী রাখার প্রস্তাব দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। ৭ নভেম্বর জাতির উদ্দেশ্যে একটি ভাষণ দেওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে শেখ হাসিনার। ঐদিন সকাল ১১টায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে দ্বিতীয় দফা বৈঠক হওয়ার কথা আওয়ামী লীগের। আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, ঐ বৈঠকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে সর্বোচ্চ দুজনকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রী হওয়ার আমন্ত্রণ জানাতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে প্রথম বৈঠকেও প্রধানমন্ত্রী এরকম ইঙ্গিত দিয়ে বলেছিলেন, আসুন সবাই মিলে একটি সুষ্ঠু এবং সুন্দর নির্বাচন করি। এর আগে ২০১৩ সালেও প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের সময় একটি ‘জাতীয় সরকার’ এর প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট রাজি হলে নির্বাচনকালীন সময়ে সংসদের বাইরে থাকা দলগুলোর মধ্যে ৪জনকে মন্ত্রিসভায় নেওয়া হতে পারে। এর মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে দুজন, বিকল্পধারার নেতৃত্বে যুক্তফ্রন্ট থেকে একজন এবং বামমোর্চা থেকে একজনকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাব দেওয়া হবে। বিকল্পধারার নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনকালীন সরকারে যুক্ত হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। সেক্ষেত্রে মাহী বি. চৌধুরীর নাম হয়তো মন্ত্রী হিসেবে প্রস্তাব করা হতে পারে। তবে বামমোর্চা মন্ত্রিসভায় যোগ দিতে এখন পর্যন্ত আগ্রহী নয়। কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, ‘আমরা একটা অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন চাই। যে নির্বাচনে জনগণের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটবে। আমরা হালুয়া রুটির ভাগ চাই না।’ তবে আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন, ‘অন্যরা মন্ত্রিসভায় এলে বামরাও আসবে।’

সরকারের সূত্রগুলো বলছে, ‘নির্বাচনের ব্যাপারে সরকারের শেষ অবস্থান হলো, তফসিল ঘোষণার আগে থেকে নির্বাচন পর্যন্ত মন্ত্রিসভায় সংসদের বাইরের প্রধান প্রধান দল জোটগুলোর অন্তর্ভুক্তি। আগামী ৭ নভেম্বরের বৈঠকে ড. কামাল হোসেনকে মন্ত্রিসভায় যোগ দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হবে। একাধিক সূত্র বলছে, ড. কামাল হোসেন হয়তো এই পর্যায়ে মন্ত্রিসভায় যোগ দিতে রাজি হবেন না। এক্ষেত্রে আ. স. ম আবদুর রব এবং বিএনপি থেকে একজনকে মন্ত্রিসভায় চাইবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী বলবেন, ‘আপনারা সকলে সরকারে থাকুন, নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করুন। সরকারে থাকলেই তো বুঝবেন নির্বাচনে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করছে কিনা। আপনারা সরকারে থাকলে তো নির্বাচন কমিশনের কাজে হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই।

একাধিক সূত্র বলছে, আওয়ামী লীগে উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য এবং প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী প্রধানমন্ত্রীর এই অভিপ্রায় নিয়ে বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাঁরাও এই প্রস্তাবকে সমর্থন করেছেন। যদিও প্রকাশ্যে বিএনপি এই প্রস্তাবের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব দেখালেও, ভেতরে তাদের একটি বড় অংশই এই প্রস্তাবে রাজি। এ রকম মন্ত্রিসভায় থাকলে অনেক কিছুই করা সম্ভব মনে করছেন, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নেতা।

বাংলা ইনসাইডার