ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আ. লীগ-বিএনপি উভয়ের ‘ট্রাম্পকার্ড’ খালেদা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫ নভেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৮:০০ পিএম
আ. লীগ-বিএনপি উভয়ের ‘ট্রাম্পকার্ড’ খালেদা

বিএনপির নির্বাচনে যাওয়ার মাঝখানে দাঁড়িয়ে আছেন বেগম খালেদা জিয়া। বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, বেগম জিয়াকে জামিনে মুক্তি দিলে এবং তাঁকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ দিলে বিএনপি নির্বাচনে যাবে। অন্যদিকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বেগম জিয়া প্যারোল চাইলে সরকার বিবেচনা করবে। তবে তাঁর নির্বাচন করা এবং জামিনের বিষয়টি সম্পূর্ণ আদালতের এখতিয়ারাধীন বিষয়। আনুষ্ঠানিক সংলাপের আড়ালে সরকার এবং বিএনপির মধ্যে যে দরকষাকষি চলছে তাতে ট্রাম্পকার্ড খালেদা জিয়াই। একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, আলোচনার টেবিলে সাত দফার কথা বলা হলেও বিএনপির মূল দাবি আসলে একটাই, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি। শুধু বিএনপির নয়, সরকারেরও ট্রাম্পকার্ড বেগম খালেদা জিয়া। সরকার বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে বেগম জিয়াকে তুরুপের তাস হিসেবে ব্যবহার করছে। সরকারের পক্ষ থেকে স্পষ্ট বলে দেওয়া হয়েছে, বিএনপি যদি নির্বাচনে না আসে তাহলে বেগম জিয়াকে বঙ্গবন্ধু থেকে আবার নাজিমউদ্দিন রোডে নিয়ে যাওয়া হবে। তাঁর বিরুদ্ধে ৩৪টি মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেওয়া হবে। বেগম জিয়ার রাজনীতি চিরতরে শেষ হয়ে যাবে। একাধিক সূত্র বলছে, আনুষ্ঠানিক আলোচনার আড়ালে সরকারের বিভিন্ন মহলের সঙ্গে বিএনপির দফায় দফায় বৈঠক চলছে। সেই বৈঠকের কেন্দ্রে বেগম জিয়া।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, একজন নেতা বলেছেন, ‘আমরা জানি, তফসিল ঘোষণার পর ৭ দফার মূল দাবিগুলোর একটি ছাড়া কোনটাই অর্জন করা সম্ভব না। সরকার নির্দলীয় সরকার গঠন করবে না। এমনকি সংসদ ভেঙে দেবে না।’ তাঁর মতে, ‘একটি দাবিই অর্জন করা সম্ভব, তা হলো বেগম জিয়ার মুক্তি।’ বিএনপির অন্য একজন নেতা বলেন, ‘কিছু একটা অর্জন নিয়ে আমরা নির্বাচনে যেতে চাই। সেক্ষেত্রে বেগম জিয়ার মুক্তিটাই হতে পারে সবচেয়ে বড় পাওয়া।’ তাঁর মতে, ‘নির্বাচনের আগে বেগম জিয়ার মুক্তি দিলেই একটি গণজোয়ার সৃষ্টি হবে।’

বিএনপির নেতারা বলেছেন, ‘সংলাপ হলো একটা ফটোসেশন। ড. কামাল হোসেন একজন মধ্যস্থতাকারী। আসল কথাবার্তায় আমরা কাছাকাছি এসেছি।’

সূত্রমতে, প্যারোল এবং জামিনের বিভ্রান্তিতেই আটকে গেছে সরকার-বিএনপির আপসরফা। সরকারের নির্বাচনের আগে বেগম জিয়াকে ছেড়ে দিতে আপত্তি নেই। সরকার চাইছে, এটা হোক প্যারোলে। প্যারোলে মুক্ত হয়ে বেগম জিয়া যেন দেশের বাইরে যান, সেটাই চায় আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের এই অবস্থানের সঙ্গে একমত বিএনপির একটি অংশ। বেগম খালেদা জিয়ার প্রধান আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহাবুব হোসেন, চারমাস আগে থেকেই প্যারোলের পক্ষে। কিন্তু বিএনপির একটি অংশ প্যারোলের পক্ষে নয়। তাদের মতে, বেগম জিয়া জামিনে মুক্ত হয়ে যদি নির্বাচনী প্রচারের সুযোগ পান তাহলে সেটা হবে বিএনপির জন্য বিরাট প্রেরণা। বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, ‘সরকার বেগম জিয়াকে জিম্মি করে বিএনপিকে নির্বাচনে নিতে চাইছে।’ অবশ্য বিএনপি নেতার এই বক্তব্য অস্বীকার করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘খালেদা জিয়াকে সরকার শুধু প্যারোল দিতে পারে। তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে, আদালত, নির্বাচনের অযোগ্যও করেছে আদালত। সরকারের এখানে কিছুই করার নেই।’ 

বাংলা ইনসাইডার