ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগের ভয়ের ৫ কারণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ নভেম্বর ২০১৮ শনিবার, ০৯:০০ পিএম
আওয়ামী লীগের ভয়ের ৫ কারণ

বিএনপি এবার নির্বাচনে যাবে কিনা তা নিয়ে সংশয় আওয়ামী লীগের মধ্যে ছিল। এমনকি এবার তিনমাস আগে পর্যন্ত একমাত্র শেখ হাসিনা ছাড়া দলের অধিকাংশ নেতাকর্মীদের ধারণা ছিল যে বিএনপি বোধহয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। দেশে একটি একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেই এমপি হয়ে যাওয়ার নিশ্চিত এমন ধারণা ছিল অনেক নেতাকর্মীদের। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতি বলছে, শেষপর্যন্ত যদি বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তাহলে আওয়ামী লীগকে কঠিন পরীক্ষার মধ্যেই পড়তে হবে।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ৫টি কারণে আওয়ামী লীগ এই নির্বাচনে আশঙ্কার মুখে পড়তে পারে। এমনকি এই কারণগুলোর জন্য হোঁচট খাওয়ার মতো ফলাফল অর্জন করতে পারে আওয়ামী লীগ। কারণগুলো হলো:

১. নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে। আগামীকাল মনোনয়ন কমিটির মিটিংও শুরু হতে যাচ্ছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগের অন্তত ৯০টি আসনে কোন্দল একেবারেই বন্ধ হয়নি। এই কোন্দলের জেরেই শনিবার রাজধানীতে দুজনের প্রাণহানিরও ঘটনা ঘটেছে। এই কোন্দলটি ঘটেছে দুই শীর্ষ নেতার পর্যায়ে। এজন্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, অপরজন ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক। এটা শুধু রাজধানীর মধ্যেই নয়। সারাদেশের চিত্রও প্রায় একই।

মনোনয়নপত্র দাখিলকে ঘিরে এই কোন্দল যে আওয়ামী লীগ খুব দ্রুত কমিয়ে ফেলতে পারবে, সেই সম্ভাবনাও খুব কম। কেউ হয়তো ভয়ে নির্বাচনে দাঁড়াবেই না বা প্রার্থী হবেন না। কিন্তু যে প্রার্থী হবেন, তাঁর বিরুদ্ধে ভেতরে ভেতরে বঞ্চিত বা প্রতিপক্ষের ক্ষতি করার ব্যাপারটি আসতেই পারে। ১৯৯১ সালে এমন ঘটনা ঘটেছিল। তেমনটা হলে আওয়ামী লীগের নিশ্চিত আসনগুলোও হাতছাড়া হওয়ার ভয় থাকছে।

২. আওয়ামী লীগ টানা ১০ বছর ধরে ক্ষমতায় রয়েছে। এই ক্ষমতায় থাকার ফলে আমাদের দেশে প্রাতিষ্ঠানিকতা বিরোধী মানসিকতার মানুষগুলোর মনে আওয়ামী লীগের প্রতি ক্ষোভ, অসন্তোষ তৈরি হয়েছে। পাওয়া না পাওয়ার দ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে মানুষের মধ্যে। সবাইকে সন্তুষ্ট করতে না পারায়ও ক্ষোভ আছে। আর এর সব দায় বর্তাবে অবশ্যই ক্ষমতাসীন দলের প্রতি। অর্থাৎ আওয়ামী লীগের প্রতি। সেই নেতিবাচক প্রভাব অবশ্যই নির্বাচনে পড়বে।

৩. আওয়ামী লীগের বিভিন্ন এমপি, মাঠ পর্যায় এবং অঙ্গসংগঠনের নেতাদের বিভিন্ন রকমের দৌরাত্ম, তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকমের অভিযোগ, আধিপত্য বা প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা, নানারকম দুর্নীতি এবং অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকাতেই এমন নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ বিরাজ করছে। মানুষ সাধারণত তাদের ভোটের মাধ্যমেই তাদের অন্যায় এবং অপমানের প্রতিবাদ করতে চায়। আওয়ামী লীগ যদি এখনই বিষয়গুলো নিয়ে না ভাবে, তাহলে সামনে শঙ্কা থেকেই যায়।

৪. আওয়ামী লীগ ডিজিটাল বাংলাদেশ তৈরিতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা নিলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তারা এখনো অনেক পিছিয়ে আছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে আওয়ামী লীগ বিরোধী ও স্বাধীনতাবিরোধী চক্র এখন অনেক বেশি সোচ্চার। আর মনে করা হচ্ছে, নির্বাচনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এই প্লাটফর্মে এখনই আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে যেসব গুজব আর মিথ্যাচার ছড়ানো হচ্ছে, সেটাই আওয়ামী লীগ রুখতে পারছে না। আর নির্বাচনকালে যা হবে, তার জবাব আওয়ামী লীগ কীভাবে দেবে বা নেতিবাচক পরিস্থিতি মোকাবেলায় তারা কি করবে তা নিয়ে প্রশ্ন থাকছেই।

৫. আওয়ামী লীগ এখন একক নেতা নির্ভর অর্থাৎ শেখ হাসিনা নির্ভর দলে পরিণত হয়েছে। এখন যদি দেশে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হয়, শেখ হাসিনা যে নির্বাচিত হবে তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু শেখ হাসিনা কি একা ৩০০ আসনের একটি নির্বাচন বহন করতে পারবেন? এটা একটা বড় প্রশ্ন। সেই ৭০ এর নির্বাচনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সময়ের নির্বাচনে তিনি ছাড়াও তার অধস্তন নেতাকর্মীরাও দলকে টেনে তুলতে পারতো। ৯৬ এর সময়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে একটি বিশাল নেতৃত্বের দল ছিল। কিন্তু এখন সব দায়সারা গোছের, কেউ দায় নিতে চায় না। দলকে টেনে তোলার মতো নেতৃত্ব এখন দলে নেই। সিনিয়র নেতারাও গা বাঁচিয়ে চলার চেষ্টায় আছে। এমন অবস্থায় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ কি করবে, কতটা সফল হবে সেটা নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসবে ততই স্পষ্ট হবে।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/জেডএ