ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

নির্বাচনে জনসম্পৃক্ততাহীন বড় নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ নভেম্বর ২০১৮ শনিবার, ১০:০০ পিএম
নির্বাচনে জনসম্পৃক্ততাহীন বড় নেতারা

প্রতিনিয়ত সংবাদমাধ্যমের হেডলাইনে আসেন। তাঁদের কথা কোট করে হয় সংবাদ। জাতীয় পর্যায়ের প্রভাবশালী বড় নেতা। কিন্তু নির্বাচনে তাঁদের নিজেদের আসনের কোনো হদিস নাই। তাঁদের নির্বাচনী আসন কোনটা তাঁরা নিজেরাও জানেন না। অনেক বড় প্রতাপশালী নেতা হলেও ভোটের মাঠে তাঁদের কোনো দাম নেই। তাঁদের নেই তেমন জনসম্পৃক্ততা। অনেকের নির্বাচনের রেকর্ড জামানত বাজেয়াপ্তের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। তাই, নির্বাচন এলেই জনসম্পৃক্ততাহীন এসব বড় নেতাদের কপালে ভাঁজ ধীর্ঘায়িত হয়।

জনসম্পৃক্ততাহীন বড় নেতাদের মধ্যে সবার প্রথমেই নাম আসে, বর্তমান সময়ে বহুল আলোচিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের। ড. কামাল সর্বশেষ নির্বাচন করেছিলেন রাজধানীর ধানমন্ডি থেকে। সেই নির্বাচনে মোট প্রাপ্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগও জোটেনি তাঁর। তাই জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছিল ড. কামালের। অনেক বড় নেতা হলেও ড. কামাল হোসেনের এখন পর্যন্ত তাঁর নিজের আসন বলতে কিছু নাই।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন বড় নেতা, নির্বাচন পরিচালনা কমিটির তিনি কো-চেয়ারম্যান। তিনি সাবেক আমলা এইচ টি ইমাম। নির্বাচনের সবচেয়ে বড় দলের দণ্ডমুণ্ডের অন্যতম কর্তা তিনি। কিন্তু তাঁর কোনো এলাকা নাই। তিনি সিরাজগঞ্জের মানুষ হলেও সেখানে তাঁর কোনো নির্বাচনী আসন নেই। অন্য এলাকাতেও তাঁর কোনো খবর নেই। 

বাম মোর্চার অন্যতম নেতা সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমও একজন জাতীয় পর্যায়ের বড় নেতা। তিনি একটাই জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলেন সাভার থেকে। সেই নির্বাচনে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছিল তাঁর। ভোটের মাঠে তিনিও এক উদ্বাস্তু। তাঁরও নিজস্ব কোনো নির্বাচনী আসন নাই।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা, বর্তমান সময়ে নানা কারণে আলোচিত, কথার মারপ্যাঁচে চ্যাম্পিয়ন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। ডা. জাফরুল্লাহ না আছে ভোট, না আছে কোনো এলাকা, না আছে কোনো সমর্থক।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আরেক বড় নেতা, নারী সাংবাদিককে টকশোতে কটূক্তির করে বর্তমানে কারাগারে থাকা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। তিনি সর্বশেষ ১৯৭৩ সালে নির্বাচন করেছিলেন। এরপর তিনি একবার খন্দকার মোশতাকের পার্টিতে যান, একবার এই দলে যান তো আবার অন্য দলে যান। তাকে দেখে ঢাল নাই তলোয়ার নাই নিধি রাম সর্দার কথাটির যথার্থতা খুঁজে পাওয়া যায়। তিনি একাই পার্টি, একাই সদস্য, একারই ভোট সবকিছু। ১৯৭৩ তিনি যে আসন থেকে নির্বাচন করেছিলেন, সেই আসনটি এখন তাঁর ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর দখলে। তাই ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এখন নির্বাচনী এলাকাহীন এক বড় নেতা।

নির্বাচনের ডামাডোলে অনেক সক্রিয় আওয়ামী লীগের আরেক নেতা, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য নূহ আলম লেনিন। তিনি আগে ছিলেন কমিউনিস্ট পার্টিতে। কমিউনিস্ট পার্টিতে থাকাকালীন তাঁর যে জনবিচ্ছিন্নতা তৈরি হয়েছিল, সেই জনবিচ্ছিন্নতা এখনো কাটেনি। ভোটের মাঠে তাঁর কোনো কদর নাই।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিলেন এক মুসলিম দেশের রাষ্ট্রদূত। তিনি নজরুল ইসলাম খান। কখনোও নির্বাচনে যাননি তিনি। তারপরেও নজরুল ইসলাম খান বিএনপির অনেক বড় নেতা। ভোটের মাঠে তাঁর কোনো এলাকা নেই।

আরেকজন বিএনপি নেতা, যিনি সারাক্ষণ বকবক করতেই থাকেন, সারাক্ষণ তাঁর বকবকানির কারণে মানুষ বিরক্ত ও অস্থির। তিনি বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী। কিন্তু দেখা যাচ্ছে তাঁরও কোনো ভোট নাই, নির্বাচনী এলাকাও নাই।

রাজনীতি হচ্ছে গণ মানুষের জন্যে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় জনগণের কাছে যাওয়ার একমাত্র উপায় হচ্ছে ভোট। একজন রাজনীতিবিদ তাঁর চিন্তা-ভাবনা, আদর্শ, কর্মপরিকল্পনা নিয়ে জনগণের কাছে যান। জনগণ যদি তাঁকে ম্যান্ডেট দেয়, তাহলেই তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আসেন। এরপর তিনি নেতা বা মন্ত্রী হন। এরপর তিনি জনগণের কাছে যে অভিপ্রায় নিয়ে ভোট চেয়েছিলেন, সেই অভিপ্রায় বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করেন। ক্ষমতায় গিয়ে রাজনীতিবিদ হিসেবে তাঁর স্বপ্নের বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করেন। একজন রাজনীতিবিদের মূল জীবনী শক্তি হচ্ছে জনগণ। মাছ যেমন পানি ছাড়া বাঁচে না, তেমনি জনগণ ছাড়া কি রাজনীতিবিদ হওয়া যায়।

বাংলাদেশে বিভিন্ন সময়ে সামরিক তন্ত্র, স্বৈরতন্ত্র এবং অনির্বাচিত সরকার ক্ষমতায় থাকার ফলে নতুন একটা প্রজাতি গড়ে উঠেছে, যারা মুখে সবসময় জনগণের কথা বলেন, জনগণের আকাঙ্ক্ষার কথা বলেন, সবকিছুই জনগণের বলেন, কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে তাঁদের সঙ্গে জনগণের কোনো যোগাযোগ নেই। জনসম্পৃক্ততাহীন এই উদ্বাস্তু রাজনীতিবিদরা ভোট আসলেই করুণার পাত্র হয়ে যান। তখন এইসব উদ্বাস্তু রাজনীতিবিদদের কারও ছেড়ে দেওয়া আসন বা অন্যের আসন দেওয়া হয়। এইবার নির্বাচনে জনগণের সঙ্গে সম্পর্কহীন এইসব রাজনীতিবিদদের ভবিষ্যৎ কি সেটারই দেখার বিষয়। 

বাংলা ইনসাইডার/আরকে/জেডএ