ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

এরশাদের আশা এখনো ছাড়েনি বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৭:০০ পিএম
এরশাদের আশা এখনো ছাড়েনি বিএনপি

আপাতদৃষ্টিতে মহাজোটের ঐক্য এখনো অটুট আছে বলেই মনে হচ্ছে। আসন ভাগাভাগি নিয়ে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় পার্টির যে সংকট সৃষ্টি হয়েছিল তা মিটে গেছে বলেও গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ পেয়েছে। কিন্তু অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে, এরশাদ এখনো স্থির সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি যে, তিনি শেষ পর্যন্ত মহাজোটে থাকবেন নাকি আলাদাভাবে নির্বাচন করবেন।

বিএনপির যে সমস্ত নেতারা এরশাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন তারা একটা বিষয় নিশ্চিত করেছেন যে, এরশাদ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বা ২০ দলীয় ঐক্যজোটে যাচ্ছেন না। তাই বিএনপি যে কৌশল নিয়েছে তা হলো, এরশাদকে আলাদাভাবে নির্বাচন করানো। তারা মনে করছে যে, এটা হলে মহাজোট ক্ষতিগ্রস্ত হবে। একইসঙ্গে আওয়ামী লীগের ভোট ব্যাংকের ওপর প্রভাব পড়বে এবং আওয়ামী লীগের ভোট নষ্ট হবে। অন্যদিকে লাভবান হবে ঐক্যফ্রন্ট, বিএনপি এবং ২০ দল। সেজন্য জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে ইসলামী কয়েকটি দলকে আলাদাভাবে নির্বাচন করানোর কৌশল নিয়ে এগোচ্ছে বিএনপি। এই কৌশল বাস্তবায়ন করতে এরশাদকে অনেক লোভনীয় টোপ দেওয়া হয়েছে বলেও একাধিক বিএনপি নেতা নিশ্চিত করেছেন।

এরশাদের মূল সমস্যাটা হচ্ছে, তাঁর বিরুদ্ধে মঞ্জুর হত্যা মামলা রয়েছে। এ কারণে বরাবরই তিনি নির্বাচনে কোন পক্ষ নেবেন সেটা নিশ্চিত করার আগে দেখেছেন কাদের ক্ষমতায় যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। যাদের ক্ষমতায় যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি তাদের দিকেই ঝুঁকে পড়েন এরশাদ। বিএনপি মঞ্জুর হত্যা মামলাটা ঝুলিয়ে রেখে এরশাদকে দিয়ে তাদের পক্ষে কাজ করিয়েছে। আওয়ামী লীগও এই মামলাকে এরশাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেছে। এই মামলার কারণেই এরশাদ কখনো স্বাধীন মতামত দিতে পারেননি। এবারের নির্বাচনেও এরশাদ সজাগ ভাবে দেখছেন যে, কোন পক্ষের অবস্থান ভালো এবং কাদের দিকে জনস্রোত বেশি। যে পক্ষের অবস্থান ভালো হবে তিনি সেদিকেই ঝুঁকবেন, সেটা নিয়ে কোনো সন্দেহই নেই। এজন্য আওয়ামী লীগের সঙ্গে আসন ভাগাভাগির যে দেনদরবার তিনি করছেন সেটা নিছকই কালক্ষেপণ বলে অনেকেই মনে করছেন। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন বোর্ডের সভাতেও স্পষ্টভাবে মহাজোটে যাওয়ার কথা এরশাদ বলেননি। বরং তিনি বলেছেন, ‘এবার সিদ্ধান্ত নেব আমি। এবং আমি যে সিদ্ধান্ত নেব, সেটাই সবাইকে মানতে হবে।’

বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে যেমন এরশাদের যোগাযোগ হচ্ছে তেমনি আমাদের সঙ্গেও তাঁর কথাবার্তা চলছে। আমরা আশাবাদী যে এরশাদ শেষ পর্যন্ত এমন একটি সিদ্ধান্ত নেবেন যেটা বিএনপির জন্য লাভজনক হবে এবং মহাজোটের জন্য হবে বিব্রতকর।

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি/জেডএ