ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

হেভিওয়েট প্রার্থীদের লড়াই: ঢাকা- ৮ আসন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০১৮ শুক্রবার, ০৩:০০ পিএম
হেভিওয়েট প্রার্থীদের লড়াই: ঢাকা- ৮ আসন

নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আসন পুনর্বিন্যাস করে রাজধানীর মতিঝিল-রমনা-পল্টন থানা নিয়ে ঢাকা-৮ সংসদীয় আসনটি গঠন করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সচিবালয়, উচ্চ আদালত এবং মন্ত্রিপাড়া এই নির্বাচনী এলাকায় পড়ায় ঢাকার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আসন হিসেবে বিবেচনা করা হয় ঢাকা- ৮ আসনকে। এই আসনে এবার মুখোমুখি হবেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সাংসদ মির্জা আব্বাস। রাশেদ খান মেনন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের ব্যানারে নির্বাচন করবেন।

সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী, ২ লাখ ৬৪ হাজার ৮৯৩ জন ভোটার রয়েছে জাতীয় সংসদের ১৮১ নং আসনটিতে। এরাই এবার নির্ধারণ করবেন ১৪ দলের রাশেদ খান মেনন নাকি বিএনপির মির্জা আব্বাস এই এলাকার এমপি হবেন।

রাশেদ খান মেনন একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ।  ১৯৭৯ সালে তিনি সর্বপ্রথম জাতীয় সংসদের এমপি নির্বাচিত হন। স্বৈরাচারী এরশাদ সরকারের পতনের পর ১৯৯১-এর পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন রাশেদ খান মেনন। পরবর্তীতে ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এবং ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ১৪ দলের প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-৮ নির্বাচনী এলাকা থেকে এমপি নির্বাচিত হন। পরপর দুবার সাংসদ থাকায় এলাকায় অনেক উন্নয়নের সুযোগ পেয়েছেন মেনন যা তাঁর জন্য ইতিবাচক হিসেবে ধরা হচ্ছে। আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচনী এলাকার আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়মিত বৈঠকও করছেন তিনি। স্বাধীনতার আগে থেকেই রাজনীতি অঙ্গনে নিজের আলাদা একটি জায়গা করে নেওয়া মেনন আবার ক্ষমতায় আসতে আওয়ামী লীগের অন্যতম ভরসা।

এই আসনের বিএনপি প্রার্থী মির্জা আব্বাসও পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ। ঢাকা-৮ এর একটি বড় অংশ শাহজাহানপুরের স্থায়ী এই বাসিন্দার সাবেক নির্বাচনী এলাকা। মির্জা আব্বাস ১৯৯১ সালের নির্বাচনে প্রথমবারের মতো এখান থেকে (তৎকালীন ঢাকা-৬ আসন)  এমপি নির্বাচিত হন। তবে  ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে হেরে যান তিনি। এরপর ২০০১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে বিএনপি সরকারের গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রীর দায়িত্ব পান মির্জা আব্বাস। অবশ্য সর্বশেষ দুটি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করার সুযোগ হয়নি তাঁর। ২০০৮ এ কারাগারে থাকায় এবং ২০১৪ এর নির্বাচন বিএনপি বর্জন করায় দীর্ঘদিন সংসদ থেকে দূরে আছেন মির্জা আব্বাস। কিন্তু আবার সংসদে ফিরে আসতে চান তিনি। তৃণমূল থেকে উঠে আসা বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাসের এলাকায় জনপ্রিয়তা রয়েছে। মন্ত্রী-এমপি ও মেয়র থাকাকালে এলাকার উন্নয়নমূলক কাজের জন্য সাধারণ মানুষও তাঁকে পছন্দ করেন। যে সরকারের অধীনে নির্বাচন হোক না কেন, মির্জা আব্বাসের জয় কেউ ঠেকাতে পারবে না বলে তাঁর কর্মী-সমর্থকদের বিশ্বাস।

জাতীয় রাজনীতির দুই হেভিওয়েট নেতা ঢাকা- ৮ আসনে মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন। যিনিই শেষ পর্যন্ত বিজয়ী হন না কেন, এই আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ভবিষ্যৎ বাণী করছেন দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি