ঢাকা, বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

জামাতের অভিভাবক হলেন ড. কামাল

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৮:০০ পিএম
জামাতের অভিভাবক হলেন ড. কামাল

নির্বাচনের সমন্বয় সাধনের জন্য একীভূত হচ্ছে ২০ দলীয় জোট এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিএনপি নিয়ন্ত্রিত এই দুই জোটের ঐক্যের নাম দেওয়া হচ্ছে ‘সম্মিলিত ঐক্যফ্রন্ট’। আর এই ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক হচ্ছেন ড. কামাল হোসেন। তিনিই হবেন সম্মিলিত ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান। এর মাধ্যমে স্বাধীনতা বিরোধী এবং যুদ্ধাপরাধীদের দল জামাতের অভিভাবক এবং নেতা হিসেবেও অভিষিক্ত হলেন ড. কামাল হোসেন। দুই জোটের শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে এই তথ্য জানা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানাচ্ছে, দুই জোট নির্বাচনী ঐক্য গড়লেও তাদের মুখপাত্র থাকবেন আলাদা। ২০ দলের প্রধান সমন্বয়ক এবং মুখপাত্র হিসেবে কাজ করবেন এলডিপির নেতা কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ। অন্যদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমন্বয়ক এবং মুখপাত্র হিসেবে কাজ করবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান অবশ্য বলেছেন, ‘যেহেতু ২০ দলের অধিকাংশ দল এবং ঐক্যফ্রন্ট ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছে, তাই দুটো জোটের প্রচার নীতি এবং কৌশলে সমন্বয় আনা প্রয়োজন।’ তিনি বলেন, ‘ঐক্য না করলেও দুই জোটের মধ্যে একটা সমন্বয় অবশ্যই নির্বাচনের সময় করা হবে।’ বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, ‘দুই জোটে নির্বাচন পরিচালনার জন্য এমন ব্যক্তিদের নেওয়া হচ্ছে যারা নির্বাচন করছেন না। নির্বাচন পরিচালনার জন্যই নজরুল ইসলাম খান, আবদুল আউয়াল মিন্টু নির্বাচন করছেন না।’ ঐ নেতা বলেন, ‘যেহেতু ড. কামাল হোসেন নিজে নির্বাচন করছেন না, সেহেতু তিনি একজন অভিভাবক তুল্য রাজনীতিবিদ। কাজেই ‘সম্মিলিত ঐক্যজোটে’র নেতৃত্ব তাঁকে দেওয়াই সমীচীন বলে বিএনপি মনে করে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেছেন, ‘গতকাল ২০ দলীয় জোটের বৈঠকেও বিষয়টি আলোচনা হয়েছে। বৈঠকে দুই জোটের নির্বাচনী ঐক্যের ব্যাপারে একমত হয়েছেন ২০ দলের সব দলই।

জানা গেছে, বৈঠকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এরকম নির্বাচনী প্লাটফর্মের নেতৃত্ব ড. কামাল হোসেনকে দেওয়ার প্রস্তাব করেন। এতে কি কি সুবিধা হবে সে সম্পর্কেও তিনি ২০ দলের শরিকদের অবহিত করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মির্জা ফখরুলের প্রস্তাব সবাই মেনে নিয়েছে। বৈঠকে উপস্থিত জামাতের প্রতিনিধি আবদুল হালিম বলেছেন, ‘আমাদের একজন অভিভাবক থাকা দরকার। একজন মুরব্বি থাকলে ভালো।’

 বিএনপির একজন নেতা বলেন,‘ আজ সকালেই বিএনপি মহাসচিব প্রস্তাবটি নিয়ে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনিও এতে আপত্তি করেননি। তবে, আগামীকাল মঙ্গলবার এ নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আনুষ্ঠানিক আলোচনা হবে।’ ঐক্যফ্রন্টের একজন নেতা বলেছেন ড. কামাল গণফোরামের জন্য অন্তত ১০ টি আসন ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে বিএনপিকে। বিএনপি যদি এতে রাজি হয়, সেক্ষেত্রে হয়তো সম্মিলিত নির্বাচনী জোটের নেতা হতে রাজি হবেন ড. কামাল। সম্মিলিত নির্বাচনী জোটের নেতা যদি ড. কামাল হোসেন হন, তাহলে তিনি জামাতের প্রধান নেতা বা মুরব্বি হিসেবে অভিষিক্ত হবেন। ড. কামাল একাধিকবার বলেছিলেন, জামাতের সঙ্গে তিনি জোট করবেন না। অথচ এখন জামাতের ২৫ জন প্রার্থীকে জেতানোর প্রধান নেতা হলেন ড. কামাল। 

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ