ঢাকা, রোববার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আবার শেখ হাসিনার কাছে পরাস্ত তারেক

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ১০:০০ পিএম
আবার শেখ হাসিনার কাছে পরাস্ত তারেক

নির্বাচন বিষয়ে সব কিছুই পরিকল্পনা মাফিক এগুচ্ছিল। তারেক জিয়ার পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০ দল রেখেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করতে পেরেছিল বিএনপি। তারেকের পরিকল্পনা অনুযায়ীই ঐক্যফ্রন্ট থেকে অধ্যাপক বি চৌধুরীকে বাদ দেওয়া হয়। তারেকের পরিকল্পনা ছিল যে, জাতীয় পার্টির সঙ্গে আসন বন্টনের সময় একটা জট তৈরি হবে এবং সেই জটের কারণে জাতীয় পার্টির আওয়ামী লীগ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। ২০১৪ সালের নির্বাচনের মতোই একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তিনি এমন একটা পরিবেশ তৈরি করতে চেয়েছিলেন যে আবারও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত একটা পরিবেশ সৃষ্টি হয়। তারেক জিয়া জানতেন যে এবার এমন একটা পরিবেশ সৃষ্টি হলে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে সেটা গ্রহণযোগ্য হবে না। তারেকের এমন পরকল্পনামাফিক সবকিছুই চলছিল। সেই কারণেই বিএনপি কোনো দাবি দাওয়া অর্জন না হওয়া সত্ত্বেও, নির্বাচনের কোনো রকম প্রস্তুতি ছাড়াই আচমকা নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল। আসন্ন জাতীয় নির্বাচন উপলক্ষে বিএনপি ৬৯৬ প্রার্থী দিয়ে সবাইকে অবাক করে দিয়েছিলেন। ৩০০ আসনের বিপরীতে ৬৯৬ জন প্রার্থী দিয়ে বিএনপি বুঝিয়ে দিয়েছিল যে, নির্বাচন করা তাদের মুখ্য উদ্দেশ্য নয়। বরং অন্য একটা পরিবেশ তৈরি করে নির্বাচন বন্ধের পরিবেশ সৃষ্টি করা। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে তারেক রহমান অঢেল টাকাও ঢেলেছিলেন এমন খবরও পাওয়া যায়। ড. কামাল হোসেন বলেছিলেন, তিনি জামাতের সঙ্গে কোনো ঐক্য করবেন না। সেই জামাতকে বিএনপি যখন ২৫ টি আসন বরাদ্দ করেন তখনো মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন ড. কামাল হোসেন। এইসব কিছুই হয়েছে আর্থিক লেনদেনের কারণে। কিন্তু তারেক জিয়া একজনকেই ম্যানেজ করতে পারেন নাই, আর তিনি হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনার রাজনৈতিক দূরদর্শিতার কাছে তারেক রহমান আরেকবার পরাস্ত হলেন। তারেক রহমানের পরিকল্পনা জানতো বলেই আওয়ামী লীগ মহাজোটের আসন বণ্টন চূড়ান্ত করেনি। এই কারণেই আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টিকে আলাদাভাবে মনোনয়ন জমা দিতে বলেছে, যুক্তফ্রন্ট ও ইসলামী আন্দোলনকে আলাদাভাবে  মনোনয়নপত্র জমা দিতে বলেছে।  যার ফলে এখন পরিস্থিতি এমন হয়েছে যে, বিএনপি, ২০ দল এবং ঐক্যফ্রন্ট যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ নাও করেন, তারপরেও প্রতিটি আসনে গড়ে চারজন করে প্রার্থী থাকবে। সুতরাং একতরফা নির্বাচনের আর কোনো সম্ভাবনা নাই। আন্তর্জাতিক মহলও এটাই বলেছে যে, কারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে, কারা অংশগ্রহণ করছে না, সেটা মুখ্য বিষয় নয়। বরং তারা একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায়। যে নির্বাচনে সবাই স্বাধীনভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। যার ফলে বিএনপির পরিকল্পনা এখন হোঁচট খেয়েছে।

বিএনপি দ্বিতীয় পরিকল্পনা ছিল, জাতীয় পার্টিকে আওয়ামী লীগ থেকে বিচ্ছিন্ন করা। ২০১৪ সালে এরশাদ যেমন নানা রকম নাটক করে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিল, জাতীয় পার্টিকে দিয়ে সেই একই রকম নাটক সাজানো। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ এবং মহাসচিব রুহুল  আমিন হাওলাদার সঙ্গে সিঙ্গাপুরে তারেক রহমানের লোকজন একাধিকার বৈঠক করে। এইসব বৈঠকে বিভিন্ন প্রলোভন এবং আর্থিক সুবিধা দিয়ে জাতীয় পার্টিকেও ম্যানেজ করে ফেলেছিলেন তারেক রহমান। তারেক রহমানের এই পরিকল্পনাও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতার কাছে পরাস্ত হয়। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এবং মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের ভূমিকা নিয়ে যখন প্রশ্ন দেখা যায় এবং জাতীয় পার্টিতে তাঁদের সিদ্ধান্ত বিতর্কিত হয়ে ওঠে, তখন দলের মহাসচিব পদে পরিবর্তন করা হয়। মশিউর রহমান রাঙ্গাকে জাতীয় পার্টির মহাসচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। যার ফলে কার্যত এরশাদ দলের মধ্যে ক্ষমতাহীন হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে রওশন এরশাদ দল পরিচালনা করছেন। কাজেই জাতীয় পার্টি ২০১৪ সালের মত নির্বাচন থেকে একতরফা ভাবে সরে দাঁড়াতে পারবে না।

তারেক রহমানের তৃতীয় পরিকল্পনা ছিল যে, দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে নির্বাচন বিষয়ে নানা রকম অসত্য, মিথ্যা, মনগড়া প্রতিবেদন প্রকাশ করে সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করা। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি দৈনিকে হাউজ অব কমনসের একটি প্রস্তাব নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। পরবর্তীতে দেখা যায় হাউজ অব কমনস এমন কোনো প্রতিবেদন তৈরি করে নাই। উপরন্তু মার্কিন কংগ্রেসে জামাত এবং ইসলামী দলগুলোর বিষয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন।

সার্বিক বিষয়ে বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে জনগণের ভোটের লড়াইয়ের আগেই, একটা রাজনৈতিক কৌশলের লড়াই হয়েছে। যে কৌশলের লড়াইয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটা পক্ষ ছিল, যারা চেয়েছিল দেশে একটা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক। যে নির্বাচনে জনগণের মতামত প্রতিফলিত হবে। আরেকটা পক্ষ ছিল দেশে এমন একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি করা, যেই পরিস্থিতি নির্বাচন বানচাল করা যায়। এই পরিকল্পনাকারীদের নেতা ছিলেন তারেক রহমান।  তারেক রহমানের সঙ্গে একাত্ম হয়ে ড. কামাল হোসেন, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, আ স ম আব্দুর রব, মাহমুদুর রহমান মান্না কাজ করছিলেন। কিন্তু এখন পুরো ঘটনাটিই বুমেরাং হয়ে গেছে। এখন বিএনপি, জামাত অথবা ঐক্যফ্রন্ট যদি নির্বাচন বর্জনও করে, তারপরেও নিবন্ধিত ৩৯ টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে ৩০টি রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বলে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে। ফলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কৌশলের কাছে আরও একবার পরাজিত হলেন তারেক।

বাংলা ইনসাইডার/আরকে/জেডএ