ইনসাইড পলিটিক্স

১০০ আসনে জামাতের শুভাকাঙ্ক্ষী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৮


Thumbnail

এবারের নির্বাচনে স্বাধীনতা বিরোধী এবং যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠন জামাতে ইসলামীর সমর্থক অন্তত ১০০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। নির্বাচন নিয়ে জামাতের গোপন মূল্যায়ন প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপি জামাতের ২৫জন প্রার্থীকে ধানের শীষ প্রতীক দিয়েছে। কিন্তু জামাত বলছে বিভিন্ন দলে তাঁদের সমর্থক শুভাকাঙ্ক্ষী আরও ৭৫ জন প্রার্থী রয়েছে।

জামাত আশা করছে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে শীর্ষ নেতাদের ফাঁসির পরেও আগামী জাতীয় সংসদে জামাত সমর্থকরা ৫০টি আসনে বিজয়ী হবে। এটা তাদের ক্ষমতায় যাওয়ার পথে এক বড় পদক্ষেপ বলে তারা মনে করছে। উল্লেখ্য, একাত্তরের ঘাতক গোলাম আজম ১৯৯১ সালে জামাতের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ শীর্ষক এক মূল্যায়ন প্রতিবেদন তৈরি করেছিলেন। ঐ মূল্যায়ন প্রতিবেদনে ২০৩০ সালের মধ্যে জামাতের ক্ষমতায় যাওয়া এবং বংলাদেশকে ইসলামী রাষ্ট্র হিসবে প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল। ঐ মূল্যায়ন প্রতিবেদন জামাতের মজলিশে সুরায় অনুমোদন হয়। ৯২ সালের ঐ মজলিশে সুরার বৈঠকেই, গোলাম আজমকে প্রকাশ্যে জামাতের আমির হিসেবে ঘোষণা করা হয়। জামাত তার গোপন প্রতিবেদনে বলেছে, জামতের নেতা-কর্মীদের উপর বর্বর নিপীড়ন নির্যাতনের পরও জামাত এখন আগের চেয়ে শক্তিশালী হয়েছে। সাথী কর্মীরা আগের চেয়েও নিবেদিত হয়েছেন ইসলাম প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘নির্বাচনে জামাত তাঁর নিজস্ব প্রতীক দাড়িপাল্লা নিয়ে নির্বাচন না করলেও কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ।’

জানা গেছে, ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে জামাতের ২৫ জন নির্বাচন করছেন। আরও দশজন জামাতের স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে। বিএনপি করেন কিন্তু জামাতের নীতি ও আদর্শে বিশ্বাসী এমন প্রার্থী আছেন ১২ জন। এছাড়াও ২০ দলের শরিকদের মধ্যে ‘গোপন জামাত’ আরও তিনজন মনোনয়ন পেয়েছেন। জাতীয় পার্টিতে থাকা জামাতের ৫জন এবার লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। এছাড়া বিভিন্ন ইসলামী দলে থাকা জামাতের আরও ২২ জন এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগেও অন্তত ৪জন মনোনয়ন পেয়েছেন যারা জামাতের প্রতি সহানুভূতিশীল এবং সমর্থক। এছাড়াও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টেও জামাতের শুভাকাঙ্ক্ষী রয়েছে বলে জামাত সূত্রে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে। খোজ নিয়ে জানা গেছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একজন শীর্ষ নেতা জামাতের ঘনিষ্ট। দীর্ঘদিন ধরে জামাতের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ রয়েছে। জানা গেছে, আওয়ামী লীগ থেকে সদ্য বিএনপিতে যোগ দেওয়া এক নেতাও জামাত সমর্থক। জামাতই তাঁকে বিএনপিতে যেতে তদবির করেছে। জামাত মনে করছে, সময় ও সুযোগ মতো তাঁদের শুভাকাঙ্ক্ষীরা প্রকাশ্য হবে।  

বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ



মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

'বিএনপির কাছে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার মতো কিছু নেই'

প্রকাশ: ০৪:৩৬ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail 'বিএনপির কাছে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার মতো কিছু নেই'

দেশে যাদের গুম করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে তাদের মধ্যে অনেকে ৬ মাস বা এক বছর পর বাড়ি ফিরে এসেছে। এদের অনেকে সামাজিক বা পারিবারিক কারণে আত্মগোপনে থাকেন। বিএনপি এটাকে গুম হিসেবে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। আসলে বিএনপির কাছে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার মতো কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপির তথাকথিত আন্দোলনের সঙ্গে দেশবাসীর কোনো সম্পর্ক নেই। কারণ বিএনপি ব্যক্তিগত ইস্যু নিয়ে আন্দোলন করছে। তাদের দুর্নীতিবাজ নেতা দেশের সম্পদ লণ্ঠুন, হত্যা ও খুনের দায়ে অভিযুক্ত হয়ে দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে বিদেশে পলাতক আছেন। সে পলাতক নেতার জন্য কি এদেশের মানুষ আন্দোলন করবে?

হানিফ বলেন, বলেন, বিএনপির ষড়যন্ত্র হলো দেশের মধ্যে নানা ধরণের অপপ্রচার করে মানুষকে বিভ্রান্ত করা এবং বিদেশের কাছে ধর্না দিয়ে সরকারের পতন ঘটানো যায় কিনা সেটাই তাদের স্বপ্ন। তাদের এ অপতৎপরতা বাংলাদেশে কোন দিন সফলতা লাভ করবে না।

জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরফাতের সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আব্দুস সালাম, উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহাবুবুর রহমানসহ আরও অনেকে।

আওয়ামী লীগ   যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক   মাহবুবউল আলম হানিফ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

'ধৈর্যহারা হবেন না, ইনশা আল্লাহ এই দিন থাকবে না'

প্রকাশ: ০৩:৫৭ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail 'ধৈর্যহারা হবেন না, ইনশা আল্লাহ এই দিন থাকবে না'

‘আমরা দোষী না, আমরা অপরাধীও না। আমাদের আর্থিক সংকটের বৈশ্বিক পরিস্থিতির মূল্য দিতে হচ্ছে। শেখ হাসিনাকে মূল্য দিতে হচ্ছে। রাত জেগে জেগে দেশের মানুষের কথা ভাবতে হচ্ছে। ধৈর্যহারা হবেন না কেউ, ইনশা আল্লাহ এই দিন থাকবে না' বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসিতে ঢাবি ছাত্রলীগ আয়োজিত ‘পিতার শোক, কন্যার শক্তি : বাংলার অপ্রতিরোধ্য অগ্রগতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা মানুষের কষ্ট বোঝেন। সরকার প্রধান হয়ে তিনি প্রকাশ্যেই বলেছেন, ‘মানুষ কষ্ট করছে’। এই কষ্ট লাঘবে তিনি কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এই কষ্ট সাময়িক, এই দুর্দিন চলে যাবে। সুদিন আবার আসবে।

তিনি আরও বলেন, ১৩ বছর ধরে কত শুনলাম, রোজার ঈদের পরে, কোরবানির ঈদের পরে, দেখতে দেখতে ১৩ বছর। দিন যায়, সপ্তাহ যায়, মাস যায়, পদ্মা-মেঘনা নদীতে কত পানি গড়িয়ে যায়। কিন্তু, ফখরুল সাহেবদের আকাঙ্ক্ষিত আন্দোলনের সোনার হরিণ দেখা যায় না। ক্ষমতার ময়ূর সিংহাসন দিল্লি দূর অস্ত।

খালেদা জিয়ার জন্মদিন কয়টা?- এমন প্রশ্ন তুলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দুই দিন আগে দেখলাম, বেগম জিয়ার জন্ম দিবসে এবার কেক কাটা হচ্ছে না। ১৫ তারিখে কেক কাটা হয়নি। কিন্তু ১৬ তারিখে দোয়া মাহফিল করা হয়েছে। বেগম জিয়া অসুস্থ, দোয়া মাহফিলে আমাদের আপত্তি থাকার কথা না। কিন্তু দোয়া মাহফিলের উপলক্ষ্য কী? উপলক্ষ্য খালেদা জিয়ার জন্মদিন। এখনো ভুয়া জন্মদিন পালন করা হচ্ছে। একটা মানুষের কয়টা জন্মদিন? এ পর্যন্ত সর্বশেষ করোনা টেস্টে ষষ্ঠ জন্ম দিবস পাওয়া গেছে। বাংলাদেশের মানুষের সঙ্গে এ তামাশার নাটক আর কতদিন করবেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশে তিনি বলেন, কষ্ট প্রকাশ করে কী করবেন? শেখ হাসিনাকে আল্লাহ ক্ষমতা দিয়েছেন। তিনি ভাগ্যবতী। আল্লাহ এই দেশে একজনকে সৃষ্টি করেছেন স্বাধীনতার জন্য, আরেকজনকে সৃষ্টি করেছেন মুক্তির জন্য। শোককে শক্তিতে পরিণত করে মুক্তির লড়াইয়ের আপসহীন কাণ্ডারি শেখ হাসিনা।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় এতে প্রধান আলোচক ছিলেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন। বিশেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক   সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী   ওবায়দুল কাদের  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

রুহিন হোসেন প্রিন্স বাম জোটের নতুন সমন্বয়ক

প্রকাশ: ০৩:৫০ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail রুহিন হোসেন প্রিন্স বাম জোটের নতুন সমন্বয়ক

বাম গণতান্ত্রিক জোটের নতুন সমন্বয়ক করা হয়েছে সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্সকে। বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে জোটের কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এ বিষয়ে নতুন সমন্বয়ক রুহিন হোসেন প্রিন্স সাংবাদিকদের বলেন, প্রতি তিন মাস পর পর জোটের সমন্বয়ক পরিবর্তন করা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় জোটের নতুন সমন্বয়ক করা হয়েছে আমাকে।

উল্লেখ্য, বাম জোটের সর্বশেষ সমন্বয়ক ছিলেন অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার।


রুহিন হোসেন প্রিন্সm বাম জোট   সমন্বয়ক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

ফরিদপুরে যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশ: ১০:১০ পিএম, ১৭ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ফরিদপুরে যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল

২০০৫ সালের ১৭ই আগস্ট বিএনপি-জামায়াত জোটের মদদে দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে ফরিদপুর জেলা যুবলীগ।

ফরিদপুর জেলা যুবলীগের আহবায়ক জিয়াউল হাসান মিঠুর নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল শহরের মুজিব সড়ক হয়ে ফরিদপুর প্রেস ক্লাবে শেষ হয়। এসময় প্রেসক্লাব চত্তরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। 

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক জিয়াউল হাসান মিঠু, যুগ্ম আহ্বায়ক মেহেদী হাসান শামীম তালুকদার, যুগ্ম আহ্বায়ক খান মোহাম্মদ শাহ সুলতান রাহাত, জেলা যুবলীগের সদস্য জুয়েল খান, তানভীর কামাল সাব্বির, গোবিন্দ চন্দ্র বিশ্বাস, ইতমাম হাসিন চৌধুরী,  হিমেল মাহফুজ, যুবলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান শুভ, কাউসার আকন্দ, টুটুল বিশ্বাসসহ আরও অনেকে।


ফরিদপুর   যুবলীগ   বিক্ষোভ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল বিএনপি: হানিফ

প্রকাশ: ১০:০৭ পিএম, ১৭ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল বিএনপি: হানিফ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, সারাদেশে একসঙ্গে ৬৩ জেলায় ৫০০ এর বেশি জায়গায় সিরিজ বোমা হামলা হয়েছে। এটা বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা ছিল না। বিএনপি জঙ্গিদের হাতে শত শত ট্রাক অস্ত্র তুলে দিয়েছিল। চট্টগ্রামে ১০ ট্রাক অস্ত্র আটক হয়েছিল। তারা বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল। বিএনপি-জামায়াত দেশকে অন্ধকারে নিয়ে গিয়েছিল। শেখ হাসিনা সেই অন্ধকার রাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশকে আলোয় উদ্ভাসিত করে উন্নয়ন, অগ্রগতিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

বুধবার (১৭ আগস্ট) বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের প্রধান ফটকের সামনে দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট বাংলাদেশের ইতিহাসের কলঙ্কময় দিন। বাংলাদেশকে উগ্র মৌলবাদী রাষ্ট্র গড়ার চক্রান্ত করে আসছিল বিএনপি-জামায়াত। তারই চূড়ান্ত মহড়া ছিল ১৭ আগস্ট।

হানিফ বলেন, বিএনপি নেতারা কথায় কথায় বলে টেক ব্যাক বাংলাদেশ। বাংলাদেশ কোথায় নিয়ে যাবে? তারা বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদের তালেবানি পাকিস্তান, আফগানিস্তানের মতো দেশে নিয়ে যেতে চান।

বিএনপি পাঁচ বছর রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকতে দেশের কোনো উন্নয়ন করতে পারেনি উল্লেখ করে হানিফ বলেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকতে হাওয়া ভবন বানিয়ে দেশের সম্পদ লুট করেছে, দেশকে উগ্রবাদ, মৌলবাদের দিকে নিয়ে গিয়েছিল। আজকে আওয়ামী লীগের লাখ লাখ নেতা-কর্মী মাঠে নেমেছে। আমাদের লক্ষ্য একটাই, যে কোনো মূল্যে সকল চক্রান্ত প্রতিরোধ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে উন্নয়ন অগ্রগতিতে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ বজলুর রহমান।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, ড. আব্দুর রাজ্জাক, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, হাছান মাহমুদ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, মির্জা আজম, এস এম কামাল হোসেন ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মান্নাফী প্রমুখ।

বিক্ষোভ সমাবেশে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, শ্রমিক লীগ, তাঁতী লীগ, মৎসজীবী লীগ ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা ছাড়াও ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে যোগ দেন।

বিক্ষোভ সমাবেশ সঞ্চালনা করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির ও মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি।


বাংলাদেশ   জঙ্গিবাদী রাষ্ট্র   বিএনপি   হানিফ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন