ঢাকা, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

লন্ডনে দেখা করে ১০৬ জনের মনোনয়ন লাভ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার, ০৭:০০ পিএম
লন্ডনে দেখা করে ১০৬ জনের মনোনয়ন লাভ

বিএনপির দুঃসময়ের কাণ্ডারি খন্দকার দেলোয়ার হোসেন। তাঁর ছেলে খন্দকার আবদুল হামিদ ডাবলু। গত সেপ্টেম্বর মাসে তাঁর কাছে একটি ক্ষুদে বার্তা আসে। এতে বলা হয়, মনোনয়ন চাইলে যেন লন্ডনে তারেক জিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করে। এই বার্তা পেয়ে ডাবলু দেখা করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে। জানতে চান মনোনয়নের জন্য তাঁকে লন্ডনে যোগাযোগ করতে হবে কিনা। মির্জা ফখরুল এটাকে ‘ভুয়া বার্তা’ বলে উড়িয়ে দেন। ডাবলুকে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তুমি দেলোয়ার ভাইয়ের ছেলে, আমি মনোনয়ন পেলে তুমিও পাবে।’ অক্টোবরে ডাবলুকে স্থানীয় কয়েকজন কর্মী জানান, এস. এ জিন্নাহ কবির মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে লন্ডন গেছেন। দামদর রফা হলে জিন্নাহ কবিরই হবেন মানিকগঞ্জ-১ থেকে বিএনপির প্রার্থী। ডাবলু আবার যোগাযোগ করেন মির্জা ফখরুলের সঙ্গে। এবার মির্জা ফখরুল একটু বিরক্তই হন। এসব ফালতু কথায় কান না দিয়ে এলাকা গোছানোর পরামর্শ দেন ডাবলুকে। নভেম্বরের শুরুতে জিন্নাহ মানিকগঞ্জে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন, ‘ভাইয়া তাঁকে মনোনয়ন দিয়েছে।’ তখন থেকেই মাঠে জিন্নাহ কবির। বিএনপির চূড়ান্ত মনোনয়নে দেখা যায়, ডাবলু নেই, জিন্নাহ আছে। খন্দকার দেলোয়ার পুত্র দাবি করছেন, জিন্নাহ বিভিন্ন জায়গায় দাবি করেছেন যে, তারেক জিয়াকে ১০ কোটি টাকা দিয়ে মনোনয়ন কিনেছেন। শুধু ডাবলু একা নয়, তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে মনোনয়ন বাণিজ্যের এখন বিএনপিতে প্রকাশ্যেই চর্চা হচ্ছে। গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের সামনে, নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের রাস্তায় দাঁড়ালেই শোনা যায় কোন আসন কত টাকায় বিক্রি হয়েছে।

এহসানুল হক মিলনের ঘনিষ্ঠ চাঁদপুর বিএনপির সহ-সভাপতি বললেন, ‘মিলন ভাইয়ের কাছে তারেক ১০ কোটি টাকা চেয়েছিল। কিন্তু গ্রেপ্তার হয়ে যাওয়ার কারণে তিনি টাকা দিতে পারেননি, তাই তাঁকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। শামসুজ্জামান দুদু বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা। তাঁকে লন্ডনে যেতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি পাত্তা দেননি, মনোনয়নও পাননি।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, বিএনপির মনোনয়ন পাওয়াদের মধ্যে ১০৬ জনই এক বছরের মধ্যে অন্তত একবার লন্ডনে গেছেন। যেমনটি বলছিলেন বিএনপির ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা তৈমুর আলম খন্দকার। তিনি নারায়ণগঞ্জ-১ আসন থেকে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষীরা তাঁকে তারেক জিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করার পরামর্শ দিয়েছিল। কিন্তু এসবে কান দেননি তৈমুর। বলছিলেন, ‘লন্ডনে যোগাযোগ করি নাই, তাই মনোনয়ন পাইনি।’ বললেন, ‘এই রাজনীতিকে ঘৃণা করি।’ এভাবেই বিএনপিতে ছড়িয়ে পড়েছে তারেকের মনোনয়ন বাণিজ্যের খবর। বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা বলেছেন, ‘তারেক জিয়া এবার কোনো রাখঢাক না রেখেই মনোনয়ন বাণিজ্য করেছেন।’ উল্লেখ্য, শেষ পর্যন্ত দলের সিনিয়র নেতাদের চাপে দেলোয়ার পুত্র ডাবলুকে মনোনয়ন দেওয়া হলেও মনোনয়ন বাণিজ্যের খবর ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ