ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

নৌকা-লাঙ্গলের সমঝোতা নাকি লড়াই?

প্রণব সাহা
প্রকাশিত: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার, ১০:৩২ পিএম
নৌকা-লাঙ্গলের সমঝোতা নাকি লড়াই?

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের `অসুস্থতা’ এখনো স্পষ্ট নয়, তিনি চিকিৎসায় সিঙ্গাপুর যাবেন কি? এই প্রশ্নের জবাব মিলবে বলে মনে হয় না। আর সদ্য বিদায়ী রুহুল আমিন হাওলাদারের অবস্থান পার্টিতে কী হবে, তা আগের দিন আর পরের দিন হলো দু’ধরনের।  তবে তিনি জাপা চেয়ারম্যানের বিশেষ সহকারী থাকছেন।  আর তার মনোনয়নপত্র অবৈধ হয়ে গেছে ঋণখেলাপীর কারণে।  কিন্তু তার স্ত্রী নাসরিন জাহান রত্না মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে লড়াইয়ে থাকবেন বরিশাল-৬ আসনে। 

বরিশাল-৬ আসনের মত আরও ২৮টি আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে ভোটযুদ্ধে নামছেন। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদও রংপুর-৩ আসনে লাঙ্গল প্রতীকে প্রার্থী হচ্ছেন, আওয়ামী লীগের নৌকা থাকছে না এই আসনে। জাতীয় পার্টির দুই কো-চেয়ারপারসন বর্তমান সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদও মহাজোটের প্রার্থী ময়মনসিংহ-৪ আসনে। আর জাতীয় পার্টির অপর একজন কো-চেয়ারপারসন জি এম কাদেরও লালমনিরহাট-৩ আসনে লড়বেন লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে। এখানেও বলি হয়েছেন নৌকার প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ নেতারা। জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা মহাজোটের প্রার্থী হচ্ছেন রংপুর-১ আসনে। ওয়ান ইলেভেন সরকারের প্রভাবশালী সামরিক কর্মকর্তা লে. জেনারেল (অব) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীও এবার জাতীয় পার্টির কোটায় মহাজোটের প্রার্থী হলেন ফেনী-৩ আসনে। জাতীয় পার্টির হেভিওয়েট নেতা কিন্তু ভোটে মহাজোটের প্রার্থীদের মধ্যে আরও আছেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ (চট্টগ্রাম-৫), শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু (কিশোরগঞ্জ-৩), কাজী ফিরোজ রশীদ (ঢাকা-৬) এবং সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা ( ঢাকা-৪) প্রমুখ।

৩০০ আসনের মধ্যে আরও ১৩২টি আসনে থাকছে লাঙ্গল প্রতীক। এসব আসনে থাকবে নৌকা নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরাও। এগুলোতে বিএনপির প্রতীক থাকবে, ফলে ত্রিমুখী লড়াই হবে এসব আসনে। ২০০৮ সালেও আমরা এমন ত্রিমুখী লড়াই দেখেছিলাম বেশ কয়েকটি আসনে। তখন নীলফামারী-৪ আসনে ছিল নৌকা, লাঙ্গল ও ধানের শীষের প্রার্থী। এই আসনে আওয়ামী লীগের মারুফ সালায়েন জয়ী হয়েছিলেন। দ্বিতীয় হয়েছিলেন জাতীয় পার্টির শওকত চৌধুরী এবং তৃতীয় স্থানে ছিলেন বিএনপির আমজাদ হোসেন চৌধুরী। রংপুর-৪ আসনেও ত্রিমুখী লড়াইয়ে জয়ী হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের টিপু মুন্সী, দ্বিতীয় জাতীয় পার্টির করিম উদ্দিন ভরসা এবং তৃতীয় বিএনপির রহিম উদ্দিন ভরসা। গাইবান্ধা-৫ আসনে সেবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বীর কাছে হেরেছিলেন বর্তমান বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ। এখানে তৃতীয় হয়েছিলেন বিএনপির হাসান আলী। অবশ্য ত্রিমুখী লড়াইয়ে রওশন এরশাদ জয়ী হয়েছিলেন ময়মনসিংহ- ৪ আসন থেকে। এখানে আওয়ামী লীগের অধ্যক্ষ মতিউর রহমান দ্বিতীয় এবং বিএনপির এ কে এম মোশারফ হোসেন তৃতীয় হয়েছিলেন। কুষ্টিয়া-৩ সহ আরও কয়েকটি আসনেও নৌকা-ধানের শীষ ও লাঙ্গলের ত্রিমুখী লড়াই হয়েছিল।

২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেয়নি, কিন্তু সেই নির্বাচনে জাতীয় পার্টি অংশ নিয়ে হাসপাতালে যাওয়া থেকে শুরু করে নানা নাটক করেছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। এবারো তেমন নাটক সাজানো হলেও তা খুব বেশি জমেনি। বরং দলের অভ্যন্তরীণ নাটকে বদলে গেছে মহাসচিব। আগের রাতে ঋণখেলাপির অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল এবং পরেরদিন মহাসচিবের পদ হারিয়েছিলেন রুহুল আমিন হাওলাদার। এরপর জাপা চেয়ারম্যানের বিশেষ সহকারী হয়ে হাইকোর্টে রিট করেছেন নিজের মনোনয়নের বৈধতার চেয়ে।

বাংলা ইনসাইডার/এমআর/জেডএ