ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

খুচরা দলের খবর

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০২:০২ পিএম
খুচরা দলের খবর

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণের আগে হাতে গোনা কয়েকটা মাত্র দিন বাকি আছে। আজ প্রতীক বরাদ্দের পরই শুরু হয়েছে নির্বাচনের প্রচারণা। নির্বাচনে প্রচারের জন্য পাওয়া যাচ্ছে ১৯ দিন। আজ সোমবার থেকে শুরু হয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চলবে ২৮ ডিসেম্বর মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলো তাদের প্রার্থী নিশ্চিত করেছে। দর কষাকষি করে ভাগাভাগি করা হয়েছে জোট সমূহের শকিদের আসনও। প্রধান জোট ছাড়াও বেশ কয়েকটি দল তাদের প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে চূড়ান্ত লড়াইয়ের মাঠে রয়েছেন দেড় হাজারের বেশি প্রার্থী।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, ৪২টি আসন মহাজোটের শরিকদের জন্য ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে জাতীয় পার্টি ২৬টি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ৫, জাসদ (ইনু) ৩টি, তরিকত ফেডারেশন ২টি, জেপি ২টি, জাসদ (আম্বিয়া) ১টি ও যুক্তফ্রন্টকে ৩টি আসনে ছাড় দেয়া হয়। তবে মহাজোটের বাইরে গিয়ে জাতীয় পার্টি ১৪৮টি আসনে এককভাবে নির্বাচন করছে। নির্বাচনে মহাজোট প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনটি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) শীর্ষ ৩ নেতা। পাশাপাশি ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে শাহ জিকরুল আহমেদ, গাইবান্ধা-৩ আসনে এসএম খাদেমুল ইসলাম খুদি, রংপুর-২ আসনে কুমারেশ চন্দ্র রায় ও বরিশাল-৬ আসনে মো. মোহসীন দলীয় প্রতীক মশাল নিয়ে নির্বাচন করবেন।

অপরদিকে ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের ৫৯টি আসনে ছাড় দিয়েছে বিএনপি। এর মধ্যে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের ৪০ এবং ঐক্যফ্রন্টকে ১৯টি আসন দেয়া হয়েছে। জানা গেছে, ২০ দলীয় শরিকদের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীকে ২২টি, এলডিপিকে ৫, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ৪, জাতীয় পার্টি (জাফর) ২, খেলাফত মজলিস ২, বিজেপি ১, এনপিপি ১, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ১, লেবার পার্টি ১, পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশকে ১টি আসন দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ১৯টি আসন ছাড় দেয়া হয়। এর মধ্যে গণফোরাম ৭, জেএসডি ৪, নাগরিক ঐক্য ৪ ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে ৪টি আসন ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া কক্সবাজার-২ আসনে জামায়াতের প্রার্থী স্বতন্ত্র হিসেবে লড়বেন। এ আসনে বিএনপি কোনো প্রার্থী দেয়নি। এর বাইরেও পাবনা-১-এ মতিউর রহমান নিজামীর ছেলে ও চাপাইনবাবগঞ্জ-৩-এ নুরুল ইসলাম বুলবুলকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রেখেছে দলটি।

এ ছাড়া বাম গণতান্ত্রিক জোট ১৪৭ আসনে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। আটটি দল নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোট গঠিত হয়। দলগুলো হল- বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী), গণসংহতি আন্দোলন, বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টি ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলন। এসব দলের মধ্যে সিপিবি, বাসদ ও বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন রয়েছে। বাম জোট ৭৪টি আসনে নির্বাচন করছে। ইতিমধ্যে এসব আসনে প্রার্থিতা নিশ্চিত করা হয়েছে। ৭৪টি আসনে বাম জোটের বাইরে ৩টি আসন রয়েছে। ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের ১টি, ১টি গণমুক্তি ইউনিয়নের আর অন্যটি হচ্ছে সমজীবী সংঘ।

এদিকে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) পাঁচটি আসনে দলটির প্রার্থীকে হুক্কা প্রতীক দিতে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের চিঠি দিয়েছেন। দলের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিতে দিনাজপুর-১ আসনে মো. আরিফুর ইসলাম, ঢাকা-১৮ এসএম শাহাদাত, পঞ্চগড়-২ ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান, যশোর-৫ মো. নিজামউদ্দিন অমিত ও পঞ্চগড়-১ আসনে আল রাশেদ প্রধানকে দলীয় প্রতীক দেয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ এক চিঠিতে দলের প্রধানসহ তিনজনকে দলীয় প্রতীক গাভী দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে। তারা হলেন- জেবেল রহমান গানি, সুমি আক্তার শিল্পী ও মো. ওয়াজি উল্লাহ মাতব্বর অজু।

জাতীয় পার্টি-জেপি কুড়িগ্রাম-৪ ও পিরোজপুর-২ আসনে দলের প্রার্থীকে দলীয় প্রতীক বাইসাইকেল দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে।

২৯৮ আসনে লড়বে ইসলামী আন্দোলন: নির্বাচনে জোট-মহাজোটের বাইরে থাকা ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রার্থীরা ২৯৮টি আসনে দলীয় প্রতীক ‘হাতপাখা’ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

চূড়ান্ত প্রার্থীদের আজ সোমবার প্রতীক বরাদ্দ দেবেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এরপরই শুরু হবে প্রচার উৎসব। প্রচারের সময় যাতে আচরণ বিধিমালা লঙ্ঘন না হয়, সে জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশনা দিয়েছে ইসি। পাশাপাশি ভোটের মাঠে রয়েছে ১২২টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটি। এসব কমিটির কাছে নির্বাচনী অপরাধ ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ জানাতে পারবেন প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা।

বাংলা ইনসাইডার/এমএস/জেডএ