ঢাকা, বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিদ্রোহের আগুনে জ্বলছে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ সোমবার, ১০:০০ পিএম
বিদ্রোহের আগুনে জ্বলছে বিএনপি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য দেশের ৩০০ সংসদীয় আসনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ শেষ। আজ সোমবার প্রতীক বরাদ্দ শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলো প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণা। সারা দেশের অধিকাংশ আসনেই আনুষ্ঠানিক ভাবে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছে অংশগ্রহণকারী দলগুলো।

বেশ জোরেশোরেই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। তবে উল্টো চিত্র দেশের অন্যতম বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপির প্রার্থীদের ক্ষেত্রে। বিএনপির মনোনয়নপ্রাপ্তদের মধ্যে তেমন কোনো নির্বাচনী প্রচারণার খবর পাওয়া যায়নি। দেশের বিভিন্ন আসনে বিএনপির যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা বিএনপি সমর্থকদের দ্বারাই প্রতিরোধের মুখে পড়ছেন। এমন অনেক নেতাই আছেন যারা এলাকায় প্রবেশ করতে পারেননি এবং স্থানীয় বিএনপি দ্বারা তাদেরকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। 

বরিশাল-১ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন জহিরউদ্দিন স্বপন। কিন্তু তাঁকে সংস্কারবাদী চিহ্নিত করে বয়কটের আহ্বান জানিয়েছে বরিশাল বিএনপি। তাঁকে এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে এবং এলাকায় ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। চাঁদপুর-১ আসনে ধানের শীষের প্রতীক পেয়েছেন মালয়েশিয়া প্রবাসী মোশাররফ হোসেন। তাঁকেও বর্জন করেছে চাঁদপুর বিএনপি।

বিএনপির এমন দলীয় কোন্দল কোন খণ্ডচিত্র নয়, বরং দলটির অধিকাংশ আসনেই একই চিত্র পরিলক্ষিত। বেশিরভাগ আসনে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করতে পারেনি বিএনপির নেতারা।

এ বিষয়ে বিএনপির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম খান বাংলা ইনসাইডারকে বলেছেন, ‘এটা সাময়িক সমস্যা। এমন মান অভিমান নেতাকর্মীদের মধ্যে থাকবে এটাই স্বাভাবিক।  তবে খুব শিগগিরই আমরা এটা সামলে নিতে পারবো এবং খুব শিগগিরই বিএনপি প্রচারণায় নামতে পারবে।’

যদিও নজরুল ইসলাম খানের সঙ্গে একতম পোষণ করতে পারেননি বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আমাদের নেতারা মামলার খড়গ মাথায় নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাদের পক্ষে এই অবস্থায় নির্বাচনী প্রচারণা চালানো সম্ভব নয়। আদালত থেকে আমরা জামিন নেওয়ার চেষ্টা করছি। জামিনে বের হলেই আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবো।’ 

তবে সারা দেশে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে যে, দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপির মূল সমস্যা হলো মনোনয়ন নিয়ে নৈরাজ্য ও অসন্তোষ। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মনোনয়নবঞ্চিতদের ক্ষোভ।  এই অসন্তোষ ও ক্ষোভের কারণে নির্বাচনী প্রচারণায় নামতে পারছেন না মনোনীত প্রার্থীরা।  

যদিও যে সকল আসনে মনোনয়ন নিয়ে কোনো কোন্দল নেই, সেরকম কিছু কিছু আসনে বিএনপি নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছে বলে দলটির কিছু কিছু নেতা বলেছেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান এ বিষয়ে জানান, ঠাকুরগাঁও-১ এ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কুমিল্লা-১ এ ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। কিংবা ঢাকা-৮ এ আফরোজা আব্বাসের আসনগুলোতে ইতিমধ্যে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়েছে।

কিন্তু সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গিয়েছে, এসব আসনে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর জন্য এখন পর্যন্ত কমিটি গঠন করা হয়নি।

অনেকের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে, বিএনপি শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন প্রত্যাহার না করে নির্বাচনে থাকার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরও এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচার শুরু করছে কি না! নির্বাচনকে অন্যখাতে নিয়ে যাওয়ার কোনো চেষ্টা বিএনপির এখনো আছে কিনা তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে অনেক প্রশ্ন রয়েছে। 

বাংলা ইনসাইডার/এমআর/জেডএ