ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

তারেকের নিয়োগ, ফখরুলের প্রত্যাখ্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ০৮:০০ পিএম
তারেকের নিয়োগ, ফখরুলের প্রত্যাখ্যান

বিএনপিকে পরিবারের দখলে রাখতে তারেক জিয়া নতুন তিনজনকে স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে মনোনীত করেছেন। কিন্তু দলের দলের মহাসচিব সহ সিনিয়র নেতারা তারেকের এই মনোনয়ন প্রত্যাখ্যান করেছেন। তাঁরা বলেছেন, দলের কাউন্সিল ছাড়া একমাত্র দলের চেয়ারপারসনের এই ক্ষমতা রয়েছে। দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের এই ক্ষমতা নেই। এছাড়াও বিএনপি মহাসচিব জানিয়েছেন, দলের ‘ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান’ বলে কোনো পদও নেই।

গতকাল বিকেলে লন্ডন থেকে তারেক জিয়া স্থায়ী কমিটির নতুন তিনজনকে মনোনয়নের লিখিত মেইল পাঠান। বিএনপির স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য পদ শূন্য রয়েছে। দীর্ঘদিন শূন্যপদ পূরণ করা হয়নি। স্থায়ী কমিটির সদস্য বিগ্রেডিয়ার হান্নান শাহ, এম কে আনোয়ার, তরিকুল ইসলাম মারা গেলেও এই পদে কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। ফলে দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারক এই কমিটি এখন কোরাম সংকটে। জানা গেছে, তারেক জিয়া তাঁর স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান, কোকোর স্ত্রী সৈয়দা শর্মিলা রহমান সিঁথি এবং আবদুল আউয়াল মিন্টুকে স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে মনোনয়ন দেন। কিন্তু বিএনপির মহাসচিব মনে করছেন, এখনই স্থায়ী কমিটির শূন্যপদ পূরণের দরকার নেই। তাঁর মতে, দল এখন কঠিন এক সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখা এখন সবচেয়ে জরুরি। মনোনয়নবঞ্চিত, নির্যাতিত অনেকেই ভবিষ্যতে সর্বোচ্চ এই কমিটির সদস্য হয়ে সান্ত্বনা খুঁজতে চান। তাই নির্বাচনের আগে এরকম মনোনয়ন দলের স্বার্থের অনুকূলে হবে না বলেই মনে করছেন বিএনপি মহাসচিব।

বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র বলছে, তারেক জিয়া মনে করছেন বিএনপিতে জিয়া পরিবার কর্তৃত্বশূন্য হয়ে পড়ছে। ১৯৯১ সালের পর এবারই প্রথম বিএনপি নির্বাচন করছে জিয়া পরিবার ছাড়া। বিএনপির একজন নেতা বলছিলেন, ‘জিয়া, বেগম জিয়া এবং তারেকের একটি অদ্ভুত মিল আছে। মিলটা হলো এরা কেউই কাউকে বিশ্বাস করতে পারে না। ঐ নেতার মতে, তারেক মনে করছে নির্বাচনের পর যদি বিএনপি মহাসচিব ‘বেইমানি’ করেন তখন কি হবে? বিএনপিতে এখন মির্জা ফখরুলের নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

বিশেষ করে, মনোনয়ন এবং দুই জোটকে তিনি যেভাবে সামলেছেন তাতে কর্মীরাও মুগ্ধ। বিএনপিতে এরকম আলোচনা হচ্ছে, ‘তারেক ছাড়াই ভালো চলছে বিএনপি।’ বিএনপিতে তারেক ক্রমেই বোঝা হয়ে পড়ছেন। তারেক ঘনিষ্ঠরা মনে করছেন, নির্বাচনের পর ড. কামাল, ফখরুল এবং আন্তর্জাতিক মহল মিলে জিয়া পরিবারকেই মাইনাস করতে পারে। এরকম ঘটনা ঘটলে তখন তারেক জিয়ার কিছুই করার থাকবে না। এ নিয়ে তারেক তাঁর ঘনিষ্ঠ, কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন। বিএনপির বেশ ক’জন নেতা বলেছেন, আমাদের অতীত অভিজ্ঞতা ভালো না। বিএনপির যে মহাসচিবরাই ক্ষমতা পেয়েছেন তারাই ক্ষমতা কুক্ষিগত করেছেন, জিয়া পরিবারের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। এখন তাই তারেক জিয়া মির্জা ফখরুলকেও বিশ্বাস করতে পারছেন না। এখন স্থায়ী কমিটির তিন সদস্য গ্রহণে ফখরুলের অস্বীকৃতি তারেকের অবিশ্বাস আরও বাড়িয়ে দিল।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ