ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

সেনা মোতায়েনের অপেক্ষায় বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ শনিবার, ০৭:০০ পিএম
সেনা মোতায়েনের অপেক্ষায় বিএনপি

বিএনপি এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এখনও নির্বাচনী প্রচারণায় নামেনি। কোথাও কোথাও কিছু কিছু প্রচারণা চোখে পড়লেও অধিকাংশ নির্বাচনী এলাকায় বিএনপির প্রার্থীরা হাত পা গুটিয়ে বসে আছে। এর কারণ কী জানতে চাওয়া হলে, বিএনপির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘মামলা, হামলায় কর্মীরা এলাকা ছাড়া। যারাও বা এলাকায় আছে তারাও মাঠে নামতে পারছে না আওয়ামী লীগের বাধায়।’ শুধু নজরুল ইসলাম খান নয়, অধিকাংশ বিএনপি নেতাই একই রকম মন্তব্য করেন।

কিন্তু বিএনপির বিভিন্ন নেতার সঙ্গে ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় বোঝা যায়, প্রচারণা নিয়ে তাদের অন্য কৌশল রয়েছে। বিএনপির একাধিক নেতা বলেছেন, ‘সেনাবাহিনী নামতে দিন, তারপর প্রচারাভিযান দেখবেন।’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, ‘২৪ ডিসেম্বর থেকে সেনাবাহিনী স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নামবে। সেনাবাহিনী মাঠে নামলে দুষ্টরা পালাবে। নির্বাচনী প্রচারণায় তখন বাধা প্রদানের ঘটনা কমবে।’

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের সঙ্গে একমত পোষণ করেন জেএসডির নেতা আ.স.ম. আবদুর রব। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সেনাবাহিনী জনগণের বিশ্বাস এবং আস্থার প্রতীক। দেখা গেছে যখনই তাদের যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সে দায়িত্ব সেনাবাহিনী নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছে। বিগত সব নির্বাচনে সেনাবাহিনী মানুষের ভোট প্রদানের সাহস হিসেবে কাজ করেছে।’

বিএনপির নেতারা মনে করছেন, সেনাবাহিনী মাঠে নামলে নির্বাচনে কতগুলো গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা পাবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিভিন্ন নেতাদের সঙ্গে কথা বলে তারা যে সুবিধাগুলোর কথা বলেছেন, সেগুলো মোটা দাগে এরকম-

১. সেনাবাহিনী স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে নামলে নির্বাচনে প্রচারণায় বাধা দিতে আওয়ামী লীগের কর্মী ভয় পাবে। কারণ, সেনাবাহিনীর সামনে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতে যে কেউ ভয় পায়।

২. সেনাবাহিনীর উপস্থিতি মাঠে আইন প্রয়োগকারী বাহিনীও কিছুটা নিরপেক্ষ আচরণ করবে। অন্তত সেনাবাহিনীকে দেখানোর জন্য হলেও।

৩. সেনা উপস্থিতি নির্বাচনে জড়িত কর্মকর্তাদের মধ্যে সাহস সঞ্চার হবে। তারা নিরপেক্ষভাবে কাজ করতে উৎসাহী হবে। বিএনপি নেতারা মনে করছেন, এটা তাদের পক্ষে যাবে।

৪. সেনা উপস্থিতিতে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে সাহস সঞ্চার হবে। তাদের মধ্যে এরকম বিশ্বাস তৈরি হবে যে তারা নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে যেতে পারবে।

৫. সেনাবাহিনীর উপস্থিতি চিহ্নিত সন্ত্রাসী, দুর্বৃত্তদের ঘরে ঢুকিয়ে দেবে। এতে বিএনপি তার কাঙ্ক্ষিত লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড পাবে বলে মনে করছে।

বিএনপির নেতা নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘আমরা নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের কথা বার বার বলেছি। কারণ সেনাবাহিনী হলো রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বের প্রতীক। নিরপেক্ষতার প্রতীক। তাই আমরা মনে করি, সেনাবাহিনী নির্বাচনের মাঠে মোতায়েন করা হলে আমাদের যে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি তার আংশিক পূরণ হবে।’

অবশ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন,‘আওয়ামী লীগ চায় অবাধ-সুষ্ঠু নির্বাচন। প্রধানমন্ত্রী সবসময়ই সুষ্ঠু নির্বাচন করার জন্য যা যা করা দরকার করেছেন। নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্তকে আমরা তাই সবসময়ই স্বাগত জানিয়েছি।’

বাংলা ইনসাইডার/এমআর