ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

প্রধানমন্ত্রীর জন্য মন খারাপ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৮:০০ পিএম
প্রধানমন্ত্রীর জন্য মন খারাপ

প্রধানমন্ত্রীর জন্য মন খারাপ আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের। এবার নির্বাচনী প্রচারে প্রধানমন্ত্রীর সফর খুবই সীমিত করা হয়েছে। গুলশান, কামরাঙ্গী চর, সিলেট এবং রংপুরে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনী সফর করবেন। এছাড়াও সুধা সদনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি বেশকিছু নির্বাচনী এলাকায় যুক্ত হবেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ১৯৮৬ সাল থেকে তাঁর দলের নির্বাচনী প্রচারণায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ১৯৮৮ এবং ১৯৯৬’র ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশ নেয়নি। বিগত ৭টি নির্বাচনে শেখ হাসিনা যে পরিমাণ নির্বাচনী প্রচারণা করেছেন, এবার তিনি তার ধারে কাছেও নেই। দেখা গেছে ১৯৮৬’র নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সভাপতি ২২১টি আসনে নিজে প্রচারণা করেছিলেন। ১৯৯১’র নির্বাচনে শেখ হাসিনা ২২৫ টি আসনে প্রচারণা করেছিলেন।৯৬ এর নির্বাচনী প্রচারণায় শেখ হাসিনা ২৮১ আসনে প্রচারাভিযান করেছিলেন। ২০০৮ এর নির্বাচনেও শেখ হাসিনা ২৬২ টি আসন স্পর্শ করেছিলেন। সে তুলনায় এবার তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় নেই বললেই চলে। এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যে তথ্য পাওয়া গেছে তাতে দেখা গেছে, ২১ ডিসেম্বর ঢাকার গুলশানে, ২৪ ডিসেম্বর কামরাঙ্গীরচরে, ২২ ডিসেম্বর সিলেটে, ২৩ ডিসেম্বর রংপুরে  নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেবেন। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ১০ টি জেলায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হবেন। ১৮ ডিসেম্বর  ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি নড়াইল-১ আসন এবং কিশোরগঞ্জ-১ আসনে কথা বলবেন। নড়াইল-১ আসনটিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা নির্বাচন করছেন। আর কিশোরগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থী অসুস্থ হয়ে ব্যংককে চিকিৎসারত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের প্রার্থী। ঐ দিন আওয়ামী লীগ সভাপতি বান্দরবনে ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখবেন। পরদিন ১৯ ডিসেম্বর তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুটি, কক্সবাজারের ১ টি, পিরোজপুরের ১ টি, চট্টগ্রাম -৯ আসনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রাখবেন। ২০ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী গাইবান্ধা- ৫, জয়পুরহাট ২, রাজশাহী ১ এ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভাষণ দিবেন। দেখা যাচ্ছে, খুলনা , বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, নীলফামারী, বরিশালসহ দুইশোরও অধিক নির্বাচনী আসনে প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ উপস্থিতি থাকবেনা। আওয়ামী লীগের যেসব প্রার্থীরা নির্বাচনে কঠিন প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হবে, তারা মুখিয়ে ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি অন্তত একবার আসবেন অথবা ভিডিও কনফারেন্সে হলেও কথা বলবেন। ঠাকুরগাঁও এ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সঙ্গে কঠিন লড়াইয়ে নেমেছেন রমেশ চন্দ্র সেন। ২০০৮ সালে এক শেখ হাসিনার জনসভাই ঠাকুরগাঁও এ নৌকার পক্ষে জোয়ার এনেছিল। পাবনা-১ আসনেও ঐক্যফ্রন্টের হেভিওয়েট প্রার্থীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু। অধ্যাপক আবু সাইয়ীদ সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা। এখানে টুকু চাইছিলেন যে নেত্রী অন্তত তাঁর এলাকায় একবার আসুক। বগুড়া এমনিতেই আওয়ামী লীগের জন্য নাজুক জেলা। ২০০৮ এর নির্বাচনে শেখ হাসিনা এখানে মরা গাঙে জোয়ার এনেছিলেন। কিন্তু এবার নেত্রীর অনুপস্থিতিতে প্রার্থীরা দিশেহারা।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, নিরাপত্তাজনিত কারণেই শেখ হাসিনার এবার নির্বাচনী সফর কাটছাট করা হয়েছে। অবশ্য আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেছেন, গত একবছর ধরেই আওয়ামী লীগ সভাপতি নির্বাচনী প্রচারণা করছেন।

বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ