ঢাকা, রোববার, ১৩ জুন ২০২১, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদীরা বিএনপির পক্ষে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৮:০০ পিএম
ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদীরা বিএনপির পক্ষে

বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে বিজয়ী করতে কাজ করছে একাধিক ভারতীয় নিষিদ্ধ ঘোষিত সন্ত্রাসী সংগঠন। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর ১ ডিসেম্বরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ভারতের অন্তত ৫টি বিচ্ছিন্নতাবাদী সংঠন আগামী ৩০ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশের নির্বাচনে বিএনপিকে সমর্থন করছে। বিএনপির জন্য এরা অর্থ সহায়তা, অস্ত্র সরবরাহ সহ নানারকম তৎপরতায় জড়িত। ‘র’ বলেছে, ‘এই সংগঠনগুলো মনে করছে বিএনপি জয়ী হলে তাদের সুবিধা হবে।’

ভারতে নিষিদ্ধ সন্ত্রাসী ও বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন দল ত্রিপুরা টাইগার ফোর্স, বাংলাদেশের নির্বাচনে বিএনপিকে জয়ী করতে সর্বাত্মক চেষ্টার আহ্বান জানিয়েছে। ১৯৯০ সালের ১১ জুলাই এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা হয়। সংগঠনের নেতা রনজিত দেব বর্মন সংগঠনের কর্মীদের কাছে পাঠানো বিবৃতিতে বলেছেন, ‘এটিটিএফ’ এর লক্ষ্য অর্জনের জন্য বাংলাদেশের নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যা চাই তা অর্জনের জন্য বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয় দরকার।’ এটিটিএফ (অল ত্রিপুরা টাইগার ফোর্স) ত্রিপুরা থেকে ১৯৫৬ সালের পর আসা সব বাঙালিকে বহিস্কার করতে চায়।

মাওবাদী বিচ্ছিন্নতাবাদী এবং সন্ত্রাসী সংগঠন অখিল ভারত নেপাল একতা সমাজও বাংলাদেশের নির্বাচনে বিএনপির বিজয় চায়। সংগঠনের নেতা রাম প্রসাদ শর্মা এক বিবৃতিতে বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার আরেকবার ক্ষমতায় এলে তাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হবে। ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এই সংগঠনটিকে ৩০ মার্চ ২০১৫ সালে ভারত সরকার নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। ২০০১ সালে বিএনপি জামাত জোট ক্ষমতায় এলে অখিল ভারত নেপাল একতা সমাজের ৪টি কেন্দ্র বাংলাদেশ থেকে পরিচালিত হতো। ২০০৯ সালে অর্থমন্ত্রীর নির্দেশে এইসব কেন্দ্র উচ্ছেদ করা হয়।

ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট বরল্যান্ডের মহাসচিব সাওরা ইগাওরাও বাংলাদেশের নির্বাচনে বিএনপিকে সমর্থনের ঘোষণা দিয়েছে। এই সংগঠনের কার্যক্রম বর্তমানে মিয়ানমার থেকে পরিচালিত হয়। এক সময় (বিএনপি-জামাত ঐক্যজোট সরকারের আমলে) পার্বত্য চট্টগ্রামে এদের একাধিক ঘাঁটি ছিল। আওয়ামী লীগ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করে, এসব ক্যাম্প উচ্ছেদ করে।

‘র’ এর প্রতিবেদনে আরো যে সব বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন বিএনপিকে সমর্থন জানিয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে, সেগুলো হলো; গারো ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি, ইন্ডিয়ান মুজাহিদীন এবং আল-কায়েদা ইন্ডিয়ান।

২০০৯ এর আগে বাংলাদেশে ভারতের বিভিন্ন বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের কমবেশী দেড় হাজার ঘাঁটি ছিলো বলে ভারতীয় প্রতিরক্ষা দপ্তরের প্রতিবেদনে জানা যায়। বর্তমানে বাংলাদেশে কোনো বিচ্ছিন্নতাবাদীর ঘাঁটি নেই। এ কারণেই ভারতের প্রায় সব বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আওয়ামী লীগের বিপক্ষে।

বাংলা ইনসাইডার/এমআর