ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ১০ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

রাজশাহী ও নাটোরের ১০ আসন: নৌকা ৪, ধানের শীষ ৬

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার, ০৮:০০ এএম
রাজশাহী ও নাটোরের ১০ আসন: নৌকা ৪, ধানের শীষ ৬

দেশের উত্তরের দুই জেলা রাজশাহী ও নাটোরে নির্বাচনী আসন রয়েছে ১০টি। রাজশাহী জেলার হালনাগাদ ভোটার সংখ্যা ১৯ লাখ ৪২ হাজার ৩৫০। এদের মধ্যে নারী ৯ লাখ ৭৪ হাজার ৭৫৭ এবং পুরুষ ৯ লাখ ৬৭ হাজার ৫৯৩। অন্যদিকে নাটোরে মোট ভোটার ১৩ লাখ ৩ হাজার ৭৩১। এর মধ্যে নারী ভোটার ৬ লাখ ৫৩ হাজার ৩৪৩। আর পুরুষ ভোটার ৬ লাখ ৫০ হাজার ৩৮৮। এই আসনগুলোর রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহ এবং অতীত নির্বাচনের ফলাফলসহ বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত পর্যালোচনা করে বাংলা ইনসাইডার প্রেডিক্ট করছে, এখানে নৌকা ৪টি এবং ধানের শীষ ৬টি আসন পাবে।

রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী ও তানোর উপজেলা)

রাজশাহী-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ওমর ফারুক চৌধুরী। তাঁর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আমিনুল হক। এই এলাকায় আওয়ামী লীগের মধ্যে অন্তঃকলহ প্রকট। ‘সেভেন স্টার’ নামে পরিচিত গোদাগাড়ী ও তানোরের ৭ আওয়ামী লীগ নেতা মনোনয়ন যুদ্ধে নেমেছিলেন। তারা একযোগে ফারুক চৌধুরীর বিরোধিতাও করেছিলেন। এখন প্রকাশ্যে তারা ফারুকের প্রচারণায় অংশ নিলেও গোপনে তাঁর বিরোধিতা করছেন বলে জানা যায়। অন্যদিকে আমিনুল হক এই এলাকার প্রভাবশালী নেতা। ১৯৯১ থেকে ২০০১ পর্যন্ত টানা তিন মেয়াদে তিনি এখানকার সাংসদ নির্বাচিত হন। গোদাগাড়ী ও তানোর উপজেলায় তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয়। একারণে এই আসনে ধানের শীষ জিতবে বলে প্রেডিক্ট করছি আমরা।

রাজশাহী-২ (রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এলাকা)

এই আসনে বিএনপির মিজানুর রহমান মিনুর বিরুদ্ধে লড়ছেন ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হাসান বাদশা। ফজলে হাসান বাদশা এই আসনের বর্তমান সাংসদ। ২০০৮ এর নির্বাচনেও তিনি এখান থেকে জয় পেয়েছিলেন। তবে এবার এই আসনে ধানের শীষ জয় পাবে বলে মনে করছে বাংলা ইনসাইডার। কারণ মিনু এই এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয়। ২০০১ সালে তিনি এই আসনের সাংসদ নির্বাচিত হন। ওয়ান ইলেভেনের মাধ্যমে রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের পর তাকে কারাগারেও যেতে হয়েছে। বিগত ১০ বছরে তিনি নানাভাবে হয়রানির শিকার হয়েছেন। এটা তাঁর প্রতি মানুষের সহানুভূতি এবং সমর্থন আরও বাড়িয়েছে। 

রাজশাহী-৩ (পবা ও মোহনপুর উপজেলা)

এখানে আওয়ামী লীগের আয়েন উদ্দিনের মুখোমুখি হয়েছেন বিএনপির শফিকুল হক মিলন। এই এলাকায় বিএনপির সমর্থন বেশি। তাছাড়া এখানে বিএনপির নেতা কর্মীদের নানাভাবে নির্যাতন নিপীড়নের অভিযোগ শোনা যাচ্ছে। এটা ধানের শীষের পক্ষে ভোট টানতে সাহায্য করবে। অন্যদিকে আয়েন উদ্দিন এই আসনের বর্তমান সাংসদ। মাত্র এক মেয়াদ ক্ষমতায় থেকেই তিনি নানা বিতর্কে জড়িয়েছেন। এসব কারণে আমরা মনে করছি এখানে ধানের শীষ জয় পাবে।

রাজশাহী-৪ (বাঘমারা উপজেলা)

এই আসনের মূল দুই প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের এনামুল হক এবং বিএনপির আবু হেনা। সাবেক সচিব আবু হেনা ১৯৯৬ ও ২০০১ পরপর দুই মেয়াদে এই আসনের সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন। অন্যদিকে এনামুল হকও গত দুই মেয়াদ ধরে এই আসনের সাংসদ। এই আসনে আওয়ামী লীগ বিএনপি দুই দলেই বিভক্তি রয়েছে বলে জানা যায়। তবে নির্বাচনকে সামনে জয়ের জন্য বিএনপি অনেকটাই একতাবদ্ধ। তবে আওয়ামী লীগ প্রকাশ্যে বিবাদ মিটিয়ে ফেলার কথা বললেও গোপনে নেতারা একে অপরের বিরোধিতা করছেন বলে শোনা যাচ্ছে। এসব কারণে এখানে ধানের শীষ জয় পাবে বলে প্রেডিক্ট করছি আমরা।

রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া ও দুর্গাপুর উপজেলা)

এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনসুর রহমান। অন্যদিকে ধানের শীষ নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নাদিম মোস্তফা। মনসুর রহমান একেবারেই নতুন প্রার্থী। অন্যদিকে নাদিম মোস্তফা ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে পরপর দুই মেয়াদে এলাকার সাংসদ নির্বাচিত হন। এই এলাকায় তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয়। বিএনপিও এখানে শক্তিশালী। একারণে ধানের শীষ এই আসনে জিতবে বলে মনে করছি আমরা।

রাজশাহী-৬ (চারঘাট ও বাঘা উপজেলা)

এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তিনি এই আসনের গত দুই মেয়াদের সাংসদ। তরুণ এই নেতা নিজ এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং প্রভাবশালী। এই আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন আবু সাইদ চাঁদ। তবে উচ্চ আদালতের আদেশে তাঁর প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে। এখানে জাতীয় পার্টির লাঙল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন ইকবাল হোসেন। জনসমর্থন কিংবা শক্তি সামর্থে তিনি শাহরিয়ার আলমের তুলনায় একেবারেই দুর্বল। এ কারণে এই আসনে নৌকার জয় নিশ্চিত বলেই মনে করছি আমরা।

নাটোর-১ (লালপুর ও বাগাতিপাড়া উপজেলা)

নাটোর-১ আসনে নৌকার শহীদুল ইসলামের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মনজুরুল ইসলাম। এই দুজনই নতুন প্রার্থী। তবে প্রচার- প্রচারণা কিংবা সাংগঠনিক শক্তির দিক থেকে এখানে আওয়ামী লীগ এগিয়ে আছে। এ কারণে বাংলা ইনসাইডারের প্রেডিকশন হলো, এই আসনে নৌকা জয় পাবে।

নাটোর-২ (সদর ও নলডাঙ্গা উপজেলা)

এখানে আওয়ামী লীগের শফিকুল ইসলামের প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির সাবিনা ইয়াসমিন। সাবিনা ইয়াসমিন বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর স্ত্রী। দুলু সাজাপ্রাপ্ত আসামী হওয়ায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না। তবে এলাকায় তাঁর প্রভাব রয়েছে। স্বামীর বদলে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় সাবিনা এলাকাবাসীর সহানুভূতি পাচ্ছেন। এটা নিশ্চিতভাবেই তাঁর ভোট বাড়াবে। অন্যদিকে শফিকুল ইসলাম এখানে কিছুটা দুর্বল। এসব কারণে এখানে ধানের শীষের জয় দেখছি আমরা।

নাটোর-৩ (সিংড়া উপজেলা)

এই আসনে আওয়ামী লীগের জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিএনপির দাউদার মাহমুদ। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ এই আসনের বর্তমান সাংসদ। ২০০৮ সালেও তিনি এখান থেকে জয় পেয়েছিলেন। তরুণ এই নেতা এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয়। গত ১০ বছরে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন তিনি। এতে তাঁর জনসমর্থন আরও বেড়েছে। বিপরীতে দাউদার মাহমুদ এবারই প্রথম জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। জনসমর্থন এবং প্রচার প্রচারণাতেও তিনি অনেকটাই পিছিয়ে। এ কারণে এই আসনে নৌকার জয় দেখছি আমরা।

নাটোর-৪ (গুরুদাসপুর ও বড়াইগ্রাম উপজেলা)

নাটোর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের আবদুল কুদ্দুসের প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আবদুল আজিজ। আবদুল কুদ্দুস প্রবীণ নেতা। এলাকায় তিনি অত্যন্ত প্রভাবশালী। এর আগে পাঁচটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে চারটিতেই জয় পেয়েছেন তিনি। অন্যদিকে ধানের শীষের আবদুল আজিজ একেবারেই নতুন প্রার্থী। আবদুল কুদ্দুসকে হারিয়ে দেওয়ার মতো যথেষ্ঠ শক্তিশালী অবস্থানে নেই তিনি। এ কারণে এখানে নৌকা জিতবে বলে প্রেডিক্ট করছে বাংলা ইনসাইডার।

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি/এমআর