ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহের ৬ আসন: নৌকা ০, ধানের শীষ ৬

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৯:০৫ এএম
চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহের ৬ আসন: নৌকা ০, ধানের শীষ ৬

খুলনা বিভাগের দুই জেলা চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহ। এই দুই জেলায় নির্বাচনী আসন মোট ৬টি। চুয়াডাঙ্গা জেলায় মোট ভোটার ৮ লাখ ৫২ হাজার ৭৫৭। এর মধ্যে নারী ভোটার ৪ লাখ ২৭ হাজার ১৫০ এবং পুরুষ ভোটার ৪ লাখ ২৫ হাজার ৬০৭। অন্যদিকে ঝিনাইদহ জেলায় ভোটার সংখ্যা ১৩ লাখ ৪২ হাজার ২৭৮। এর মধ্যে নারী ভোটার ৬ লাখ ৭৯ হাজার ৬৭৩ এবং পুরুষ ভোটার ৬ লাখ ৭২ হাজার ৬০৫। বাংলা ইনসাইডার প্রেডিক্ট করছে এখানে ধানের শীষ ৬টি আসনে জিতবে। অন্যদিকে নৌকা এখানে জয়হীন থাকবে বলেই মনে করছি আমরা।

চুয়াডাঙ্গা-১ (আলমডাঙ্গা এবং চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার অংশবিশেষ)

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে মূল দুই প্রার্থী আওয়ামী লীগের সোলায়মান হক জোয়ার্দার সেলুন এবং বিএনপির শরীফুজ্জামান। এই আসনে বিএনপির প্রভাব তুলনামূলকভাবে বেশি। অন্যদিকে সোলায়মান হক গত দুই মেয়াদে এই এলাকার সাংসদের দায়িত্বে থাকলেও এলাকায় তিনি নিজের পক্ষে সমর্থন বাড়াতে পারেননি। এ কারণে এখানে ধানের শীষ জয়ী হবে বলে প্রেডিক্ট করছি আমরা।

চুয়াডাঙ্গা-২ (দামুড়হুদা, জীবননগর এবং চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার অংশবিশেষ)

এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আলী আজগর। অন্যদিকে ধানের শীষ প্রতীকে লড়ছেন মাহমুদ হাসান খান। এই আসনেও বিএনপির জনসমর্থন বেশি। এ কারণে এখানে ধানের শীষের জয় হবে বলে প্রেডিক্ট করছি আমরা।

ঝিনাইদহ-১ (শৈলকুপা উপজেলা)

ঝিনাইদহ জেলায় ত্রিমুখী লড়াই হবে। এই আসনে আওয়ামী লীগের সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আব্দুল হাই, বিএনপির কেন্দ্রীয় মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান আসাদ ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এম রায়হান উদ্দিন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। তবে এখানে ধানের শীষের জয় হবে বলে মনে করছি আমরা। কারণ এই এলাকায় ঐতিহাসিকভাবেই বিএনপি এগিয়ে।

ঝিনাইদহ-২ (হরিণাকুন্ডু এবং ঝিনাইদহ সদর উপজেলার অংশবিশেষ)

ঝিনাইদহ-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তাহজীব আলম। আর ধানের শীষের হয়ে লড়ছেন আবদুল মজিদ। তাহজীব আলম ২০১৪ সালের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয় পেয়েছিলেন। তবে গত পাঁচ বছরে তিনি নিজের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি করতে পারেননি। অন্যদিকে এখানে বিএনপি সবসময়ই শক্তিশালী। একারণে এই আসনে ধানের শীষ জয় পাবে বলে মনে করছি আমরা। 

ঝিনাইদহ-৩(কোটচাঁদপুর ও মহেশপুর উপজেলা)

এখানে আওয়ামী লীগের শফিকুল আজম খানের বিরুদ্ধে লড়ছেন জামায়াতের মতিয়ার রহমান। এই আসনে ২০০৮ সালের আগে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী কখনোই জয় পাননি। শফিকুল আজম খান ২০০৮ সালে এখান থেকে জয় পান। এরপর ২০১৪ তে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের অধ্যক্ষ নবী নেওয়াজ। তবে এলাকায় আওয়ামী লীগের প্রভাব কম। এটি বিএনপি-জামায়াতের ঘাঁটি হওয়ায় এখান থেকে ধানের শীষই জয় পাবে বলে মনে করছি আমরা।

ঝিনাইদহ-৪ (কালিগঞ্জ এবং ঝিনাইদহ সদর উপজেলা অংশবিশেষ)

ঝিনাইদহ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের আওয়ামী লীগের আনোয়ারুল আজিমের প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির সাইফুল ইসলাম। আমাদের প্রেডিকশন হলো এই আসনেও ধানের শীষ জিতবে। কারণ গত ১০ বছর এই আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে থাকলেও এটি মূলত বিএনপির ঘাঁটি। গত পাঁচ বছর আনোয়ারুল আজিম ক্ষমতায় থেকেও এলাকায় নিজের জনপ্রিয়তা বাড়াতে তেমন কোনো কাজ করেননি। এ কারণে এই আসনে ধানের শীষ জিতবে বলে প্রেডিক্ট করছি আমরা।

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি/এমআর