ঢাকা, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

দুবাই থেকে তারেকের ‘লাস্ট ব্যাটেল’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ০৬:০০ পিএম
দুবাই থেকে তারেকের ‘লাস্ট ব্যাটেল’

নির্বাচন বানচালের শেষ ষড়যন্ত্র হচ্ছে দুবাইয়ে। লন্ডন থেকে তারেকের প্রতিনিধি, পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের প্রতিনিধি এবং বিএনপির দুজন নেতা এখন দুবাইয়ে অবস্থান করছেন। লন্ডনে তারেক জিয়া এবং যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরা নির্বাচন বানচালের যে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করেছে, তা দুবাই থেকে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা হবে বলে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টে নিশ্চিত করা হয়েছে।

লন্ডনে বসে তারেক জিয়া যেসব নির্দেশ পাঠাচ্ছে তা অধিকাংশই ফাঁস হয়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জানা যায়, ৩০ ডিসেম্বরের নীল নকশা বাস্তবায়নের হেড কোয়ার্টার দুবাইতে নেওয়া হয়েছে। একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, নির্বাচন বানচালের মূল ষড়যন্ত্র থেকে বিএনপি-জামাত-ফ্রন্ট এখনো সরে আসেনি। তবে নির্বাচন নস্যাৎ করার তাদের পরিকল্পনায় পরিবর্তন এসেছে। সেনাবাহিনী মোতায়েন করার ফলে, এখন একযোগে সহিংস আন্দোলন বা ভোটকেন্দ্র দখল করা সম্ভব নয় বলে তারেক জিয়া তার পরিকল্পনা পরিবর্তন করেছে বলে একাধিক সংস্থা জানিয়েছে।

অপারেশন দুবাইতে তাই প্রার্থী ধরে ধরে হত্যা, কয়েকটি নির্বাচন ভোটকেন্দ্রে আক্রমণ, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা এবং ব্যক্তির উপর আক্রমণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, আগামী ২৭ ডিসেম্বর থেকে ভোটের দিন পর্যন্ত এরকম একাধিক ঘটনা ঘটানোর পরিকল্পনা রয়েছে। দুবাইয়ে বেশ কিছু জঙ্গি সংগঠন সক্রিয়। দুবাই থেকেই এরা বিভিন্ন দেশে নাশকতা এবং জঙ্গি তৎপরতার জন্য অর্থ যোগায়। দুবাইয়ে এসব ব্যাপারে গোয়েন্দা নজরদারিও কম। তাছাড়া সহজেই পাকিস্তান থেকে দুবাই আসা যায়। নির্বাচন বানচালের জন্য ষড়যন্ত্রের হেডকোয়ার্টার হিসেবে দুবাইকেই বেছে নেওয়া হয়েছে।

তারেক জিয়া যে মাস্টার প্লান করেছে, তা বাস্তবায়নের জন্যে পেশাদার লোকজনের প্রয়োজন। যেমন ২১ আগস্টের ঘটনা। ঐ ঘটনার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে তারেক আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থার এবং পেশাদার সন্ত্রাসীদের সাহায্য নিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন হলে বিএনপি বা ঐক্যফ্রন্টের জয়ের কোন সম্ভাবনা নেই। এটা নিশ্চিত হবার পরেই দুবাইতে তারেক জিয়া দুবাইতে দুজন প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন। পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এখন তার আন্তর্জাতিক অপারেশন গুলো দুবাই থেকে পরিচালিত করে। আইএসআই এর শীর্ষ দুই কর্মকর্তাও দুবাইয়ে অবস্থান করছেন। এদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ঢাকা থেকে যাওয়া বিএনপির দুই নেতা।

জানা গেছে, তারেক জিয়া মনে করছে শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হয়ে গেলে বিএনপির সামনে কোন পথ খোলা থাকবে না। আর সেনাবাহিনী মোতায়েনের ফলে এখন ভোট বর্জন করে আন্দোলনের সম্ভাবনাও নষ্ট হয়ে গেছে। এখন তারেকের পরিকল্পনা একটাই ২১ আগস্টের মতো এক বা একাধিক ঘটনা ঘটিয়ে নির্বাচন নস্যাৎ না করা। তারেক জিয়া পরিকল্পিত এই অপারেশনের নাম দিয়েছে ‘দ্য লাস্ট ব্যাটেল’।

বাংলা ইনসাইডার/এমআর