ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

অস্তিত্বের সংকটে বিএনপি: কি করবে?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার, ১১:৫৫ পিএম
অস্তিত্বের সংকটে বিএনপি: কি করবে?

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির বিপর্যয় ঘটেছে। এই নির্বাচনে যে বিএনপি বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জয়ের কোন সম্ভাবনা নেই, তা আগেই অনুমান করা গিয়েছিল। কিন্তু নির্বাচনে বিএনপি যে এতো খারাপ করবে তা সম্ভবত আওয়ামী লীগও অনুমান করতে পারেনি। যেমনটি আশঙ্কা করা হয়েছিল যে, শেষ পর্যন্ত হয়তো বিএনপি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবে, তেমনটি ঘটেনি। বিচ্ছিন্ন ভাবে বিএনপির অনেক প্রার্থী ভোট বর্জন করলেও দলীয় ভাবে শেষ পর্যন্ত বিএনপি ভোটের লড়াইয়ে থেকেছে।  যেমনটি অন্য সব নির্বাচনে ঘটে, হারার পর পরাজিত দল কারচুপির নানা অভিযোগ করে, বিএনপি এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টও তেমনটা বলেছে। কিন্তু বিএনপি যেমন ভোট বিল্পব ঘটাতে পারেনি তেমনি তাদের ভাষায় নির্বাচনে কারচুপির বিরুদ্ধেও বড় আন্দোলন গড়ে তুলতে পারবে বলেও মনে করার কোন কারণ নাই। তারপরও সাধারণ মানুষ জানতে এবং বুঝতে চায় বিএনপি এখন কি করবে। বিএনপির সামনে যে পথগুলো খোলা আছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সেগুলো হলো:

১. আপত্তি স্বত্ত্বেও বিএনপি নির্বাচনের ফলাফল মেনে নেবে। সংসদে বসবে। বিরোদী দল হিসেবে সরকারের কঠোর সমালোচনা করে সংসদকে কার্যকর এবং প্রাণবন্ত করবে। আগামী ৫ বছরের বিএনপি নিজেদেরকে পুনঃগঠন করবে। সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধি করে বিএনপি আগামী নির্বাচনের জন্য দলকে প্রস্তুত করবে।

২. বিএনপি এই নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখান করবে। সংসদে যোদ দিবে না, শপথও নেবে না। আবার দীর্ঘ মেয়াদী আন্দোলনের জন্য দল গুছাবে। এর মধ্যে যারা নির্বাচনে নেবার ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছিল তাদের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবে। বিএনপিতে দেখা দেবে গৃহবিবাদ এবং শেষ পর্যন্ত বিএনপি হয়ত ভাঙ্গনের পথেই যাবে।

৩. নির্বাচনকে প্রত্যাখান করা স্বত্ত্বেও বিএনপি সংসদের যাবে। সংসদে গিয়ে তাদের ভাষায় ভোট কারচুপির প্রতিবাদ করবে। সংসদের ভিতরে এবং বাইরে আন্দোলন গড়ে তুলবে।

৪. বিএনপি পুরো নির্বাচনকালীন সময়ের পরিস্থিতি মূল্যায়ন করবে। ব্যর্থতার কারণ অনুসন্ধান করবে। দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভা ডেকে তাদের করণীয় ঠিক করবে।

তবে, বিএনপি যেটাই করুক না কেন, এই নির্বাচন বিএনপিকে অস্তিত্বের সংকটে ফেলেছে। এই সংকট কাটিয়ে বিএনপি কি ঘুরে দাঁড়াতে পারবে নাকি ইতিহাসের অতলে বিলীন হয়ে যাবে তা সময়ই বলে দেবে।

বাংলা ইনসাইডার/এমএস/বিকে