ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্রধানমন্ত্রীর মনের ভাষা বুঝতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০১৯ রবিবার, ০৬:০০ পিএম
প্রধানমন্ত্রীর মনের ভাষা বুঝতে হবে

গতকাল শনিবার সংলাপের আহ্বান করে ঐক্যফ্রন্ট। কিন্তু তাদের সেই আহ্বানকে হাস্যরসে পরিণত করেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-নেতারা। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন যে, এখন সংলাপের দাবি হাস্যকর। সারাবিশ্ব যখন এই নির্বাচনকে গ্রহণ করেছে তখন এই সংলাপ অর্থহীন। একই দিনে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, যিনি আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদকও বটে, তিনিও এই সংলাপকে নিয়ে রসিকতা করেন এবং হাস্যরসে মাতেন। তিনি এটাকে অবাস্তব প্রস্তাব বলে নাকচ করে দেন।

কিন্তু ওইদিন রাতেই আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্যদের নিয়ে আয়োজিত বৈঠকে সংলাপের ব্যাপারে নিজের আগ্রহের কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা বলেন যে, নির্বাচনের আগে যে ৭৫টি দলের সঙ্গে তিনি সংলাপ করেছিলেন, সেই দলগুলোর সঙ্গে তিনি পুনরায় বসতে চান। তাদেরকে আপ্যায়ন করতে চান। নির্বাচনে যে বিজয় আওয়ামী লীগ পেয়েছে, এটা জনগণের বিজয় বলেই তিনি মনে করেন। প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের পর সম্পূর্ণ ইউটার্ন নেন দলের সাধারণ সম্পাদক। আজ রোববার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের যৌথসভায় সংলাপের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর এই আগ্রহের কথা ওবায়দুল কাদের ব্যক্ত করেন। যা ওবায়দুল কাদের আগের বক্তব্যের সম্পূর্ণ বিপরীত।

তাহলে ওবায়দুল কাদের আগের দিন কী বললেন? কিসের ভিত্তিতে তিনি বললেন সংলাপের দাবি হাস্যকর? প্রধানমন্ত্রী তার ব্যক্তিত্ব, রাজনৈতিক দূরদৃষ্টি, প্রজ্ঞায় অনেক আগেই অন্যান্য নেতাকে ছাড়িয়ে গেছেন। প্রধানমন্ত্রীর মনে ভাষাই যদি দলের সিনিয়র নেতারা বুঝতে না পারেন তাহলে এটা দলের জন্য ভালো সংকেত নয়। অনেক রাজনীতিক মহল বলছেন যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেকে এখন বিশ্বনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বিভিন্ন জরিপে দেখা যায়, দলের চেয়ে তাঁর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি। তাই প্রধানমন্ত্রীকে যখন কেউ কোনো বিষয়ে প্রস্তাব দেয়, তখন প্রধানমন্ত্রীর মতামত না নিয়ে আগ বাড়িয়ে মন্তব্য করা ঠিক না। চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রীর শপথ নিয়ে শেখ হাসিনা ‘রাষ্ট্রনায়ক’ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। যারা মন্ত্রী এবং নেতা, তাদের প্রধানমন্ত্রীর বিচক্ষণতা, তার দূরদর্শিতা, তার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা অনুধাবন করতে হবে। এটা না করে ইচ্ছেমতো নিজেদের বক্তব্য উপস্থাপন করলে দল যেমন বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে তার চেয়ে তারাও নিজেরাই আরও বেশি হাস্যকর বস্তুতে পরিণত হন। এর আগেও আওয়ামী লীগের অনেক মন্ত্রী এবং নেতার বিরুদ্ধে অতিকথনের অভিযোগ এসেছিল। তাই নেতারা যদি সব বিষয়ে বুঝেশুনে কথা বলেন তাহলে দলের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়। তারা নিজেরাও হালকা হন না। 

যখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয় এবং সংলাপের জন্য আহ্বান জানানো হয়েছিল, তখনও একই ধরনের পরিস্থিতি হয়েছিল। আগ বাড়িয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ কয়েকজন নেতা সংলাপের প্রস্তাবকে নাকচ করেছিলো। কিন্তু নাটকীয়ভাবে প্রধানমন্ত্রী সংলাপে রাজি হন এবং ৭৫টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তিনি সংলাপ করেন। কাজেই প্রধানমন্ত্রীকে কোন রাজনৈতিক দল কোন প্রস্তাব দেয়, কোন দাবি-দাওয়া উত্থাপন করে, তখন সেটা প্রধানমন্ত্রী কীভাবে গ্রহণ করছেন সেটা বোঝার ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর সহকর্মীদের থাকা উচিত। সেটা বুঝতে না পারলে চুপ থাকাটাই শ্রেয়। আশা করি আওয়ামী লীগের প্রজ্ঞাবান নেতারা তাদের নেতার চিন্তা চেতনার সঙ্গে মানিয়ে চলার সক্ষমতা অর্জন করবেন।

 

বাংলা ইনসাইডার/এমআর