ঢাকা, রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

জাপার রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হচ্ছেন রওশন এরশাদ !

বিশেষ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারি ২০১৯ বুধবার, ০১:০০ পিএম
জাপার রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হচ্ছেন রওশন এরশাদ !

 প্রত্যক্ষ রাজনীতি থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা এবং জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ এমপি। জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের একগুয়েমী সিদ্ধান্তের কারণেই এ কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন রওশন এরশাদ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রওশনপন্থী এক সংসদ সদস্য বলেন, এরশাদ উইল করে জিএম কাদেরকে পার্টির পরবর্তী চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা নিয়েই যত বিপত্তি। তাঁর মতে, এরশাদের জীবদ্দশায় বেগম রওশন এরশাদই পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান হিসেবে দ্বিতীয় ক্ষমতাপ্রাপ্ত নেতা। পার্টির প্রত্যক্ষ রাজনীতির নিয়ন্ত্রক বেগম রওশন এরশাদ থাকবেন এটাই গঠণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত। জাপার একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের চরম অবজ্ঞার কারণেই রাজনীতি থেকে নির্বাসনে যাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এরশাদ পত্নী বেগম রওশন এরশাদ। আর এসব বিষয়ে এরশাদও অনেকটা নিশ্চুপ ভূমিকা পালন করছেন। বিভিন্ন সূত্র দাবী করছে, এরশাদ আর কোনভাবেই চান না তাঁর স্ত্রী জাপার রাজনীতিতে ক্ষমতাবান হোক। তাদের মতে, দশম জাতীয় সংসদে এরশাদকে যেভাবে নাকানী-চুবানি দিয়ে বেগম রওশন এরশাদ বিরোধী দলীয় নেতা হয়েছিলেন সে স্মৃতি এরশাদ মন থেকে কিছুতেই ভূলতে পারছেন না। তাদের মতে, পার্টি চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ একটি মধুর প্রতিশোধ নিলেন রওশন এরশাদের উপর।

এদিকে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে অনেকটা পর্দার অন্তরালে চলে যান রওশন এরশাদ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এরশাদ নিজেকে বিরোধী দলীয় নেতা এবং সহোদর জিএম কাদেরকে উপনেতার ঘোষণা দেবার পর চরম বিক্ষুব্দ হন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। তবে বেশ কয়েকজন এমপি বেগম রওশন এরশাদকে রাজনীতিতে সক্রিয় করার জন্য জোরালো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। রওশনপন্থী নেতারা মনে করেন, তাদের দলের চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ যে কোন মুর্হুতে তার সিদ্ধান্ত বদলাতে পারেন। তাছাড়া এরশাদকে চাঁপে রাখার কৌশল হিসেবে বেগম রওশন এরশাদকে চাঙ্গা রাখারও ইচ্ছে কতিপয় সংসদ সদস্যর। বিভিন্ন সূত্র জানায়, বেগম রওশন এরশাদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করার আগ্রহ প্রকাশ করলেও সরকারের পক্ষ থেকে এখনো তাঁকে কোন গ্রীন সিগন্যাল দেয়া হয়নি। এদিকে, সংসদে এরশাদ এবং জিএম কাদেরকে বিরোধী দলীয় নেতা এবং উপনেতা হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছেন স্পীকার।

এদিকে, জাপা চেয়ারম্যান শারিরীক অসুস্থ্যতাজনিত কারণে বর্তমানে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। উন্নততর চিকিৎসার জন্য খুব সহসাই আবারো তিনি সিঙ্গাপুরে যাবেন।