ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

নির্বাচনে সরকারের অর্থ নিয়েছেন বিএনপির ৫ নেতা?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ রবিবার, ০৮:০০ পিএম
নির্বাচনে সরকারের অর্থ নিয়েছেন বিএনপির ৫ নেতা?

এলডিপির নেতা কর্নেল অলি আহমেদ অভিযোগ করেছেন যে,বিএনপির একাধিক নেতা সরকারী টাকায় নির্বাচন করেছেন। গতকাল এলডিপির এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ অভিযোগ তুলেছেন। তার এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিএনপির একাধিক নেতা কর্নেল অলি আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।  এ ব্যাপারে তার কাছে কোন তথ্য আছে কি না যেটা নিয়ে তারা দলের মধ্যে আলোচনা করতে পারেন তা জানতে চান। কর্নেল অলি আহমেদ তাদেরকে ৫ জন শীর্ষনেতার নাম বলেছেন। যারা নির্বাচনের বিভিন্ন সময়ে সরকারের কাছ থেকে নির্বাচন পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ নিয়েছেন। তাদের অর্থ নেয়ার ব্যাপারে তার কাছে প্রমাণ আছে বলেও দাবি করেছেন কর্নেল অলি।

এ ব্যাপারে কর্নেল অলি আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, বিএনপির নেতারা শুধুমাত্র অর্থই নেয়নি, তারা নির্বাচন করেছে আওয়ামী লীগকে জেতানোর জন্য এবং এটা সমঝোতার ভিত্তিতে। সে কারণে তারা নির্দলীয় নিরপেক্ষ নির্বাচন, খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ অন্যান্য বিষয়কে উপেক্ষা করেছে। কী ধরনের প্রমাণ আছে জানতে চাইলে কর্নেল অলি এ ব্যাপারে মুখ খোলেননি। তবে বিএনপির যে সমস্ত নেতা কর্নেল অলি আহমেদকে ফোন করে জানতে চাইলে তিনি তাদের বলেছেন, তার কাছে যথেষ্ঠ প্রমাণ আছে এবং ২০ দলের বৈঠক ডাকা হলে তিনি সেখানে তথ্য-প্রমাণগুলো উপস্থাপন করবেন।

 কর্নেল অলি আহমেদের ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, যে ৫ জন নেতা সরকারী অর্থে নির্বাচন করেছেন বলে কর্নেল অলি অভিযোগ করেছেন তাদের মধ্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অন্যতম। এছাড়াও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুল মঈন খান এবং আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী সরকারী অর্থায়নে নির্বাচন করেছেন বলে কর্নেল অলি আহমেদ অভিযোগ করেছেন।

তবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, এ ধরনের অভিযোগ ভিত্তিহীন, উদ্ভট। এ ধরনের অভিযোগ তুলে বিএনপি এবং ২০ দলে একটি বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা মাত্র। তিনি বলেন যে, এ সমস্ত অপপ্রচার করে সরকার বিএনপিকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে চাইছে। সরকার নির্বাচনের আগেও বিএনপি ভাঙতে চেয়েছিল। কিন্তু সেসময় তারা ব্যর্থ হয়েছে। এখন নির্বাচনের পরও বিএনপি ভাঙার জন্য মরিয়া হয়ে লেগেছে বলে মন্তব্য করেন নজরুল ইসলাম খান। কিন্তু যিনি অভিযোগ করেছেন তিনি বিএনপির একজন প্রাক্তন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য; এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নজরুল ইসলাম খান কোন মন্তব্য করেননি।

তবে কর্নেল অলি আহমেদের বিএনপিতে একটি বিরাট অনুসারী দল রয়েছে। তারা এই বক্তব্যটি বিশ্বাস করছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, কর্নেল অলি আহমেদ যখন বিএনপিতে ছিলেন তখনও তিনি তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে বক্তব্য রাখতেন। কখনও তিনি ঢালাও মন্তব্য করেননি অন্যান্য রাজনীতিক নেতার মধ্যে। তিনি জিয়াউর রহমানের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ একজন সহযোদ্ধা ছিলেন। কাজেই তার বক্তব্যকে উড়িয়ে দেয়ার কোন সুযোগ নেই।

তবে অন্য একটি সূত্র বলছে, বিএনপির নেতৃত্বে এখন যারা আছেন তাদের সঙ্গে কর্নেল অলি আহমেদের সম্পর্ক বরাবরই খারাপ ছিল। কর্নেল অলি আহমেদ যে কারণে বিএনপি থেকে বেরিয়ে গেছেন তার একটা বড় কারণ হলো এসমস্ত নেতারা। কাজেই সুযোগ পেলেই তিনি এ ধরনের বক্তব্য রাখেন বলেই ঐ সূত্র মনে করছে। তবে যে কারণেই কর্নেল অলি আহমেদ এই বক্তব্য রাখেন না কেন এই বক্তব্য নিয়ে বিএনপিতে আরও একবার তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

 

বাংলা ইনসাইডার/এমআর