ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

রিজভী-জাফরউল্লাহর বাদানুবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ রবিবার, ১২:০১ পিএম
রিজভী-জাফরউল্লাহর বাদানুবাদ

ডা. জাফরউল্লাহর উপর চটেছেন রুহুল কবীর রিজভী। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ’ আয়োজিত এক মানববন্ধনে বিএনপি-তারেক জিয়ার কঠোর সমালোচনা করেন। সেখানে তিনি তারেক জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, রিজভীর মাধ্যমে বৈঠক না ডেকে, ’দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে নিজে বৈঠকে বসেন। সময় নিয়ে আন্দোলন করেন। লন্ডনে বসে শুধু স্কাইপেতে কথা বললে আপনিও আরেকজন রিজভী হয়ে যাবেন।’

তিনি দলের সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশ্য করে বলেন, শুধুমাত্র প্রেসক্লাব বা রাজনৈতিক কার্যালয়ে বসে বিবৃতি দিলেই কাজ হবে না। খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য সরকারের  সঙ্গে একটি সংলাপের আহ্বান করেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরী।

মানববন্ধন শেষে যখন তার এসব বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার হওয়া শুরু হয়, তখন ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী। রিজভী ডা. জাফরউল্লাহকে টেলিফোন করে বলেন,‘নিজের চরকায় আপনি তেল দেন। আপনি যতটুকু না আওয়ামী লীগের সমালোচনা করছেন, তার চেয়ে বেশি সমালোচনা করছেন বিএনপির। আপনি কি বিএনপির সমালোচনা করার এজেন্সি নিয়েছেন? এজন্যই কি সরকার আপনাকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে পাঠিয়েছে?’ রিজভীর এসব কথায় ডা. জাফরউল্লাহ ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং বলেন, ‘তোমার কাছ থেকে আমার রাজনীতি শিখতে হবে না। তুমি বিএনপির যা ক্ষতি করেছো, এই ক্ষতি বিএনপির আর কেউ করতে পারেনি।’

দু’জনের মধ্যে টেলি বাদানুবাদের এক পর্যায়ে রুহুল কবীর রিজভী টেলিফোন রেখে দেন। এরপর তিনি বিএনপির অন্যান্য নেতার কাছে এ ব্যাপারে অভিযোগ করেন। সহানুভূতি জানানো ছাড়া কেউ এ ব্যাপারে তাকে সহযোগিতা করতে পারেনি।

ডা. জাফরউল্লাহর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘বিএনপিতে কিছু ‘কথা বলা’ রাজনীতি করার লোক আছে। তারা কোন কাজ করে না। তারা ওপরে বসে বক্তব্য বিবৃতি দেয়। বক্তব্য বিবৃতি দিয়ে তারা বিএনপিকে আরও দুর্বল করছে। এটা করে বিএনপি আন্দোলনও করতে পারবে না এবং খালেদা জিয়াকে মুক্তও করতে পারবে না।’

তিনি বলেন,‘আমি গণতান্ত্রিক শক্তিকে বিশ্বাস করি। আমি জনগণ ছাড়া আর কারোর কাছে দায়বদ্ধ নই। যেটা আমার বিবেকে সঠিক মনে হয়েছে, সেটাই আমি করেছি। এতে যদি কেউ  মনোঃকষ্ট পায়, দুঃখ পায়, তাতে আমার কিছু করার নেই।’

বাংলা ইনসাইডার