ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

বিএনপির গোপন তথ্য ফাঁস করবে জামাত

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৭:০০ পিএম
বিএনপির গোপন তথ্য ফাঁস করবে জামাত

বিএনপির সব গোপন তথ্য ফাঁস করবে জামাত। জামাতের এক নীতি নির্ধারনী সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএনপিকে বিভিন্নমহল যে ক্রমাগ্রতভাবে জামাতকে ছাড়ার জন্য চাপ দিচ্ছে এবং বিএনপিরও কোন কোন নেতা বলছে যে, জামাতকে বাদ না দিলে বিএনপির ভবিষ্যৎ অন্ধকার। সেই প্রেক্ষিতে বিএনপির গোপন কিছু তথ্য ফাঁস করে দিবে জামাত।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, জামাত দেখতে চায় যে, বিএনপি ২০ দল বিলুপ্ত করে কিনা। বিএনপি জামাতের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করে কিনা। জামাত নিজে যেচে বিএনপির সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করবে না। এ বৈঠকে জামাত এবং বিএনপির সম্পর্কের বিভিন্ন ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা হয়। জামাত যে বিভিন্ন সময় বিএনপিকে মোটা অঙ্কের আর্থিক সহায়তা করেছে সে সম্পর্কে নেতারা আলোচনা করেন। বৈঠকসূত্রে প্রাপ্ত তথ্য খবরে জানা গেছে , সৌদি আরবসহ মুসলিম দেশগুলো থেকে বিএনপি নিয়মিত অর্থ পেত সংগঠন পরিচালনা এবং নির্বাচনের জন্য। সেই অর্থ আসতো জামাতের মাধ্যমে। জামাত সৌদি আরবসহ কয়েকটি মুসলিম দেশে বাংলাদেশে মুসলিম উম্মাহ প্রতিষ্ঠা এবং মুসলমানদের হেফাজতের জন্য বিএনপিকে অর্থ দেওয়ার জন্য সুপারিশ করেছিল। সেই সুপারিশের প্রেক্ষিতেই ১৯৮৮ সাল থেকে জামাত সৌদি আরব, কাতারসহ বিভিন্ন মুসলিম দেশুগুলো থেকে নিয়মিত অর্থ পেত। শুধুমাত্র মুসলিম দেশগুলো নয়, পাকিস্তানের সঙ্গে বিএনপির সু-সম্পর্ক তৈরীতেও জামাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল বলে জামাতের নেতারা জানিয়েছেন। ২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপিকে যে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই দিয়েছিল। সেটা জামাতের সুপারিশেই দেওয়া হয়েছিল। সেই সময় জামাত পাকিস্তানকে জানিয়েছিল যে, পাকিস্তানি ভাবধারা বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত করতে গেলে এবং পাকিস্তানি স্বার্থ রক্ষা করতে পারে একমাত্র বিএনপি। জামাতের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আর্থিক কারণেই মূলত বিএনপি জামাতকে ছাড়তে রাজি নয়। যদি বিএনপি জামাতকে ছাড়ে তাহলে বিএনপির যে মোটা অঙ্কের অর্থের উৎস, সেটা বন্ধ হয়ে যাবে।

সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপির নানা দু:অবস্থা, সাংগঠনিক দুর্বলতা এবং নেতৃত্বের সংকটের কারণে এমনিতেই বিএনপিতে বৈদেশিক অর্থের উৎস কমে এসেছে।  আওয়ামী লীগের যে পরিবর্তিত নীতি এবং আওয়ামী লীগের যে অবস্থান সে অবস্থানে মুসলিম উম্মাহ সন্তুষ্ট। তারা মনে করেন, বাংলাদেশের মুসলমান এবং ইসলামী স্বার্থ রক্ষার জন্য আলাদা কোন দলকে পৃষ্টপোষকতা করার দরকার নেই। বরং আওয়ামী লীগই মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষার জন্য ভালো কাজ করছে।

বিশেষ করে, ২০০৮ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক অন্য যেকোন সময়ের চেয়ে এখন ভালো অবস্থানে। সৌদি আরবের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত সম্পর্ক তৈরী হয়েছে। সৌদি আরবে যে সম্মিলিত সেনা সুরক্ষা দল তৈরী করা হয়েছে সেখানে প্রধানমন্ত্রীর অনুমতিক্রমেই বাংলাদেশের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হয়েছে। এই প্রেক্ষিতে এখন মুসলিম দেশগুলো বিএনপি এবং জামাত থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। যে কারণে এই দুটি দলই এখন আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে। জামাতের মাধ্যমে বিএনপি যে সমস্ত তথ্য ও অর্থ পেয়েছে। সেই সবের যাবতীয় তথ্য জামাতের কাছে আছে। জামাতের অনেকেই বলছেন, বিএনপি যদি এটা নিয়ে বাড়াবাড়ি করে, জামাতকে ছাড়ার জন্য যদি চাপ সৃষ্টি করে। তাহলে এই তথ্যগুলো তারা প্রকাশ্যে আনবে। তাতে বিএনপির রাজনীতি বিব্রত হবে।

শুধু আর্থিক লেনদেনের বিষয় নয়। ৭৫ এর ঘাতকদের পুনর্বাসন করা এবং বিভিন্ন মৌলবাদী সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের ক্ষেত্রেও জামাত বিএনপির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এই প্রেক্ষিতে জামাত মনে করছে যে, বিএনপি যদি তাদেরকে ছেড়ে নতুন জোট করতে চায়, সেটা তাদের বিষয়। তখন জামাত পর্যায়ক্রমে বিএনপির মুখোশ উম্মোচন করবে। তবে বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপি জামাতকে ছাড়বে এই মুহুর্তে এমন কোন সিদ্ধান্ত তাদের মধ্যে হয়নি। অন্যদিকে জামাতের একাধিক নেতা বলেছে, জামাতও চায় না বিএনপি তাদের ছাড়ুক। কারণ জোট ভেঙ্গে গেলে দুই দলেরই ক্ষতি হবে।

 

বাংলা ইনসাইডার