ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ডাকসুর মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বুধবার, ০৬:০০ পিএম
ডাকসুর মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন প্রধানমন্ত্রী

আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রলীগের প্রার্থী চূড়ান্ত করবেন প্রধানমন্ত্রী নিজেই। আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এ কথা নিশ্চিত করেছে। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর একটি নিজস্ব টিম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জরিপের কাজ করছে। এই জরিপের কাজ আগামী দু’একদিনের মধ্যেই শেষ হবে। প্রধানমন্ত্রী দেশের বাইরে যাচ্ছেন। আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি দেশে ফিরবেন। ২১ ফেব্রুয়ারির পরপরই তিনি মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন বলে জানা গেছে।

একাধিক সূত্র বলছে, আওয়ামী লীগ মেধাবী, শিক্ষিত এবং জনপ্রিয় ছাত্রনেতাদের বিভিন্ন পদে মনোনয়নের জন্য বেছে নেবে। কারা কারা মনোনয়ন পেতে পারেন এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, জাহাঙ্গীর কবীর নানক, লিয়াকত শিকদারের মতো সাবেক ছাত্রনেতাদের তালিকা তৈরির নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। তারা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীর সঙ্গে কথাবার্তা বলে একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দিয়েছেন। এই তালিকার ভিত্তিতে মাঠ জরিপের কাজ শুরু হয়েছে। সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা পাওয়াদের মধ্যে কারা সাধারণ ছাত্রদের কাছে বেশি জনপ্রিয় সেটা বের আনার চেষ্টা করা হচ্ছে জরিপে।

প্রধানমন্ত্রী মূলত ৫টি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন বলে আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো বলছে।

১. ছাত্রলীগে অবদান ও উত্তরাধিকার: ছাত্রলীগের নেতা বা কর্মী হিসেবে একজন প্রার্থীর অবদান, দীর্ঘদিন ছাত্রলীগ করার অভিজ্ঞতা, ছাত্র রাজনীতিতে আসার ক্ষেত্রে তার পারিবারিক উত্তরাধিকার বিবেচনা করা হবে।  

২. শিক্ষাগত অর্জন: মেধাবী শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। ছাত্র হিসেবে তার ট্রাক রেকর্ড বা অতীতে বিভিন্ন ধাপে শিক্ষাগত সাফল্য পর্যালোচনা করা হবে।

৩. ক্লিন ইমেজ: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে কতটুকু ক্লিন ইমেজের অধিকারী। কোন বিতর্ক আছে কিনা সেটা নেতিবাচক হিসেবে দেখা হবে। ক্লিন ইমেজের ছাত্রনেতাদের প্রাধান্য দেয়া হবে।

৪. এক্সট্রা কারিকুলার অ্যাক্টিভিটি: পড়াশোনার বাইরে তারা এক্সট্রা কারিকুলার অ্যাক্টিভিটিতে কতটুকু সক্রিয় সেটা দেখা হবে। শিল্প-সাহিত্য, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, খেলাধুলা প্রভৃতি ক্ষেত্রে যুক্ত থাকলে তাদেরকে প্রাধান্য দেয়া হবে।

৫. সাধারণ শিক্ষার্থীর সঙ্গে সম্পর্ক: শুধু রাজনৈতিক নেতাকর্মী নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীর সঙ্গে কেমন সম্পর্ক, সেটাও প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হবে।

আওয়ামী লীগের একজন দায়িত্বশীল নেতা বলেছেন, ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রলীগের মনোনয়ন চূড়ান্ত করার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি রূপরেখা তৈরি করছেন। সেই রূপরেখার ভিত্তিতেই কেন্দ্রীয় সংসদ ও হল সংসদের প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

জানা গেছে যে, প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন এবং ডাকসু নির্বাচনের কৌশল ও নির্দেশনা দেবেন। প্রধানমন্ত্রী নিজে ছাত্রলীগের প্রার্থীদের মনোনয়নের দায়িত্ব নেয়ায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা খুশি। তারা মনে করছে, এর মাধ্যমে সত্যিকারের নেতৃত্ব বেরিয়ে আসবে। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাদের আদর্শিক সভাপতি হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অন্য কারোর হাতে মনোনয়ন দেয়ার ভার দেয়ার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হাতে থাকাই শ্রেয় বলে তারা মনে করেন।

 গত সপ্তাহে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। তারা প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছিলেন, ছাত্রলীগের মনোয়নের বিষয়টি যেন তিনি তদারকি করেন। তাদের অনুরোধের প্রেক্ষিতেই প্রধানমন্ত্রী তার কর্মব্যস্ততার মধ্যেই এই মনোনয়ন চূড়ান্তের কাজটি শুরু করেছেন।

উল্লেখ্য, আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ তারিখ। আগামী ১১ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদগুলোর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

 

বাংলা ইনসাইডার/এমআর