ঢাকা, সোমবার, ১০ মে ২০২১, ২৭ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ভুয়া আওয়ামী সংগঠনের বিরুদ্ধে অ্যাকশনের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বৃহস্পতিবার, ০৮:০০ পিএম
ভুয়া আওয়ামী সংগঠনের বিরুদ্ধে অ্যাকশনের নির্দেশ

টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগ এবং বঙ্গবন্ধু পরিবারের নাম ব্যবহার করা ভুয়া সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে অ্যাকশন গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টানা দশ বছর ক্ষমতায় থাকার ফলে বেশ কিছু সুবিধাভোগী গোষ্ঠী নানা নাম ও মোড়কে সংগঠন গড়ে তুলছে এবং তাদেরকে আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠন হিসেবে প্রচার করছে। সংগঠনগুলো বিভিন্ন জায়গায় চাঁদাবাজি এবং দুষ্কর্ম করছে বলে গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টে বেরিয়ে এসেছে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ২৫/২ ধারায় সহযোগী সংগঠনের কথা বলা হয়েছে। এখানে স্বীকৃত যেসব সংগঠনের কথা বলা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে, বাংলাদেশ আওয়ামী মহিলা লীগ,  বাংলাদেশ আওয়ামী কৃষক লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, বাংলাদেশ তাতী লীগ ও বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ। এছাড়াও জাতীয় শ্রমিক লীগ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পৃথক গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। এছাড়াও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদসহ  কিছু পেশাজীবী সংগঠন রয়েছে যারা আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন না হলেও আওয়ামী লীগের স্বীকৃত সংগঠন হিসেবে কাজ করছে।

২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী পর থেকেই দেখা যাচ্ছে, আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের নামে বেশ কিছু ভুয়া সংগঠন আত্মপ্রকাশ করেছে। এগুলো নানা অপকর্মের মাধ্যমে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। গোয়েন্দা সংস্থা এরকম বেশ কিছু সংগঠনের হদিস পেয়েছে। এরকম অন্তত ২৯৩টি ভুয়া সংগঠনের তালিকা আওয়ামী সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেছে গোয়েন্দা সংস্থা। এসব ভুয়া সংগঠনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য-আওয়ামী নবীন লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী সোনার বাংলা লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী প্রচার লীগ, আওয়ামী তরুণ লীগ, ডিজিটাল লীগ, জয় বাংলা মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ, বাংলা মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ, নৌকা সমর্থক গোষ্ঠী, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন লীগ, বাংলাদেশ রিকশা ভ্যান শ্রমিক লীগ, বঙ্গমাতা পরিষদ ইত্যাদি। জাতির জনক মেমোরিয়াল ট্রাস্টের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বঙ্গবন্ধুর পরিবারের নামে কোন সংগঠন করতে গেলে মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অনুমোদন নিতে হবে। মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অনুমোদন ব্যতীত বঙ্গবন্ধু পরিবারের নামে কোন সংগঠন হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে ট্রাস্টের সভায়।

দেখা যাচ্ছে যে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, শেখ রাসেল, শেখ কামাল, শেখ জামালসহ বিভিন্ন নামে বিভিন্ন ভূঁইফোড় সংগঠন করা হয়েছে। এসব সংগঠনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী-এমপিরাও যোগদান করছেন। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সভাপতি কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানা গেছে। যেসব সংগঠন ট্রাস্টের অনুমোদন না নিয়েই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর পরিবারের নাম ভাঙিয়ে দোকান খুলেছে তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগ নামে একটি সংগঠন বিভিন্ন সাম্প্রদায়িক উসকানি ছড়াচ্ছিল। এর প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দেয়া হয়, আওয়ামী ওলামা লীগ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কোন অঙ্গ সংগঠন বা সহযোগী সংগঠন নয়। আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের নামে গড়ে ওঠা এরকম ভুঁইফোড় সংগঠনগুলো খুঁজে বের করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের প্রেক্ষিতে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের নামে শত শত ভুয়া সংগঠনের হদিস পেয়েছে এবং এসব সংগঠনের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী এদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।


বাংলা ইনসাইডার/এমআর