ঢাকা, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বিএনপিতে একীভূত হবে জামাত?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ শনিবার, ০৭:০০ পিএম
বিএনপিতে একীভূত হবে জামাত?

বাংলাদেশে যখন জামাত বিলোপের প্রস্তুতি চলছে, ঠিক সে সময় লন্ডনে জামাত- বিএনপি একীভূত করণ বৈঠকের খবর পাওয়া গেছে। নানা জটিলতায় আক্রান্ত জামাত ইসলাম সংগঠন বিলোপ করে নতুন মোড়কে আত্মপ্রকাশ করতে চাচ্ছে। এ নিয়ে জামাতে মতবিরোধ চরমে। জামাতের শীর্ষস্থানীয় নেতা ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক পদত্যাগ করেছেন। আরও কয়েকজন নেতা একাত্তরের প্রশ্নে পদত্যাগ করতে পারেন বলে জামাতের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছেন। কিন্তু জামাতের মজলিশে সুরার সিংহভাগ সদস্যের মত জামাতকে বিলুপ্ত করে নতুনভাবে আত্মপ্রকাশ করতে হবে। কিন্তু লন্ডনে যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরা তারেক জিয়ার সঙ্গে জামাতের বৈঠক নিয়ে একাধিক বৈঠক করেছেন। এইসব বৈঠকে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

তারেক জিয়া চান জামাত পৃথক সংগঠন না হয়ে বিএনপির সঙ্গেই একীভূত হয়ে যাক। এর পেছনে মূল উদ্দেশ্য হলো, যে দেশ-বিদেশে জামাতের বিপুল পরিমাণ অর্থ সম্পদ রয়েছে। জামাতের অর্থ দাতার সংখ্যা বিএনপি বা অন্য যেকোন রাজনৈতিক দলের চেয়ে বেশি। তারেক জিয়া এই বিষয়ে আগ্রহী হয়ে ‍যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানদের সঙ্গে দুইদফা বৈঠক করেছেন বলে দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছেন। সেখানে তারেক প্রস্তাব দিয়েছেন, জামাতের যে সদস্য আছে, তা যেন বিএনপির সঙ্গে একীভূত হয়ে যায়। চার নীতিমালার ভিত্তিতে এই একীভূত হবার প্রস্তাব দিয়েছেন তারেক জিয়া; এগুলো হলো:

প্রথমত, জামাতের শীর্ষস্থানীয় নেতা, যারা পরিচিত মুখ, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে আছেন। এরা একীভূত হবেন না, তারা রাজনীতি থেকে অবসরে যাবেন। অথবা ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাকের মত পদত্যাগ করবেন। তারা যদি চায় নিজেরা দল করবেন, সেটা তারা করতে পারেন।

দ্বিতীয়ত, মাঠ পর্যায়ের যে নেতারা আছেন, তারা বিএনপির সঙ্গে একীভূত হয়ে যাবেন। প্রত্যেকটা এলাকায়ই জামাতের ভোটব্যাংক রয়েছে এবং নূন্যতম যাই হোক, একনিষ্ঠ কর্মী এবং সমর্থক রয়েছে। তারা দলের প্রতি নিবেদিত। যারা সার্বক্ষনিকভাবে দলের জন্য কাজ করেন। তারেক জিয়া চাইছেন, এরকম নিবেদিত কর্মীদের যদি বিএনপিতে আনা যায় তাহলে বিএনপি লাভবান হবে এবং সংগঠন শক্তিশালী হবে।

তৃতীয়ত, জামাত- বিএনপির মধ্যে আদর্শগত ঐক্য রয়েছে। দুটি দলই ইসলামিক মূল্যবোধ এবং ইসলামী চিন্তা চেতনাকে ধারণ করতে চায়। বিএনপির যে গণতান্ত্রিক আবরণ, সে আবরণটাকেই জামাত যদি গ্রহণ করে তাহলে বিএনপি-জামাত মিলে একটি শক্তিশালী দল হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে।

চতুর্থত, মনে করা হচ্ছে দুই দলই একই লক্ষ্য অর্জন করতে চায়। সেটা হলো ইসলাম ভিত্তিক গণতন্ত্র।

এই প্রেক্ষাপটে যে দুই দফা বৈঠক হয়েছে, সে বৈঠকে যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরা নীতিগতভাবে একীভূত হতে রাজী হয়েছেন। কিন্তু সমস্যা হলো যারা বাংলাদেশে জামাতের নেতৃত্বে রয়েছেন, তারা এর পক্ষপাতী নন। তারা মনে করেন, বিএনপিতে বহু বিভক্তি আছে এবং বিএনপির রাজনৈতিক ইমেজও ভালো নয়। বিশেষ করে, তারেক জিয়ার যে ইমেজ তা নিয়ে বিএনপি বেশিদূর আগাতে পারবে না। বরং তারা নতুন করে জামাতকে সাজাতে চায়, যেখানে তারা একাত্তরে জামাত ইসলাম যে অপকর্ম করেছে, সেজন্য ক্ষমা চাইবে। তারা গণতান্ত্রিক রাজনীতির রীতিনীতি অনুসরণ করে ইসলামী মূলব্যবোধ এবং ইসলামী রীতিনীতি অনুসরণ করার প্রতি জোর দিবে। ইসলামী শিক্ষাকে গুরুত্ব আরোপ করবে। কিন্তু তারা দলে গণতান্ত্রিক চেতনা, গণতান্ত্রিক চিন্তা রাখবে। এখন জামাত ইসলামের যেমন আমির, নায়েবে আমির পদ রয়েছে, সেখানে অন্যান্য দলের মত সভাপতি বা চেয়ারপারসন এবং সাধারণ সম্পাদক বা মহাসচিব এরকম পদ সৃষ্টি করবে।

ঢাকা-লন্ডনের বিরোধের জেরে শেষ পর্যন্ত জামাত কি বিএনপিতে একীভূত হবে নাকি জামাত আলাদা একটি নতুন রাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে সেটা দেখার বিষয়। তবে একটি সূত্র বলছে যে, শেষ পর্যন্ত হয়তো দু-পক্ষ অনড় অবস্থানে থাকলে জামাত থেকে একটি বড় অংশ বিএনপিতে যোগ দিবে আর জামাতের যে নেতৃস্থানীয় যারা আছেন, যারা একাত্তর বা তার পরবর্তীতে রাজনীতি করেছেন। তাদের নেতৃত্বে একটি পৃথক রাজনৈতিক দল গঠন হবে।    

 

বাংলা ইনসাইডার