ঢাকা, রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ১০ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগের অঙ্গ সহযোগী সংগঠনগুলোর বেহাল দশা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮ মার্চ ২০১৯ শুক্রবার, ০৯:০০ পিএম
আওয়ামী লীগের অঙ্গ সহযোগী সংগঠনগুলোর বেহাল দশা

আগামী অক্টোবরে আওয়ামী লীগ তাদের জাতীয় কাউন্সিল করবে বলে নির্ধারণ করেছে। এই মার্চ থেকেই কাউন্সিলের প্রস্তুতি গ্রহণ করার কথা ছিল। কিন্তু ওবায়দুল কাদেরের অসুস্থতার কারণে আওয়ামী লীগের কাউন্সিল নিয়ে মাঠ পর্যায়ে যে কর্মকাণ্ডগুলো ছিল তা থমকে গেছে বলে কয়েকটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ আস্তে আস্তে তৃনমুলে যেসমস্ত স্থানীয় পর্যায়ে কাউন্সিল দীর্ঘদিন ধরে হয়নি, সে সমস্ত কাউন্সিলগুলোর ব্যাপারে পদক্ষেপ নিবেন বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে তিনি শীঘ্রই প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলবেন বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে আওয়ামী লীগের কাউন্সিল নিয়ে যে বড় প্রশ্নটি রয়েছে, সেটি হলো আওয়ামী লীগের অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনগুলোর কাউন্সিল করা। আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনগুলোর কাউন্সিল দীর্ঘদিন ধরে হয় না। এই সমস্ত অঙ্গ সংগঠনগুলোতে নতুন নেতৃত্ব না আসার কারণে দলের মধ্যে বিভিন্ন সমস্যা হচ্ছে বলেই আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সর্বশেষ কাউন্সিল হয়েছিল ছয় বছর আগে। ক্ষমতাসীন দলের এই যুব সংগঠনের দীর্ঘদিন কাউন্সিল না হওয়াটা দলের নেতাকর্মীদের জন্য হতাশাজনক বলে একাধিক নেতৃবৃন্দ বলেছেন। বর্তমানে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী এবং যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ, এরা ছয় বছর ধরে দায়িত্বে রয়েছেন। একই অবস্থা বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছা সেবক লীগেরও। স্বেচ্ছা সেবক লীগের সভাপতি কাউসার মোল্লা এবং সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথও দীর্ঘদিন ধরে এই সংগঠনের দায়িত্বে রয়েছেন। সেখানেও দীর্ঘদিন ধরে কাউন্সিল হয় না। আওয়ামী লীগের আরেকটি অংশ সংগঠন আওয়ামী মহিলা লীগেরও কাউন্সিল দীর্ঘদিন ধরে হয় না। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলছেন, আওয়ামী লীগ দীর্ঘ দশ বছর ধরে ক্ষমতায় আছে। আপাতত আওয়ামী লীগকে অত্যন্ত শক্তিশালি এবং গোছানো রাজনৈতিক দল মনে হলেও এই অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনগুলোর কাউন্সিল দীর্ঘদিন ধরে না হওয়া আওয়ামী লীগের জন্য হতাশজনক বলেই মনে করছেন তারা।  এজন্য এই কাউন্সিলগুলো করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন যে, আমরা যত শীঘ্রই সম্ভব এই অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠন যেগুলোতে দীর্ঘদিন ধরে কাউন্সিল হয় না। সেখানে কাউন্সিল করার উদ্যোগ নিবো। তবে কবে নাগাদ এই সমস্ত অঙ্গ সংগঠনের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে সে ব্যাপারে কোন নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র বলছে যে, এই সমস্ত অঙ্গ সংগঠনে যোগ্য নেতৃত্ব পাওয়া যাচ্ছে না। তাছাড়া এই অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনগুলো ভালো চলছে বলে কাউন্সিল করা হচ্ছে না। কিন্তু এরকম যুক্তি আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই নাকোচ করে দিয়ে বলেছেন যে, ক্ষমতাসীন অবস্থায় অনেক অঙ্গ সংগঠনই মনে হয় যে শক্তিশালি। কিন্তু দলের মধ্যে যদি গণতন্ত্র চর্চা না হয়, নিয়মিত চর্চা না হয়, তাহলে সেই সংগঠন ক্ষতিগ্রস্থ হতে বাধ্য। এইজন্যই কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য তাগাদা। শুধুমাত্র আওয়ামী যুবলীগ, স্বেচ্ছা সেবকলীগ বা মহিলা লীগ নয়, একমাত্র ছাত্রলীগ ছাড়া অধিকাংশ অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনগুলোর দীর্ঘদিন ধরে কাউন্সিল হচ্ছে না এবং শিগগিরই অধিবেশনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল করা উচিত বলে অনেক সিনিয়র নেতা মনে করেন। তবে শেষ পর্যন্ত এই অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনগুলোর কাউন্সিল কবে নাগাদ হবে এবং আদৌ হবে কিনা তা নির্ভর করছে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সিদ্ধান্তের ওপর।   

 

বাংলা ইনসাইডার