ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৯ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ডাকসু-ই কেন আওয়ামী লীগের টার্গেট?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০১৯ রবিবার, ০৭:০০ পিএম
ডাকসু-ই কেন আওয়ামী লীগের টার্গেট?

পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপে আজ ৭৮টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। পরেরদিনই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ডাকসু নির্বাচন। ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ডাকসু নির্বাচন নিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রস্তুতির কোন কমতি না থাকলেও উপজেলা নির্বাচন নিয়ে দলটির ন্যূনতম তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে, উপজেলা নির্বাচন শুরু হলেও আওয়ামী লীগের এখন একমাত্র লক্ষ্য ডাকসুর নেতৃত্ব নিজেদের দখলে নেয়া। সারাদেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে ডাকসুর নেতৃত্ব নিজেদের ছাত্র সংগঠনের হাতে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ। এ জন্য ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে ভিপি, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে জিএস এবং সাদ্দাম হোসাইনকে এজিএস করে ২৫ সদস্যের প্যানেল ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন ছাত্রলীগ। এই প্যানেলেকে বিজয়ী করার জন্য প্রায় প্রতিদিনই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে বৈঠক হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এদিকে আজ ৭৮টি উপজেলায় নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ৫ম উপজেলা নির্বাচনের শুরু হলো। আরও চারধাপে সারাদেশে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীরাই মাঠে ফেবারিট। তবে তাদের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা। অন্তত ১০০টি উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থীকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে আওয়ামী লীগকে। তবে এ বিষয়ে যেন ভ্রুক্ষেপই নেই দলটির। তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোন ব্যবস্থাও নেয়া হয়নি। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে বিএনপি দেড় শতাধিক নেতাকর্মীকে বহিষ্কার করলেও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিদ্রোহী দমনে কোন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। কারণ, আওয়ামী লীগ জানে, উপজেলায় যে-ই জিতুক তিনি আওয়ামী লীগেরই হবেন। 

ডাকসুতে ছাত্রলীগের জয়ের মূল বাধা হয়ে দেখা দিয়েছে কোটাবিরোধী আন্দোলনের শিক্ষার্থীরা। এর পাশাপাশি সরকারবিরোধী ‘সেন্টিমেন্ট’কেও কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে বিরোধী সংগঠনগুলো।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে ডাকসুর প্রভাব বরাবরই লক্ষ্যণীয়। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় পর্যায়ের অনেক নেতাই ডাকসু থেকে উঠে আসেন। গত ২৮ বছর ডাকসু না থাকাই সে প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়েছে। তাই সুদূরপ্রসারী চিন্তা থেকে আওয়ামী লীগ ডাকসুর নেতৃত্ব হাতছাড়া করতে চায় না।

বাংলা ইনসাইডার/এমআর