ঢাকা, বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সরকার গিলে খাচ্ছে আওয়ামী লীগকে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৬ মার্চ ২০১৯ শনিবার, ০৭:০০ পিএম
সরকার গিলে খাচ্ছে আওয়ামী লীগকে

টানা দশ বছর ক্ষমতায় থেকে তৃতীয় মেয়াদের জন্য দেশ পরিচালনা করছে আওয়ামী লীগ। মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী এই সংগঠনটি বাংলাদেশের সবেচেয়ে বড় সংগঠন হিসেবেই পরিচিত। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর আওয়ামী লীগের কিছুটা বিধ্বস্ত সময় কেটেছিল। কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা  ১৯৮১ সালের ১৭ই মে দেশে ফিরে এসে আওয়ামী লীগের পুনর্গঠন করেন এবং ক্রমশ আওয়ামী লীগ আবার পূর্বের রূপে যায় এবং শক্তিশালী, জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। একানব্বইয়ের নির্বাচনে পরাজয়ের পরও আওয়ামী লীগ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং বড় রাজনৈতিক দল ছিল।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেন, একমাত্র আওয়ামী লীগই প্রকৃত অর্থে রাজনৈতিক দল যে দলের তৃণমূল পর্যন্ত কর্মীবাহিনী আছে এবং আদর্শভিত্তিক সংগঠন আছে। তুলনা করলে দেখা যায় যে, বিএনপি আসলে ক্ষমতায় বসে কতিপয় সুবিধাভোগীদের নিয়ে গঠিত একটি ক্লাবের মত। আর আওয়ামী লীগ হলো তিলে তিলে গড়ে ওঠা একটি সংগঠন। যে সংগঠনটি দীর্ঘদিন ধরে শুধু ত্যাগ তিতিক্ষা করেছে, মানুষের জন্য, জনগণের জন্য উৎসর্গ করেছে নিজেদের জীবন যৌবনকে। কিন্তু টানা দশ বছর ক্ষমতায় থেকে আওয়ামী লীগের সংগঠনের অবস্থা কি এই প্রশ্ন উঠছে। আওয়ামী লীগের সংগঠন আজ ঘুনে ধরা, আওয়ামী লীগের সংগঠন আজ আদর্শহীন, আওয়ামী লীগের সংগঠন আজ সরকারমুখী। এরকম অভিযোগ হরহামেশাই উঠছে। তৃতীয় মেয়াদে দেখা যাচ্ছে যে, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক তৎপরতা নেই বললেই চলে। আওয়ামী লীগের সংগঠনকে গিলে খাচ্ছে সরকার।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চেয়েছিলেন দল এবং সরকারকে আলাদা করতে। এজন্যই তিনি যখন মন্ত্রিত্ব পেয়েছিলেন, সংগঠন করার জন্য মন্ত্রীত্ব ছেড়ে দিয়ে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, সংগঠনই হচ্ছে রাজনীতির প্রাণ। সংগঠনই যদি না থাকে তাহলে একজন রাজনীতিবীদের কোনো পরিচয় থাকে না। সাম্প্রতিক সময়ে দেখা যাচ্ছে সরকার এবং সংগঠন একাকার হয়ে গেছে।

আওয়ামী লীগের প্রধান এবং সভাপতি শেখ হাসিনা, তিনি প্রধানমন্ত্রীও বটে। সভাপতির দায়িত্ব পালনের চেয়ে সরকারের দায়িত্ব পালন করাটাই তাঁর মূল দায়িত্ব। যার জন্য তাঁকে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ কাজে সময় দিতে হয়। কিন্তু দেখা যায় যে, এবারের মন্ত্রিসভার অধিকাংশ মন্ত্রীই নতুন , আনকোরা। এজন্য সবগুলো মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তই গ্রহণ করতে হয় প্রধানমন্ত্রীকে। এরপরও তিনি সংগঠনে যে পরিমাণ সময় দেন তা অন্য যে কারও চেয়ে বেশি।

সাংগঠনিক কাঠামোতে আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত সংগঠন থাকার কথা। কিন্তু সরেজমিনে দেখা যায় যে, আওয়ামী লীগের কোনো সংগঠন নেই বললেই চলে। ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতারা ইউনিয়ন পরিষদের টেন্ডারসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডেই ব্যস্ত থাকেন। দলের স্থানীয় পর্যায়ের নেতা যারা তারা নানারকম দেন দরবার, তদ্বিরে সময় কাটান। সংগঠন দেখার তাঁদের সময় কই?

এরপর আসে উপজেলা পর্যায়। উপজেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগ বিভক্ত এবং পরস্পর মুখোমুখি প্রায়। এমপিদের সঙ্গে উপজেলা চেয়ারম্যানদের বিরোধ নতুন নয়। এবার উপজেলা নির্বাচন নিয়ে এই বিরোধ আরও নতুন করে গরে উঠেছে। পাশাপাশি এবারের উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীতা উন্মুক্ত করে দেয়ার ফলে আওয়ামী লীগ একের অন্যের মুখোমুখি ও শত্রুতে পরিণত হয়েছে। উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কোনো সাংগঠনিক তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না। বরং এক পক্ষ, অন্য পক্ষকে কীভাবে কুপোকাত করবে সেই চেষ্টাতেই ব্যস্ত।

এরপর আসে জেলা পর্যায়। জেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগের অবস্থা তথৈব। দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার ফলে জেলা প্রশাসনের দণ্ডমুণ্ডের কর্তা যেন আওয়ামী লীগ নেতারাই হয়ে গেছেন। নেতাদের একমাত্র কাজ হলো বিভিন্ন সরকারী কাজ তদারকি করা, টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ করা, বিভন্ন তদ্বিরে সময় দেওয়া। জেলা পর্যায়ের নেতারা অধিকাংশ সময় ঢাকায় কাটান এবং স্থানীয় পর্যায়ের সংগঠন চালানোর মত বা কর্মসূচি দেওয়ার মত কোনো সময় তাঁদের হাতে নাই। শুধু দায়সারা গোছের একটি দিবস পালন। দিবসে পুষ্প স্তবক অর্পন করা। মন্ত্রী বা এমপিরা গেলে তাদেরকে সময় দেওয়া, এই নিয়েই তারা তৎপর।

এরপর আসে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় পর্যায় কমিটি। বিভাগীয় পর্যায়ের কমিটি নাজুক, দুর্বল এবং অস্তীত্ববিহীন প্রায়। কেন্দ্রীয় কমিটিতে একটা বড় অংশ মন্ত্রী, যারা দাপ্তরিক কাজেই ব্যস্ত থাকেন। আর যারা মন্ত্রী না,  তারা হতাশ ও কিছু না পাওয়ার বেদনায় আপ্লুত এবং তারা সব সময় খোঁজেন কোথাও কিছু পাওয়া যায় কিনা। প্রধানমন্ত্রী বা আওয়ামী লীগ প্রধান তাদের অনুগ্রহ বা অনুকম্পা পৃষ্ঠ হয়ে তাদেরকে কোন পদ পদবি দেয় কিনা, সেই চিন্তায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দর মূল ভরসা। সংগঠন দেখা, সংগঠনকে শক্তিশালী করা এবং সংগঠনকে সময় দেওয়ার মত সময় তাদের হাতে নেই। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় আড্ডা এবং কথাবার্তা বলার জন্য সাধারণত ব্যবহৃত হচ্ছে। ঢাকা মহানগরীতে আওয়ামী লীগের কার্যক্রম নেই বললেই চলে। মহানগরীর কার্যক্রম হলো সিটি কর্পোরেশনকে ঘিরে। মহানগরীর কার্যালয় বা কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যারা আসে, তার স্রেফ কিছু সময় কাটানো ও দলের একে অন্যের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ করার জন্য আসে। শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ অধিকাংশই থাকে নানা রকম তদবির ব্যবসা বাণিজ্য এবং ব্যক্তিগত কাজে কাটান।

আওয়ামী লীগ দশ বছর ধরে ক্ষমতায় আছে। এই ক্ষমতায় থাকার মূল্য দিতে হচ্ছে সংগঠনকে। এই সময় আওয়ামী লীগের সংগঠন সবচেয়ে ক্ষয়িঞ্চু এবং দুর্বল বলে অনেকেই মনে করছেন। তবে এর বিরুদ্ধ মতও আছে। অনেকেই মনে করে করছে যেহেতু রাজনৈতিক কর্মকান্ড বেশি নেই। বিরোধী দলের কার্যক্রম নেই। কাজেই এখন রাজনৈতিক কর্মকান্ড সীমিত হয়ে গেছে। সীমিত রাজনৈতিক কর্মকান্ডে সাংগঠনিক শক্তির দুর্বলতা বোঝার কোন উপায় নেই। আওয়ামী লীগ যে কোন সময় সংগঠিত হতে পারে। আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ইতিহাসে এমন দৃষ্টান্ত রয়েছে। সারাদেশে আওয়ামী লীগের বিস্তৃর্ণ নেতাকর্মী রয়েছে। কাজেই আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে দুর্বল একথা ঠিক নয়। হয়তো কর্মসূচী নেই বলে আওয়ামী লীগকে দুর্বল মনে করা হচ্ছে। তবে আওয়ামী লীগের যারা পোড় খাওয়া তারা মনে করেন যে, দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার পরে ক্ষমতার নানা রকম সুবিধা পেয়ে পেয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এখন আর আগের মতো ত্যাগ স্বীকার করতে কতটুকু প্রস্তুত সে প্রশ্ন রয়ে গেছে। দুর্দিনে এই সমস্ত নেতাকর্মীরা কতটুকু রাজপথে নামবেন বা কতটুকু ত্যাগ স্বীকার করবেন সেটা সময়ই বলে দিবে। তবে একটা ব্যাপারে সবাই একমত যে আওয়ামী লীগের আদর্শিক অবক্ষায় ঘটেছে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষীকি উদযাপন হবে আগামী বছর। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পূর্তি হবে। এই সময়কে ঘিরে যতসব কর্মসূচী সব সরকারী উদ্যোগে নেওয়া হচ্ছে। দলীয় উদ্যোগে কর্মসূচী কম। দলীয় উদ্যোগে কর্মসূচী নেই বললেই চলে। যার ফলে সংগঠনের নেতাকর্মীদের হাতে কোন কাজ নেই। প্রত্যেকেই নিজেদের আখের গুছিয়ে নিজেদের অবস্থান ভালো করার জন্যই ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। এটা একটা সংগঠনের জন্য বিপদজনক বলে মনে করা হচ্ছে।

মূলত সরকারে থাকার জন্য সবাই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী মন্ত্রিসভায় বা এমপি হিসেবে আছেন তারা বাইরে এসে মনে করছেন তারা সরকারের অংশ। তাঁরা সরকারের বিভিন্ন কাজকর্ম, বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা গ্রহণে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এরফলে সংগঠন দুর্বল হয়ে পড়ছে বলে অনেকে মনে করছে। আওয়ামী লীগের যারা প্রবীণ রাজনীতিবিদ তারা মনে করছেন, দু:সময়ে আওয়ামী লীগ অনেক শক্তিশালি হয়। বিশেষ করে এরশাদ বিরোধী আন্দোলন, একানব্বইয় থেকে ছিয়ানব্বই বিরোধী দলের সময় আওয়ামী লীগ অত্যন্ত শক্তিশালী রাজনৈতিক দল হিসেবে পরিচিত ছিল এবং আওয়ামী লীগ সম্বেন্ধে একজন প্রবীন নেতা বলেছেন, বন্যেরা যেমন বনে সুন্দর, শিশু মাতৃকোরে। সেরকম আওয়ামী লীগও সবচেয়ে বেশি তার সাংগঠনিক দক্ষতা দেখাতে পারে, যখন সে বিরোধী দলে থাকে। তাহলে কী দীর্ঘদিন সরকারে থাকার ফলে আওয়ামী লীগ আর দশটা রাজনৈতিক দলের মত একটি সুবিধাবাদী রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে? সময়ই এই প্রশ্নের উত্তর দিবে।  

বাংলা ইনসাইডার/এসআর/এমআরএইচ