ঢাকা, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

তারেক - জোবায়দার বিরোধ তুঙ্গে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ মার্চ ২০১৯ বুধবার, ০৮:০০ পিএম
তারেক - জোবায়দার বিরোধ তুঙ্গে

নির্বাচনের পরে বিএনপিতে যে গৃহবিবাদ শুরু হয়েছে, সেই গৃহবিবাদের ঢেউ জিয়া পরিবারের উপরও আঁচড়ে পড়েছে। বিএনপিতে জিয়া পরিবারের দুই সদস্য তারেক জিয়া এবং জোবায়দা রহমানের মধ্যে বিএনপির রাজনীতি এবং ভবিষ্যত করণীয় নিয়ে বিরোধ সৃষ্টির খবর পাওয়া গেছে। এনিয়ে দুজন দ্বিমুখী বক্তব্য রাখছেন। তাঁরা পরস্পরকে দোষারোপ করছেন। এনিয়ে তারেক জিয়ার পরিবারের মধ্যে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে বলেও লন্ডন থেকে প্রাপ্ত একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলোর মতে, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের আগে থেকেই তারেক জিয়াকে রাজনীতি থেকে সাময়িকভাবে অবসর গ্রহণ করা এবং বিএনপির যোগ্য কারও হাতে নেতৃত্ব তুলে দেওয়ার জন্য সুপারিশ করা হয়েছিল। একই সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়া যেন আপাতত রাজনীতি থেকে অবসর নিয়ে তিনি শুধু তার চিকিৎসার ব্যাপারে মনোনিবেশ করেন সেই পরামর্শও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারেক জিয়া দুটি প্রস্তাবের একটিও গ্রহণ করেননি এবং তিনি ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্যসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। তিনি শুধু দলকেই বিতর্কিত করেননি, বিএনপির অস্তীত্বকেও বিতর্কিত করেছেন। নির্বাচনের পরও তার সেই তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মহল এবং বিদেশী দাতা দেশ স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে যে, তারেক জিয়ার নেতৃত্ব যতক্ষণ বিএনপিতে থাকবে ততক্ষণ বিএনপিকে কোনমতে রাজনৈতিক দল হিসেবে স্বীকৃতি বা সমর্থন দিবে না। এই প্রেক্ষিতে তারেক জিয়াকে রাজনীতি থেকে আপাতত অবসরের দাবি বিএনপির মধ্যে জোড়ালো হয়ে উঠেছে। তারেক জিয়ার স্ত্রী ডা: জোবায়দাও চান তারেক জিয়া সাময়িকভাবে রাজনীতি থেকে অবসর নিক এবং নতুন করো হাতে নেতৃত্ব তুলে দিক। এনিয়ে তিনি বিএনপির শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন এবং তিনি দায়িত্ব নিয়েছিলেন যে তিনি এবিষয়টা তারেককে বুঝাবেন এবং তারেক যেন আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনীতি থেকে সরে যান, অবসরের ঘোষণা দেন সে ব্যাপারে একটা প্রস্তাবনা তিনি প্রকাশ্যে উপস্থাপনার জন্য কাজ করবেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো এই যে, তারেক তার স্ত্রীকেও এ ব্যপারে পাত্তা দেননি। তিনি কোন অবস্থাতেই বিএনপির দায়িত্ব থেকে সরে যেতে রাজি নন। এটা ডা: জোবায়দাকেও ক্ষুব্ধ করেছে। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, দীর্ঘদিন ধরেই ডা: জোবায়দা এবং তারেক জিয়ার নানা বিষয়ে মনোমালিন্য ছিলে এবং এই মনোমালিন্য এখন চরম অকার ধারণ করেছে। ডা: জোবায়দা নিজেই তারেক জিয়ার বিভিন্ন কর্মকান্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। জোবায়দা তারেক জিয়ার কর্মকান্ডে অত্যন্ত বিরক্ত বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।  

এই কারণে ডা: জোবায়দা একবারও বেগম খালেদা জিয়া গ্রেপ্তার হওয়ার পর দেশে আসেননি। তবে ৩০ শে ডিসেম্বরের নির্বাচনের পর তিনি একটি উদ্যোগ নিয়েছিলেন যে, বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক বিবেচনার বাইরে শুধুমাত্র মানবিক কারণে চিকিৎসার জন্য যেন মুক্তি দেয়া হয়। এইজন্য তিনি সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগও করেছেন। কিন্তু তারেক জিয়ার হস্তক্ষেপের কারণে এবং তারেক জিয়ার বাধার কারণে সেই উদ্যোগও ভেস্তে যায়। এটা ডা: জোবায়দাকে আরও ক্ষুব্ধ করেছে এবং ডা: জোবায়দা এখন সমস্ত তৎপরতা থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন।

একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, তিনি কোনো রাজনৈতিক তৎপরতায় জড়িত হবে না এবং এই রাজনৈতিক ব্যাপারে তারেক জিয়ার যে পরিণতি হয় সেই পরিণতি ঠেকাতে তিনি কোনো উদ্যোগ ও পদক্ষেপও নেবেন না।  তিনি বিএনপির একাধিক নেতাকে বলেছেন যে, তারেক জিয়ার উশৃংখলতা, বাড়াবাড়ি এবং অপরিণামদর্শী সিদ্ধান্তের কারণে বিএনপির এই অবস্থা। এজন্য তারেক জিয়ার অতি মাত্রায় লোভ এবং দুর্নীতিমনস্ক চিন্তাভাবনাই দায়ী বলেও তিনি একাধিক বিএনপি নেতাকে বলেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, স্বামী-স্ত্রীর বিরোধ এখন বিএনপিতে গোপন বিষয় না, ছড়িয়ে পড়েছে। এই বিরোধ যদি বাড়তে থাকে তাহলে হয়তো ডা: জোবায়দাই আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়ে তারেক জিয়ার বিভিন্ন অপকর্ম এবং অপকীর্তি সম্পর্কে  জনগনকে অবহিত করবেন। ডা: জোবায়দা বিএনপির একাধিক নেতাকে বলেছেন যে, তারেক জিয়াকে শোধরানোর আর কোনো পথ নেই। এখন একটাই পথ সেটা হলো বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে তাঁর সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা। সেটার জন্য তিনি যা যা করা দরকার তা করবেন বলেও বিএনপির একাধিক নেতাকে বলেছেন। জিয়া পরিবারের এই বিরোধ বিএনপিকে শেষ পর্যন্ত কোথায় নিয়ে যায় সেটাই হলো দেখার বিষয়।

বাংলা ইনসাইডার/এসআর/এমআরএইচ