ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আসল আ. লীগ চেনার সহজ ১০ উপায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ মার্চ ২০১৯ বুধবার, ০৯:০০ পিএম
আসল আ. লীগ চেনার সহজ ১০ উপায়

টানা দশ বছর ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। সারাদেশ এখন আওয়ামী লীগে থইথই করছে। দেশের সবাই যেন আওয়ামী লীগ। সরকারী কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সাধারণ ব্যাবসায়ী,কেউই বাদ যায় না। এত আওয়ামী লীগ এতদিন কোথায় ছিল এ প্রশ্ন তুলেছে আওয়ামী লীগের অনেক শীর্ষস্থানীয় নেতারা। কিছুদিন আগে আওয়ামী লীগের প্রেসেডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, এখন যে এত আওয়ামী লীগ এরা কি দু:সময়ে থাকবে? এবার উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগই আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে লড়াই করেছে। সারাদেশে আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগের মারপিট,সন্ত্রাস, খুনাখুনির খবরও এসেছে গণমাধ্যমে। প্রশ্ন উঠেছে, এত আওয়ামী লীগের মধ্যে আসল নকল চিনবেন কিভাবে? কে আওয়ামী লীগে এসেছে সুযোগ সন্ধানী হিসেবে স্বার্থের জন্য, কে দীর্ঘদিনের ত্যাগি এবং জাতির পিতার আদর্শে বিশ্বাস করে দলের দু:সময়ে পাশে ছিল? আওয়ামী লীগ চেনার সহজ ১০ টি উপায় বলেছেন শীর্ষস্থানীয় বিভিন্ন নেতারা। এই ১০ বিষয়ে যদি কাউকে পরীক্ষা করা যায়। তাহলেই বোঝা যাবে ঐ ব্যক্তিটি কি সুযোগ সন্ধানী আওয়ামী লীগ নাকি সত্যিকারের আওয়ামী লীগ? যে ১০ টি বিষয় দিয়ে সত্যিকারের আওয়ামী লীগ পরখ করে চেনা যাবে তা হলো:

১. আসল আওয়ামী লীগরা সবসময় বলেন ‘জাতির পিতা’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তারা সাধারণত ‘জাতির জনক’ বলেন না। নকল আওয়ামী লীগ সবসময় ‘জাতির জনক’ কথাটা বলেন। তারা ‘জাতির পিতা’ বলতে পারে না। লক্ষণীয় যে, আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময় ‘জাতির পিতা’ বলেন।

২. আসল আওয়ামী লীগ কর্মীরা বঙ্গবন্ধুর অনেকগুলো ভাষণই জানেন। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক ত্যাগ এবং তার বিভিন্ন পর্যায়ের ভাষণ বক্তৃতা এবং রাজনৈতিক দর্শন সম্বন্ধে জানেন। নকল আওয়ামী লীগের দৌড় শুধুমাত্র ৭ মার্চ ভাষণ পর্যন্ত। নকল আওয়ামী লীগের যেকোন নেতা শুধু ৭ মার্চ ভাষণের বাইরে বঙ্গবন্ধুর আর একটি ভাষণও উল্লেখ করতে পারে না। যদিও বঙ্গবন্ধুর অনেক ভাষণই এখন রেডিও টেলিভিশনে বারংবার প্রচারিত হচ্ছে। কিন্তু তাদের সবকিছু ৭ মার্চ ঘিরেই আঁকড়ে আছে।

৩. আসল আওয়ামী লীগের কর্মীরা সবসময় দু:সময়কে স্বরণ করেন। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর ২০০৭ সালের ওয়ান ইলেভেনের সময় আওয়ামী লীগের দু:সময়ের ভূমিকাকে স্বরণ করে। নকল আওয়ামী লীগ সবসময় উন্নয়নের কথা বলে। আওয়ামী লীগের আমলে কি উন্নয়ন হয়েছে তার ফিরিস্তি দেওয়াই নকল আওয়ামী লীগের প্রধান কাজ।

৪. আসল আওয়ামী লীগাররা দু:সময়ের সতর্কবার্তা দেয়। সবসময় মনে করেন যে, আওয়ামী লীগকে এমনভাবে সংগঠিত করতে হবে যেন আজকে ক্ষমতায় আছে কালকে ক্ষমতায় না থাকলেও যেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক শক্তি অটুট থাকে সে বিষয়টি নিয়ে তারা চিন্তা করে। কিন্তু নকল আওয়ামী লীগাররাা শুধু আজকের চিন্তা করে। আজকে কিভাবে তারা আরও বেশি ফুলে ফেঁপে উঠবে সেই চিন্তায় তারা মশগুল থাকে।

৫. আসল আওয়ামী লীগ সবসময় ত্যাগ করতে চায়। তারা কোন কিছু চাওয়া পাওয়ার চিন্তা করে না। আসল আওয়ামী লীগের লোকেরা কিছু না পেলেও দলের আদর্শ ত্যাগ করে না। দলের বিরুদ্ধাচারণ করে না। নকল আওয়ামী লীগাররা সবসময় কিছু পেতে চায়। কিছু না পেলেই তারা আওয়ামী লীগের সমলোচনায় মুখর হয়ে যায়। আওয়ামী লীগের ভুলের ফিরিস্তির ঢালা সাজিয়ে বসে।

৬. আসল আওয়ামী লীগের লোকেরা প্রকাশ্যে কখনও আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে না। প্রকাশ্য আলোচনায় তারা আওয়ামী লীগকে ঊর্ধ্বে তুলে ধরে তবে নিজেদের মধ্যে গোপন আলোচনায় তারা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সমালোচনা করে। নকল আওয়ামী লীগ কিছু না পেলেই সমালোচনায় মেতে ওঠে। তখন তারা যেভাবে সমালোচনা করে তখন তা বিরোধী দলকেও হার মানিয়ে দেয়।

৭. আসল আওয়ামী লীগের লোকেরা প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীকে সুস্থ এবং সুন্দর দেখতে চায়। তারা শেখ হাসিনার ওপরই সম্পূর্ণরূপে আস্থাশীল। তারা আওয়ামী লীগ মানেই বুঝে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং শেখ হাসিনা। অন্যকোনো দল বা উপদল বা বিভক্তি তারা পছন্দ করে না, প্রশ্রয় দেয় না। কিন্তু নকল আওয়ামী লীগ ক্ষমতাবান হয়েই নিজস্ব একটা বলয় তৈরি করে, নিজস্ব একটা আওয়ামী লীগ তৈরি করে। তাঁর পক্ষের লোকজনকে তারা সবসময় পুরস্কৃত করে এবং জাতির পিতাকে ও শেখ হাসিনাকে কেবল তারা মুখেই উচ্চারণ করে।

৮. আসল আওয়ামী লীগের লোকেরা মনে করে আওয়ামী লীগকে সবসময় দায়িত্বশীল থাকতে হবে, জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে হবে। এজন্য তারা কোনো জনবিরোধী কর্মকান্ড হলে সাথে সাথে উদ্বিগ্ন হয়ে পরে। যেকোনো সরকার বিরোধী কর্মকান্ডই তাঁদেরকে উৎকণ্ঠিত করে। নকল আওয়ামী লীগ এসব বিষয় নিয়ে মোটেও চিন্তিত নয়। তারা সবসময় চিন্তা করে যেকোনো প্রকারে ক্ষমতায় থাকতে হবে এবং ভোটে জিততে হবে। জনগণ সেখানে কি ভূমিকা পালন করলো, জনগণ ভোট দিলো কিনা সে বিষয়টি তাঁদের কাছে তুচ্ছ থাকে।

৯. আসল আওয়ামী লীগের লোকজন সবসময় চিন্তা করে যে, আওয়ামী লীগ যদি ভুল করে তাহলে সেই ভুলের মাশুল দিতে হবে গোঁটা জাতিকে এবং সেজন্য তারা আওয়ামী লীগ যেন ভুল না করে সে ব্যাপারে সতর্ক থাকে, সজাগ থাকে। দলীয় কোন্দল বা দলের অন্তর্কোন্দলকে তারা প্রশ্রয় দেয় না। নিজেরা ত্যাগ স্বীকার করে হলেও দলকে কোন্দলের হাত থেকে রক্ষা করতে চায়। নকল আওয়ামী লীগ সবসময় চিন্তা করে দলের মধ্যে কোন্দল বা বিভক্তি যত থাকবে তত তাদের লাভ। এজন্য তারা বিভক্তি করেই ক্ষমতাবান হতে চায়। এজন্য তারা দলের মধ্যে সবসময় বিভক্তি তৈরি করার চেষ্টা করে।

১০. আসল আওয়ামী লীগ মনে করে আওয়ামী লীগ চিরকাল ক্ষমতায় থাকবে না, একদিন না একদিন ক্ষমতা থেকে যেতেই হবে। ক্ষমতায় যখন থাকবে না তখনও যেন আওয়ামী লীগ জনগণের আস্থা এবং ভালোবাসায় ধন্য থাকে সেই চিন্তাই তাঁদের সবসময় আপ্লুত রাখে। কিন্তু নকল আওয়ামী লীগ মনে করে যে, ক্ষমতা চিরস্থায়ী। কোনোদিন আওয়ামী লীগ ক্ষমতা থেকে চলে যাবে না। সেজন্যই তারা ক্ষমতায় থাকলে সবকিছুকেই তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে। ক্ষমতা চিরস্থায়ী মনে হওয়ার কারণে চিরকাল যেন ক্ষমতায় থাকতে পারে সেই চেষ্টা অহর্নিশ তাদের তাড়িত করে।

বাংলা ইনসাইডার

বিষয়: আ-লীগ