ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কাজ নেই আ. লীগের সিনিয়র নেতাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৭ মার্চ ২০১৯ বুধবার, ০৯:০০ পিএম
কাজ নেই আ. লীগের সিনিয়র নেতাদের

কাজ নেই আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের। কাজের জন্য তারা হা-পিত্যেশ করছেন। কাজের জন্য তারা তাকিয়ে আছেন আওয়ামী লীগ সভাপতির দিকে। কিন্তু তাদের ভাগ্যে কোন কাজ ঝুটছে না। পাচ্ছেন না কোন নির্দেশনাও যে কি কাজ করবেন। যার ফলে সিনিয়র নেতারা এটা সেটা করেই সময় কাটাচ্ছেন। একাধিক রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মনে করছেন, রাজনীতির এই শেষ লগ্নে তারা একটু মর্যাদা চান, তারা একটু গুরুত্ব চান দলের মধ্যে। কিন্তু সেটাও তারা পাচ্ছেন না। এনিয়ে তাদের হতাশা থাকলেও ক্ষোভ নেই। তারা মনে করছেন, নিশ্চয়ই আওয়ামী লীগ সভাপতি উপযুক্ত সময়ে তাদের কাজে লাগাবেন। আওয়ামী লীগের অন্যতম হেভিওয়েট নেতা উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু। দীর্ঘদিন ধরেই তিনি পর্দার অন্তরালে। তাকে সর্বশেষ আলোচনায় দেখা গিয়েছিল চকবাজারের চুড়িহাট্টায় আগুন লাগার পর। সেই সময় দীলিপ বড়ুয়া এক বক্তব্যে তাকে আক্রমন করেন এবং তিনি তার পাল্টা জবাব দেন। ব্যাস এই পর্যন্তই। এরপর তার কর্মকাণ্ড দৃশ্যমান নয়। তিনি নিজের মধ্যেই ডুবে আছেন এবং নিজের পছন্দের লোকজনের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন। দলীয় কর্মকাণ্ডে তার উপস্থিতি নেই বললেই চলে।

আওয়ামী লীগের আরেক হেভিয়েট নেতা তোফায়েল আহমেদ। তিনি অবশ্য অন্যরকম। তিনি আড়ালে যাওয়ার ব্যাক্তি নন। এরমধ্যেই তিনি নিজের কাজ নিজেই খুঁজে নিয়েছেন। প্রচুর লেখালেখি করছেন। সাম্প্রতিক সময়ে ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ, ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন এবং ২৫ মার্চ কালোরাত্রি নিয়ে তিনি ধারাবাহিকভাবে লিখেছেন এবং তার লেখাগুলো যথেষ্ঠ আলোচিত এবং প্রশংসিত হয়েছে। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সমাবেশ বা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন। কিন্তু আওয়াম লীগের দলবদ্ধভাবে তাকে কোন কাজে লাগানোর খবর পাওয়া যায়নি। এমন কোন সুনির্দিষ্ট নির্দেশনাও তাকে দেওয়া হয়নি। তোফায়েল আহমেদের মতো একজন নেতাকে কাজে লাগালে আওয়ামী লীগ ভালোই করতেন বলে মনে করেন একাধিক আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা। তবে তোফায়েল আহমেদকে নিয়ে কোন ক্ষোভ, দু:খ বা হতাশা নেই। তিনি বলেন যে, আমি আওয়ামী লীগের তোফায়েল আহমেদ এটাই আমার সবচেয়ে বড় পরিচয়। সভানেত্রী যখন মনে করবেন, তখন নিশ্চয়ই তিনি কাজে লাগাবেন।

আওয়ামী লীগের আরেক হেভিওয়েট নেতা মোহাম্মদ নাসিম। তিনি আছেন ১৪ দল নিয়ে ব্যস্ত। যদিও ১৪ দলের অবস্থা টালমাতাল। ১৪ দল এখন আধা বিরোধী ও আধা সরকারী দলে পরিনত হয়েছে।  সম্প্রতি ১৪ দলের বৈঠকে তিনি কিছু বক্তব্য দিয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন। সেখানে তিনি প্রশাসনের দাপটের সমালোচনা করেছেন।

আওয়ামী লীগের আরেক হেভিওয়েট নেতা শেখ ফজলুল হক সেলিমকে রাজনৈতিক দৃশ্যপটে একেবারেই দেখা যাচ্ছে না। সংসদের পর থেকে তিনি কোনো কর্মকাণ্ডের মধ্যে নেই। তিনি একরকম প্রাক অবসর ছুটি কাটাচ্ছেন বলেই আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কর্মীরা মনে করেন। দলের কার্যালয় বা সভাপতির অফিসেও তাঁকে দেখা যায় না।

আওয়ামী লীগের অন্যধারার নেতা বেগম মতিয়া চৌধুরী। ওয়ান ইলেভেনের সময় তিনি আলোচিত হন যে সংস্কার বিরোধী ও মাইনাস ফর্মুলার বিরুদ্ধে সোচ্চার কণ্ঠস্বর হিসেবে তিনি প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতির অত্যন্ত আস্থাভাজন এবং ঘনিষ্ঠ হয়েছিলেন। দুই মেয়াদে তিনি মন্ত্রিত্ব পাওয়ার এবার নাটকীয়ভাবে মন্ত্রিত্ব থেকে বাদ পড়েন। তারক্ষেত্রে ধারণা করা হয়েছিল যে তাঁকে সংসদ উপনেতা করা হবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সংসদ উপনেতা হিসেবে সাজেদা চৌধুরীকে বেছে নিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। যারফলে মতিয়া চৌধুরীর এখন আকুণ্ঠ অবসর। এই অবসরে তিনি পড়াশুনা করছেন এবনহ লেখালিখি করেই সময় পার করছেন বলে তাঁর ঘনিষ্ঠজনেরা জানিয়েছেন। তবে দলীয় কর্মসূচিগুলোতে তাঁর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। প্রধানমন্ত্রীর যেকোনো অনুষ্ঠানে বা কর্মসূচিতে তাঁকে দেখা যায়। কিন্তু তারও কোনো সুনির্দিষ্ট কাজ নেই।

প্রশ্ন হলো যে আওয়ামী লীগের এরকম বর্ষীয়ান, সিনিয়র এবং বিচক্ষণ নেতাদেরকে কেনো সাইডলাইনে বসিয়ে দেয়া হয়েছে? যখন ৭ই জানুয়ারি মন্ত্রীসভা গঠন করা হয়েছিল তখন বলা হয়েছিল যে, দলের জন্য কাজ করার জন্যই তাঁদেরকে সাইডলাইনে বসিয়ে দেয়া হয়েছে। কিন্ত দেখা যাচ্ছে যে, দলের কাজের দায়িত্ব তুলে দেয়া হয়েছে অপেক্ষাকৃত তরুণদের হাতেই। ওবায়দুল কাদের অসুস্থ হওয়ার পর দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন মাহাবুব আলম হানিফ। তিনিও দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে খুব একটা আলাপ আলোচনা বা পরামর্শ করছেন বলে জানা যায় না। তাহলে আওয়ামী লীগে কি সিনিয়র নেতাদের বিদায়ঘন্টা বেজে গেছে? তারা কি অবসরের জন্য প্রাক-প্রস্তুতি নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা অবশ্য তা মনে করেন না। তারা মনে করেন যে এখন দেশে রাজনীতি নেই। বিরোধী দলহীন এই রাজনীতির মাঠে তাই তারা অপাংক্তেয়। যখন সময় আসবে তখন তাঁদের ডাক পরবে। ডাক পরলে তখন তারা নিশ্চয়ই তাঁদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন।

বাংলা ইনসাইডার