ঢাকা, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

দিনে গালাগালি, রাতে গলাগলি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯ এপ্রিল ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৭:০০ পিএম
দিনে গালাগালি, রাতে গলাগলি

দিনের বেলায় আন্দোলনের হুমকি আর রাতের বেলা সরকারের সঙ্গে দেনদরবার করছেন বিএনপির নেতারা। তবে দেনদরবারের বিষয় দলীয় নয়, একান্ত ব্যক্তিগত স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়। নিজেদের মামলা, ব্যবসা ইত্যাদি নিয়ে সরকারের কাছে ধর্না দিচ্ছেন বিএনপির প্রভাবশালী নেতারা। গতরাতে ২০ দলীয় জোটের বৈঠক শেষ মধ্যরাতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দেখা করেন সরকারে একজন প্রভাবশালীর সঙ্গে। তার মামলাগুলো বাতিলের তদবির করতেই তিনি সরকারের ঐ প্রতিনিধির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি আশ্বাস দেন যে, আন্দোলন-টান্দোলন কিছু হবে না। শিগগিরই তারা পার্লামেন্টে যাবেন। দুর্নীতির মামলায় আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে আছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন। তার দুটি দুর্নীতির মামলার বিচার শেষ পর্যায়ে। সরকারের সঙ্গে দেনদরবার করেই তিনি এখনও মামলা দুটিকে ঠেকিয়ে রেখেছেন। সরকারের একজন প্রতিনিধিকে তিনি বলেছেন, ‘তারেকের ব্যাপারে চাপ দেন। আমি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হলেই সব ঠিকঠাক হয়ে যাবে।’ সরকারের বিভিন্ন মহলের সঙ্গে খন্দকার মোশারফ হোসেনের নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে। মির্জা আব্বাসের ‘ঢাকা ব্যাংক’ প্রায় হাতছাড়া হয়ে গিয়েছিলো। সরকারের কাছে একরকম মিনতি করেই ব্যাংকের মালিকানা রেখেছেন। তার স্ত্রী আফরোজা আব্বাস এখন মহিলা দলের সভাপতি হয়েছেন। সরকারকে আশ্বস্ত করেছেন যে, ‘কোন বড় আন্দোলন তিনি হতে দেবেন না।’ বিএনপিতে তার প্রভাবের কথাও তিনি সরকারকে মনে করিয়ে দেন। বিএনপির ক্যাশিয়ার বলে পরিচিত আবদুল আওয়াল মিন্টু তো সরকারের একজন প্রভাবশালী উপদেষ্টার আত্মীয়। সেই সুবাদে অগ্নি সন্ত্রাসের জন্য বিপুল অর্থ যোগানের অভিযোগের পরও, তাকে একদিনের জন্যও জেলে যেতে হয়নি। সরকারকে বিএনপির বিশেষ করে তারেক জিয়ার গোপন তথ্য সরবরাহ করেন বলে অভিযোগ আছে মিন্টুর বিরুদ্ধে। এজন্য বিএনপিতে তাকে ডাকা হয় ‘ডাবল এজেন্ট’। আবার বিএনপির কেউ গ্রেপ্তার হলে বা ঝামেলা পড়লেই মিন্টুর কাছে যায়। মিন্টুর সঙ্গে সরকারের প্রভাবশালীদের যোগাযোগ আছে, এটা বিএনপির সবাই জানে। এরকম অনেক প্রভাবশালী নেতাই আছেন, যারা সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রেখে রাজনীতি করছেন। বাইরে তারা সরকারকে গালাগালি করলেও গোপনে তাদের গলাগলি সম্পর্ক। হেভিওয়েট নেতারা মামলা থেকে বাঁচতে কিংবা ব্যবসার জন্য তদবির করলেও নীচের অনেক বিএনপির নেতারা সরকারের বিভিন্ন জনের কাছে আর্থিক সহায়তা দেন বলেও খবর পাওয়া যায়। কদিন আগে বিএনপির এক নেতার হাসপাতালের বিল মিটিয়েছেন আওয়ামী লীগের এক প্রভাবশালী নেতা। আর এসব কারণেই, বিএনপিকে কোন থ্রেট মনে করছে না আওয়ামী লীগ। আর এজন্যই, বিএনপি সরকারের কোন মাথাব্যথার কারণ নয়। বরং আওয়ামী লীগ মনে করছে, বিএনপিকে রূপান্তর করার সময় এসেছে। বিএনপি যুদ্ধাপরাধীদের থেকে আলাদা করতে হবে। তারা যেন জাতির পিতাকে স্বীকৃতি দেয় তার ব্যবস্থা করতে হবে এবং সর্বোপরি বিএনপিকে জিয়া পরিবার মুক্ত করতে হবে।

আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতা বলেছেন, ‘বিএনপি এখন সম্পূর্ণ আমাদের নিয়ন্ত্রণে। দেখুন, অপেক্ষা করুন, বিএনপিতেও জাতীয় পার্টির মতো কুরুক্ষেত্র শুরু হবে।’ অবশ্য সরকারের সঙ্গে গোপন আঁতাতের কথা অস্বীকার করছে না আওয়ামী লীগ। তবে তারা বলছে, এটা স্রেফ কৌশল।’  

 

বাংলা ইনসাইডার