ঢাকা, রোববার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আত্মীয় মুক্ত মন্ত্রিসভা কেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২ এপ্রিল ২০১৯ শুক্রবার, ০৬:০০ পিএম
আত্মীয় মুক্ত মন্ত্রিসভা কেন?

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। ২০০৮ সালে দ্বিতীয়বারের মতো ক্ষমতায় আসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার। ৭ জানুয়ারি টানা তৃতীয় মেয়াদে এবং চতুর্থবারের মতো শপথ নেন প্রধানমন্ত্রী। ২০০৮ সাল থেকেই লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, শেখ হাসনিা তাঁর আত্মীয়দের মন্ত্রীত্ব থেকে দূরে রাখছেন। ২০০৮ এবং ২০১৪ তে তাঁর বেয়াই ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশারফ হোসেন তাও মন্ত্রী ছিরেন। এবার মন্ত্রীত্ব থেকে তাকেও ছাটাই করা হয়েছে। কিন্তু আত্মীয় জন্যই রাজনীতিতে জায়গা পেয়েছেন, এমন নন অনেকেই। আওয়ামী লীগে এমন অনেক নেতাই আছেন যারা প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতির নিকট আত্মীয় ছাড়াও আলোচিত নেতা। এলাকায় এবং দেশের রাজনীতিতে তাদের প্রভাব রয়েছে। যেমন শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, ফজলে নূর তাপস। প্রশ্ন হচ্ছে, আওয়ামী লীগ সভাপতির আত্মীয় হওয়া মন্ত্রী হওয়ার ক্ষেত্রে বাধা কেন? শেখ হাসিনা কেন তাঁর কোনো কূলের আত্মীয়কেই মন্ত্রী করছেন না? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে আমরা সম্ভাব্য কিছু কারণ পেয়েছি। বাংলা ইনসাইডারের বিশ্লেষণে এই কারণগুলো এরকম-

১. বিএনপি থেকে শিক্ষা: আত্মীয়করণের পরিণাম কি হয় তাঁর সবচেয়ে বড় উদাহরণ সম্ভবত বিএনপি। ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে বেগম খালেদা জিয়া আত্মীয় স্বজনরাই দেশ চালাতেন। তাঁর ছেলে ছিলেন ছায়া প্রধানমন্ত্রী। বড় বোন মন্ত্রী, ভাই দেখতেন সেনাবাহিনী। বোনের মেয়ের জামাইও মন্ত্রিত্ব থেকে বাদ যাননি। এই আত্মীয়করণ দেশের মানুষ পছন্দ করেনি। সম্ভবত আত্মীয়করণমুক্ত মন্ত্রিসভার পেছনে এটা একটা বর কারণ।

২. জবাবদিহিতা: প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রীদের কঠোর নজরদারি এবং নির্দেশনার মধ্যে রাখেন। একজন মন্ত্রী বলেছিলেন, ‘নেত্রী আমাদের দৌড়ের উপর রাখেন। মন্ত্রীদের অনেক সময় কড়া শাসনেও রাখেন প্রধানমন্ত্রী। কোনো মন্ত্রণালয়ে কি হচ্ছে তা জানেন এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন। আত্মীয়রা মন্ত্রী হলে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর হতে কিছুটা সমস্যা হতো হয়তো। এজন্য হয়তো তাঁর এই কঠোরতা।

৩. দুর্নীতিমুক্ত ইমেজ: গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে বড় ধরণের কোনো দুর্নীতির অভিযোগ ওঠেনি। আত্মীয়রা মন্ত্রী হলে ছিদ্রান্বেষণের চেষ্টা চলতো। মিডিয়া গসিপ হতো।

৪. সরকারে ইমেজ: ক্ষমতায় থেকে আত্মীয়দের আশ্রয় প্রশ্রয় দিলে সরকারের ইমেজ নষ্ট হয়। তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে এটা স্বাভাবিক প্রবণতা। এজন্যই সম্ভবত প্রধানমন্ত্রী আত্মীয়দের দূরে রেখেছেন। এটা সরকারের জন্য ইতিবাচক হয়েছে তা বলাই বাহুল্য।

৫. ক্ষতিগ্রস্থ না হয়: দেখা যায় আওয়ামী লীগ ক্ষমতা হারালে সবথেকে ক্ষতিগ্রস্থ হন আত্মীয় স্বজনরা। বিশেষ করে তারা যদি ক্ষমতার কাছে থাকেন। ২০০১ সালের অভিজ্ঞতা তাই বলে। ওয়ান ইলেভেনেও শেখ হাসিনার আত্মীয়দের ওপর খড়গ নেমে এসেছিল। আর ৭৫ এর নারকীয় অভিজ্ঞতা তো কোনদিনই মুছে যাবার নয়। সম্ভবত আত্মীয়দের মন্ত্রীত্ব থেকে দুরে রাখার এটাও একটা কারণ।

তবে, আওয়ামী লীগ সভাপতি কেন আত্মীয়দের মন্ত্রিসভা থেকে দুরে রেখেছেন, তার আসল কারণ জানেন একমাত্র শেখ হাসিনা।

 

বাংলা ইনসাইডার