ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

উপনির্বাচন: তারেক খালেদার বিরোধ প্রকাশ্যে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ মে ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৭:০০ পিএম
উপনির্বাচন: তারেক খালেদার বিরোধ প্রকাশ্যে

বগুড়া উপনির্বাচন নিয়ে প্রকাশ্যে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া এবং তার পুত্র তারেক জিয়া। লন্ডন থেকে তারেক জিয়া বার্তা পাঠিয়েছেন যে আগামী ২৪ জুন অনুষ্ঠেয় উপ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে। একই সঙ্গে তারেক জিয়া সংরক্ষিত নারী কোটায় বিএনপি যে একজন সংসদ সদস্য পাবে তারও মনোনয়ন দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন। জানা গেছে, বগুড়া-৬ আসনের উপ নির্বাচনে এবং সংরক্ষিত নারী আসনে তারেক জিয়ার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান এবং প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী সৈয়দা শর্মিলা রহমানকে প্রার্থী দেওয়ার বিষয়টি ভাবা হচ্ছে। কিন্তু কে উপ নির্বাচন করবেন আর কে সংরক্ষিত কোটায় নির্বাচন করবেন তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। অবশ্য এরকম ভাবনাকে কল্পনাপ্রসূত বলে উড়িয়ে দিয়েছেন বিএনপির কয়েকজন নেতা। তারা বলছেন, ডা. জোবায়দা তো পাসপোর্ট জমা দিয়েছেন। স্বামীর সঙ্গে তিনি রাজনৈতিক আশ্রয়ে লন্ডনে আছেন। ভোটার তালিকায় তার নাম অন্তর্ভূক্ত নয়। তিনি কীভাবে প্রার্থী হবেন? অন্যদিকে সৈয়দা শর্মিলা তার দুই সন্তানের লেখাপড়া রেখে এখন দেশ রাজনীতিতে জড়াতে চান না। বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, ফখরুলের শপথ না নেওয়ার কারণ ছিল বগুড়ার অভ্যন্তরীন রাজনীতি। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিএনপির মহাসচিব হলেও বগুড়ায় তার গ্রহণযোগ্যতা নেই। তিনি যদি শপথ নিতেন তাহলে বগুড়া বিএনপিতে বিদ্রোহ দেখা দিতো। এ কারণেই তাকে শপথ গ্রহণ থেকে বিরত রাখা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, বগুড়া- ৬ আসনে স্থানীয় কাউকে মনোনয়ন দিয়ে, বিএনপির ঘাটিকে শক্তিশালী করার উদ্যোগ নেয়া হবে। আর সংরক্ষিত নারী কোটায় এখন সক্রিয় কোন নারী নেত্রীকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।

কিন্তু তারেক জিয়ার এই সিদ্ধান্ত যখন বিএসএমএমইউ-তে চিকিৎসাধীন বেগম জিয়ার কাছে পৌছে তখন তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তিনি বলেন,‘ এই উপনির্বাচন করে কি হবে? এতে বিএনপির কি লাভ হবে!’ গতরাতেই বেগম জিয়ার বার্তা নিয়ে বিএনপিপন্থী একজন চিকিৎসক স্থায়ী কমিটির নেতাদের সঙ্গে কথা বলেন। কিন্তু স্থায়ী কমিটির দুজন সদস্য ঐ চিকিসককে বলেন‘, বিএনপিতে কিভাবে সিদ্ধান্ত হয় তার কিছুই আমরা জানি না। এখন যা হচ্ছে তা স্রেফ আত্মঘাতি।’ তারা এব্যাপারে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে কথা বলেন। মির্জা ফখরুল গতকাল ছিলেন ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে। সেই বৈঠকেই চিকিৎসক বেগম জিয়ার বার্তা পৌঁছে দেন। বেগম জিয়ার মনোভাবের সংগে একমত পোষণ করলেও মির্জা ফখরুল বলেন ‘ আমার এ ব্যাপারে কিছু করার নেই। তারেক সাহেবের নির্দেশই বিএনপিতে শেষ কথা। এটা না মেনে উপায় কি? ঐ চিকিৎসক মির্জা ফখরুলকে বলেন ‘ আপনি কার বিএনপি করেন ম্যাডামের না তারেক সাহেবের?’ উত্তরে মির্জা ফখরুল বলেন ‘ বিএনপি যখন দুটো হবে, তখন আমি রাজনীতিই ছেড়ে দিব। এখনও রাজনীতি করছি, বিএনপিকে অখণ্ড রাখতেই।‘ কিন্তু একাধিক সুত্র বলছে, এবার বেগম জিয়া উপনির্বাচনের ব্যাপারে অনড় অবস্থানে রয়েছেন। তাই বিএনপিতে বগুরা-৬ উপনির্বাচন নিয়ে নতুন নাটক আসন্ন।

 

বাংলা ইনসাইডার