ঢাকা, সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

শেখ হাসিনার বলয় চ্যুত কজন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ মে ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৮:০০ পিএম
শেখ হাসিনার বলয় চ্যুত কজন

আওয়ামী লীগ সভাপতি তার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেকের উপর আস্থা রেখেছিলেন। অনেককে বিশ্বাস করে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে দিয়েছিলেন। কিন্তু দায়িত্ব প্রাপ্তরা কেউ কেউ আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি। বিশ্বাসের মর্যাদা রাখতে পারেননি। এজন্য তারা শেখ হাসিনার বলয় থেকে চ্যুত হয়েছেন। এখন তারা আওয়ামী লীগ সভাপতির কাছের মানুষ নেই, অথচ এক সময় আওয়ামী লীগ সভাপতির আস্থাভাজন এজন্য সরকার এবং রাজনীতিতে প্রচন্ড ক্ষমতাবান হয়ে উঠেছিলেন। এরকম কয়েকজনকে নিয়ে এই প্রতিবেদন:

ডা: এস. এ. মালেক: ১৯৮১-তে স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর শেখ হাসিনা যাদের উপর সব থেকে বেশি নির্ভর করতেন তাদের অন্যতম ডা: এস. এ মালেক। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বড় নেতা না হলেও শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ হিসেবে তিনি দলে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন। ৯৬ সালে দীর্ঘ ২১ বছর পর ক্ষমতায় এলে ডা: এস. এ মালেক প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা মনোনিত হন। এ সময় তিনি ছিলেন দুর্দান্ত ক্ষমতাবান। কিন্তু ২০০১ সালের পর থেকে আওয়ামী লীগ সভাপতির আস্থা হারাতে থাকেন। ওয়ান ইলেভেনে তার ভূমিকা রহস্যকৃত। এখন তিনি শেখ হাসিনার কাছের মানুষ নন। কেন নন, সেও এক রহস্য।

ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর: ড. আলমগীরকে শেখ হাসিনা যতো সুযোগ দিয়েছেন এতো সুযোগ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে কেউ পাননি। ‘জনতার মঞ্চে’র বিনিময়ে তিনি প্রথমে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সচিব হন, ১৯৯৬ সালে। এরপর আওয়ামী লীগ সভাপতি তাকে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী করেন। ২০০৯ সাল থেকে আওয়ামী লীগ টানা ১০ বছর ক্ষমতায়। এর মধ্যে কি পাননি ড. আলমগীর? মন্ত্রীত্ব পেয়েছেন, ব্যাংক পেয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয় পেয়েছেন। কিন্তু এতো প্রাপ্তির একটিও ‘সফল’ হিসেবে দেখাতে পারেননি। তাই এখন তিনি কক্ষ্যচ্যুত।

আবু আলম শহীদ খান: আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হয়ে যেক’জন সরকারী কর্মকর্তার উপর নির্ভর করতেন তাদের একজন ছিলেন আবু আলম শহীদ খান। প্রথমেই তিনি ডেপুটি প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর বিএনপি আমলে একটি দুর্নীতি মামলায় তার নাম চার্জশীটে থাকায় তিনি সাসপেন্ড থাকেন। কিন্তু এরপরও আওয়ামী লীগ সভাপতির অন্যতম আস্থাভাজন ছিলেন আবু আলম। সাপ্তাহিক বিচিত্রারও দায়িত্ব দেওয়া হয় তাকে। ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সভাপতির সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করছেন। এরপর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে সরকারী চাকরিতে যোগ দেন উপসচিব হিসেবে। ম্যাজিকের মতো তিনি সচিব হন। স্থানীয় সরকারে সচিব হিসেবে তিনি কর্মঠ, চটপটে হিসেবে পরিচিত ছিলেন। কিন্তু ২০১৩ সালে তার সঙ্গে দূরত্ব তৈরী হয় আওয়ামী লীগ সভাপতির। তাকে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।  যিনি একজন সততার প্রতীক রাজনীতিবীদ হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী এই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন। অনেকেই বলেন, ২০১৪- এর নির্বাচনের আগে সিটি নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত ছিলো আবু আলম শহীদ খানের। ঐ নির্বাচনে ৫ টিতেই আওয়ামী লীগ হেরে যায়। সারাদেশে বিএনপির একটা জেয়ার তৈরী হয়েছিল। আবু আলম শহীদ খানের কক্ষ্যচ্যুত হবার এটি একটি বড় কারণ। তবে তার পক্ষে কোন সাক্ষ্য প্রমান নেই।

যেমন সাক্ষ্য প্রমান নেই, কেন ড: এস. এ সামাদকে প্রধানমন্ত্রী তার বলয়ে স্থান দেননি। অথচ ১৯৯৬-২০০১ সালে ড. সামাদ ছিলো প্রধানমন্ত্রীর সবচেয়ে আস্থাভাজন আমলা। এমন অনেক নক্ষত্রের পতন হয়েছে, এটাই হয়তো রাজনীতির চমক, যার কোন কারণ কেউ মানে না, যার ব্যাখ্যাও নেই।


বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ