ঢাকা, বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

জাপায় ঝুঁকছে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৮ মে ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৭:০০ পিএম
জাপায় ঝুঁকছে বিএনপি

এখন অস্তিত্ব রক্ষার জন্য জাতীয় পার্টির দিকে ঝুঁকছে বিএনপি। বিএনপির রাজনিতিতে এখন টালমাটাল অবস্থা চলছে। ২০ দল আছে কি নাই, বিএনপির অধিকাংশ নেতারাই জানেন না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যাপারেও একই অবস্থা। এরকম একটি হ য ব র ল রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিএনপি এখন নতুন বন্ধু খুঁজছে। পুরনো বন্ধুদের নিয়ে কোনো কাজের কাজ হবে না বলেই মনে করছে লন্ডনে পলাতক দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। এজন্যই নতুন মিত্রের সন্ধানে নেমেছে বিএনপি।

বিএনপি মনে করছে যে, ভোটের ব্যাংকে জাতীয় পার্টির ভালো ভোট রয়েছে এবং জাতীয় সংসদে যেহেতু জাতিয় পার্টি এখন বিরোধী দল। তাই জাতীয় পার্টির সঙ্গে ঐক্য গড়লে সংসদের ভেতরে ও বাইরে সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করা যেতে পারে। তবে বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা এ ধরনের উদ্যোগকে আরেকটি আত্মঘাতী তৎপরতা হিসেবে মনে করছেন। উল্লেখ্য যে, বেগম খালেদা জিয়া ২০০১ সাল থেকে প্রথমে চার দলীয় ঐক্যজোট এবং পরে ২০ দলীয় ঐক্য জোট গড়েছেন। ২০ দলীয় ঐক্যজোট বিএনপির একটা আদর্শিক জোট হিসেবেই পরিচিত ছিল। কিন্তু গত বছরের নির্বাচনের আগে লন্ডন থেকে তারেক জিয়ার প্রেসক্রিপশনে ২০ দলীয় জোটের বাইরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয়। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে বিএনপি থাকলেও তার নেতা নির্বাচিত করা হয় ড. কামাল হোসেনকে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বেই বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং নির্বাচনে তাদের শোচনীয় ভরাডুবি হয়। এরপর বিএনপির মধ্য থেকেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বাদ দিয়ে শুধু ২০ দলকে শক্তিশালী করার ব্যাপারে চাপ সৃষ্টি হয়।

বেগম খালেদা জিয়া কারাগার থেকে বলেছিলেন যে, ২০ দলীয় জোট থাকবে বরং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রয়োজনীয়তা আছে কিনা তা ভেবে দেখতে হবে। কিন্তু জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেনের পরামর্শেই শেষ পর্যন্ত বিএনপির পাঁচ জন সংসদ সদস্য (মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া) সাংসদ হিসেবে শপথ নিয়েছেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগির তারেকের প্রেসক্রিপশনে ঘোষণা করেছেন যে, সংসদের ভেতরে এবং বাইরে আন্দোলন করবেন। সংসদের ভেতরে মাত্র পাঁচজন সংসদ সদস্য নিয়ে আন্দোলন করার মতো অবস্থা যে বিএনপির নেই সেটা বোঝার জন্য বিশেষজ্ঞ হওয়ার দরকার পড়ে না।

আবার গণফোরাম থেকে যে দুজন নির্বাচিত হয়েছেন সুলতান মোহাম্মদ মনসুর এবং মোকাব্বির খান তারা কেউই বিএনপির সঙ্গে তাল মিলিয়ে সংসদে কাজ করবে এমনটি ভাবছেন না বিএনপির নীতি নির্ধারকরাও। এর ফলে বিএনপিকে নতুন মিত্রের সন্ধান করতে হচ্ছে। এরশাদ যেহেতু অসুস্থ, সেজন্য এখন জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হয়েছেন জি এম কাদের। জি এম কাদেরের সাথে দীর্ঘদিন ধরেই বিএনপির একটা গোপন যোগাযোগ ছিল। ২০১৪ সালে বিএনপি যখন নির্বাচন বয়কট করেছিল, জিএম কাদেরও সেই দলে ছিলেন।

জিএম কাদের সরকারের ব্যর্থতাসহ বিভিন্ন বিষয়ের কঠোর সমালোচক। তাছাড়া রাজনীতিতে এরশাদের মতো কোনো ভাড়ামীপূর্ণ ইমেজ তার নেই। বরং তার ইমেজটা অনেক স্বচ্ছ এবং সৎ রাজনীতিবিদ হিসেবে তিনি জনগণের কাছে পরিচিত। এই সুযোগটা কাজে লাগাতে চাইছে বিএনপি।

বিএনপির তারেকপন্থিরা মনে করছে, ২০ দল এখন অকার্যকর। এই জোটের দলগুলর শক্তি সামর্থ নেই বললেই চলে। আর জামাত সঙ্গে থাকায় আন্তর্জাতিক সাহায্য সহযোগিতা বিএনপি পাচ্ছে না। এও বাস্তবতায় ২০ দলকে অকার্যকর রেখেই বিএনপি আলাদাভাবে চলতে চায়।

অন্যদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিজেরাই এখন বিভক্ত। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আপনাআপনিই বিলুপ্ত হয়ে যাবে বলে বিএনপি মনে করছে। এ অবস্থায় সংসদের ভেতরে ও বাইরে আন্দোলন করার জন্য জাতিয় পার্টির দ্বারস্থ হতে চাইছে বিএনপি। কিন্তু প্রশ্ন হলো যে, বেগম খালেদা মুক্তির ব্যাপারে জাতীয়পার্টির অবস্থান স্পষ্ট নয়। এ ব্যাপারে ভেতরে ভেতরে তারা সহানুভূতিশীল হলেও প্রকাশ্যে কথা বলতে রাজি না। খালেদা জিয়ার মুক্তির ইস্যু ছাড়া জাতীয় পার্টির সঙ্গে বিএনপি নতুন করে ঐক্য করলে সেটা কতটুকু কার্যকর হবে সে প্রশ্ন রয়েছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ২০ দলীয় জোট আছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টও আছে। আমরা অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গেও ঐক্য করবো। আমরা আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে একটা জাতীয় ঐক্যমত তৈরি করতে কাজ করছি। যত বিলম্বেই হোক, সেটা আমরা করবো একদিন। তবে এরকম ঐক্য প্লাটফর্ম করলে সেখানে নেতা কে হবে এবং সেটা কী কী ইস্যুতে কাজ করবে সেসব বিষয় অস্পষ্ট রেখে এরকম প্লাটফর্ম রাজনীতিতে মোটেও কার্যকর হবে না বলে মনে করছে বিএনপির নেতৃবৃন্দ। এখন বিএনপি আন্দোলন এবং খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রশ্নে কোন পথে যায় সেটাই দেখার বিষয়।

বাংলা ইনসাইডার