ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

ড. কামালে বিরক্ত মান্না! 

বিশেষ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১১ জুন ২০১৯ মঙ্গলবার, ১১:০৮ এএম
ড. কামালে বিরক্ত মান্না! 
জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট্রের ওপর ত্যক্ত বিরক্ত নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। বিশেষকরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এর শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের নানাবিধ কর্মকান্ডে বিক্ষুব্দ তিনি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সরকার বিরোধী জোট গঠনে অনুঘটকের ভূমিকা পালন করেন মান্না। বিশেষকরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে একঘরে করতে মান্না আওয়ামী লীগ বিরোধীদের এক প্লাটফর্মে আনার জন্য অন্যতম কুশীলবের ভূমিকায় ছিলেন। নানা টানাপোড়েন শেষে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপিকে সাথে নিয়ে গঠন করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। যদিও জামায়াতে ইসলামী ইস্যুতে তখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতারা ছিলেন দ্বিধা-বিভক্ত। তারপরেও জামায়াতে ইসলামীকে আলোচনার এক কোনে রেখে বিএনপির সাথে নির্বাচন এবং রাজপথমুখী আন্দোলনে একসাথে কাজ করার অঙ্গিকার করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনে বিএনপির নীতি-নির্ধারকেরা মান্নাকে কাজে লাগান। আওয়ামী লীগ বিরোধীদের এক মঞ্চে হাজির করা হয়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটকে গুরুত্বহীন করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে প্রাধান্য দেয়া হয়। নির্বাচনে মনোনয়নেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। রাজধানী ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ আসনগুলোতেও বিএনপিকে অবজ্ঞা করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট্রের ভূঁইফোড় নেতাদের মনোনয়ন দেয়া হয়। যদিও সে সময় মনোনয়ন দেয়াকে কেন্দ্র করে বিএনপি তথা ২০ দলীয় ঐক্যজোটের সাথে ঠান্ডালড়াই শুরু হয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের। এতকিছুর পরেও নাগরিক ঐক্যের আহ্ববায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না নিজেকে মানিয়ে নেবার চেষ্টা করেন। নির্বাচনের পরেও সবাইকে এক ছাতার নিচে নিয়ে সরকার বিরোধী আন্দোলনেও সোচ্চার থাকতে চেয়েছিলেন মান্না। তবে ড. কামাল হোসেনের একগুয়েমী মনোভাবের কারণে আপাতত নিজ অবস্থানেই থাকতে চান তিনি। সোমবার অনুষ্ঠেয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সভায় যাননি মান্না। মান্নার একান্ত ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, মান্না ভাই প্রয়োজনে একা পথ চলবেন। ত্বিধা-দ্বন্ধের রাজনীতিতে তিনি থাকতে চাননা। বিশেষকরে গনফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের কর্মকান্ডে চরম বিরক্ত আওয়ামী লীগের সাবেক এ সাংগঠনিক সম্পাদক। এবিষয়ে বাংলা ইনসাইডারের পক্ষ থেকে মাহমুদুর রহমান মান্নার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার সেলফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।