ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আমলাদের সঙ্গে লড়াই চলছে উপদেষ্টাদের?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৭ জুন ২০১৯ সোমবার, ০৯:০০ পিএম
আমলাদের সঙ্গে লড়াই চলছে উপদেষ্টাদের?

টানা তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকারে ক্রমাগতই আমলাদের মধ্যে ক্ষমতার লড়াই দৃশ্যমান হচ্ছে। আমলাদের কাছে ক্রমশ কোনঠাসা হয়ে পড়া উপদেষ্টারা এখন কর্তৃত্ব ফিরে পেতে প্রানন্ত চেষ্টা করছেন বলে আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পরে উপদেষ্টা মন্ডলী গঠন করে। প্রথম মেয়াদে উপদেষ্টা মন্ডলী ছিল অত্যন্ত শক্তিশালী এবং মন্ত্রী পরিষদের চেয়েও উপদেষ্টামণ্ডলীর ক্ষমতা এবং কর্তৃত্ব অনেক বেশি ছিল। উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্যরা কেবিনেট মিটিংয়ে উপস্থিত থাকতেন। পরে এনিয়ে সংসদে প্রশ্ন করেন মন্ত্রী পরিষদে থাকা দলের হেভিওয়েট নেতারা। উপদেষ্টারা মন্ত্রিসভায় থাকার যৌক্তিকতা নিয়ে সমালোচনা করেন। তারা বলেন যে, উপদেষ্টারা যেহেতু শপথ গ্রহণ করেন না। গোপনীয়তার শপথ পাঠ করেন না। সেজন্য তাদের মন্ত্রিসভায় থাকার যৌক্তিকতা নেই। এই বাস্তবতায় মন্ত্রিসভার বৈঠক থেকে উপদেষ্টাদের বাদ দেওয়া হয়। বাদ দেওয়া হলেও সে সময় সিদ্ধান্ত গ্রহণের কেন্দ্রে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা মণ্ডলী। দ্বিতীয় মেয়াদে হেভিওয়েট নেতারা মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভূক্তি হলে উপদেষ্টা মণ্ডলীর ক্ষমতা এবং কর্তৃত্ব কিছুটা হলেও খর্ব হয়। তারপরও উপদেষ্টা মণ্ডলী কিছু কিছু গুরুত্বপূর্ণ নীতি নির্ধারনী বিষয়ে  আগের মতোই গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন। তৃতীয় মেয়াদে এসে উপদেষ্টা মণ্ডলীর ক্ষমতা খর্ব করছেন মন্ত্রীরা নয়, বরং আমলারা। জানা গেছে, উপদেষ্টা মণ্ডলীর সামরিক বিষয়ক উপদেষ্টা জেনারেল তারেক আহমেদ সিদ্দীকি ছাড়া অন্য উপদেষ্টাদের সঙ্গে আমলাদের নীতি নির্ধারণী বিষয় এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ায় মত ভিন্নতা তৈরী হচ্ছে। এক্ষেত্রে কয়েকজন আমলার নাম উঠে আসছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব এসডিজি বিষয়ক সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান, প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রশাসন সচিব ফয়েজ আহমেদরা এখন প্রধানমন্ত্রীকে এখন অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং নীতি নির্ধারনী বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এদের ক্ষমতা মন্ত্রীদের চেয়ে বেশি বলেও সরকারের মধ্যে গুঞ্জন শোনা যায়। প্রধানমন্ত্রী অনেক নীতি নির্ধারনী বিষয়ে মন্ত্রীদেরকে আড়ালে রেখে এই গুটিকয়েক আমলার সঙ্গে পরামর্শ করেন বলেও বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে। এর ফলে উপদেষ্টারা উপেক্ষিত হচ্ছেন বলেও সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে।

উপদেষ্টাদের মধ্যে রাজনৈতিক এবং নীতি নির্ধারণী বিষয়ে যিনি সম্পৃক্ত তিনি হলেন এইচ টি ইমাম। এইচ টি ইমাম এই মেয়াদে এসে আমলাদের কাছে প্রায় কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়েও এইচ টি ইমামের পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে না বলেও একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

অন্যদিকে অর্থনীতি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান গত মেয়াদেও প্রধানমন্ত্রীর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শদাতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। কিন্তু দ্বিতীয় মেয়াদে এসে তিনিও আমালাদের সঙ্গে দৌড়ে পিছিয়ে পড়েছেন বলে বিভিন্ন মহল থেকে পাওয়া খবরে জানা গেছে।

অন্যদিকে ড. গওহর রিজভীর ভূমিকা আগের মত থাকলেও নীতি নির্ধারনী ক্ষমতার দৌড়ে পররাষ্ট্র সচিব অনেকটা এগিয়ে গেছেন বলে বিভিন্ন সূত্রের খবরে জানা যায়। এরফলে সরকারে আমলা এবং উপদেষ্টাদের ঠাণ্ডা লড়াইয়ের খবর পাওয়া যাচ্ছে। অবশ্য বিভিন্ন মহল মনে করছে এটা আমলা এবং উপদেষ্টাদের সঙ্গে ঠান্ডা লড়াই না, এটা সাবেক আমলাদের সঙ্গে বর্তমান আমলাদের লড়াই। এই লড়াইটি সবসময় ক্ষমতাসীন দলের মধ্যে একটি চিরন্তন বিষয়। কারণ সাবেকরা সমসময় নীতি নির্ধারনী ব্যাপারে ভূমিকা রাখতে চান কিন্তু নতুনরা একটি পরিমন্ডল তৈরি করে থাকনে যে পরিমণ্ডলে তাঁদের প্রবেশগমতা ক্রমশ হ্রাস পায়। টানা ক্ষমতায় থাকার ফলে বর্তমান আমলাদের কৌশলের কাছে হেরে যাচ্ছে সাবেক আমলারা।

বাংলা ইনসাইডার