ঢাকা, রোববার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগের তৃণমূলে চাঞ্চল্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার, ১০:০০ পিএম
আওয়ামী লীগের তৃণমূলে চাঞ্চল্য

শুদ্ধি অভিযান, আওয়ামী লীগের বহিরাগতদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান এবং সর্বপরি দলের কাউন্সিলকে ঘিরে আওয়ামী লীগের তৃণমূলে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে দলে যারা ত্যাগী পরীক্ষিত এবং যারা দীর্ঘদিন ধরে অনাদরে অবহেলায় ছিলেন। বিশেষ করে যে সমস্ত নেতাকর্মীরা দলে সুবিধাবাদীদের ভিড়ে প্রায় কোনঠাসা হয়ে পড়েছিলেন। তারা এখন সক্রিয় হয়েছেন এবং তাদের পদচারণায় মুখরিত হয়েছে স্থানীয় পর্যায়ের আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এটাকেই আওয়ামী লীগের প্রাণশক্তি বলে অবিহিত করেছেন। বাংলা ইনসাইডারের কাছে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, তৃণমূলই হলো আওয়ামী লীগের প্রাণ এবং আওয়ামী লীগের মূল শক্তি। তারা যেন দলীয় কর্মকাণ্ডে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে সেজন্য প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের ত্যাগি পরীক্ষিতদের সামনে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগে যারা দূষিত রক্ত তাদের বের করে দিয়ে দলে সুষ্ঠু এবং সুন্দর নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমেই এই কাউন্সিলে আওয়ামী লীগ নতুন রুপে আত্মপ্রকাশ করবে।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, আওয়ামী লীগের তৃণমূল যেন শক্তিশালী হয় ও ত্যাগী পরীক্ষিতরা যেন জায়গা পায় সেজন্য একাধিক বৈঠক করা হচ্ছে। তিনমাস ধরে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে এ সমস্ত কাজ চলছে। এর মধ্যে যে সমস্ত ব্যবস্থাগুলো নেওয়া হয়েছে তার হলো;

১. যারা দলের ভেতরে থেকে বিভিন্ন অপকর্ম করেছে তাদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান। যারা দুর্নীতি সন্ত্রাসসহ বিভিন্ন অপকর্মের সঙ্গে জড়িত তাদের চিহ্নিতে করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এর ফলে দলে যারা সৎ, নিষ্ঠাবান তারা সামনে চলে এসেছে।

২. ২০০৯ সালের পর যারা আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছে। বিশেষ করে জামাত শিবির থেকে যার আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছে তাদেরকে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং আওয়ামী লীগর একজন সাংগঠনিক সম্পাদক বলেছেন, প্রায় পনেরোশো অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করা হয়েছে। কাউন্সিলে তাদের কোন পদ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গঠনতন্ত্র প্রক্রিয়ায় তাদেরকে দল থেকে বের করে দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

৩. যে সমস্ত নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সংকটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। বিশেষ করে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, ওয়ানে ইলেভেনের সময় যারা দলের জন্য কাজ করেছে অথচ ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর যারা দলে কোনঠাসা হয়ে পড়েছে তাদেরকে সামনে নিয়ে এসে নেতৃত্ব দেওয়া হবে।

৪. স্থানীয় পর্যায়ের নেতৃত্বে মন্ত্রী এমপি এবং চেয়ারম্যানদের খবরদারি বন্ধ করা এবং তারা যেন কমিটিতে না থাকে এবং কমিটি গঠনে যেন প্রভাব বিস্তার না করে সে ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সভাপতি কঠোর বার্তা দিয়েছেন। যার কারণে আওয়ামী লীগে যারা মন্ত্রী এমপি বা উপজেলা চেয়ারম্যান হতে পারেননি তাদের সামনে নেতৃত্ব পাওয়ার পথ উম্মোচিত হয়ে গেছে।

৫. সারাদেশে আওয়ামী লীগে ত্যাগী পরীক্ষিত এবং সৎ নেতাদের তালিকা প্রণয়নের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে। এই তালিকা প্রণয়ন করা হলে দলে যারা অবহেলিত অবস্থায় ছিলেন অথচ সৎ নিষ্ঠাবান তারা সামনে আসবেন।

আওয়ামী লীগ মনে করছে যে, আওয়ামী লীগর কর্মীর অভাব নেই এবং ত্যাগী পরীক্ষিত কর্মীরাই আওয়ামী লীগের প্রাণশক্তি। সে কারণেই আগামী ২০ এবং ২১ ডিসেম্বর কাউন্সিলের আগেই আওয়ামী লীগকে পরিচ্ছন্ন করার এই পদক্ষেপগুলো নেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, এর ফলে আওয়ামী লীগের তৃণমূলে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।  উৎসবের আমেজ তৈরী হয়েছে। বিশেষ করে এ যাবৎ যারা কিছুই পাননি বঞ্চিত বলে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছিলেন তারা এখন সক্রিয় হয়েছেন। এরফলে সাংগঠনিকভাবেও আওয়ামী লীগ অনেক শক্তিশালী হবে বলে বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা মনে করছে।