ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে এখনই অ্যাকশন নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২০ শনিবার, ০৬:০০ পিএম
বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে এখনই অ্যাকশন নয়

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রধান মাথাব্যথার কারণ হচ্ছে কাউন্সিলর পদে যাদেরকে মনোনয়ন দিয়েছে তাদের মনোনয়নের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থীর দাঁড়ানো। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে প্রাপ্ত তথ্যে দেখা গেছে, আওয়ামী লীগের হিসেব অনুযায়ী উত্তরে ৫৪টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৪০টিতেই বিদ্রোহী প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অন্যদিকে দক্ষিণে ৭৫টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৭২টিতেই বিদ্রোহী প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের জন্য ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছিল। গতকাল এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখনই বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করার নির্দেশনা দিয়েছেন। আর নির্বাচনের পর বিষয়টা দেখা যাবে বলে আওয়ামী লীগ সভাপতি দলের নেতৃবৃন্দকে জানিয়ে দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, স্থানীয় সরকার আইন অনুযায়ী মেয়র পদেই দলীয় প্রতীক নৌকা দেওয়া হয়। ওয়ার্ড কাউন্সিলররা কোনো দলীয় প্রতীক পান না। তারদেকে দলগুলো সমর্থন করে। আওয়ামী লীগ যে সমস্ত প্রার্থীদেরকে সমর্থন দিয়েছে তাদের তালিকা ইতোমধ্যেই আওয়ামী লীগের ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো বলছে যে, অধিকাংশ স্থানে এমপিরা তাদের পছন্দের প্রার্থীরা কাউন্সিলর পদে দলীয় সমর্থন না পাওয়ায় বা আওয়ামী লীগের পছন্দের প্রার্থী না হওয়ার তাঁরা তাদের মতো করে পছন্দের প্রার্থীকে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। এমপিদের সমর্থন থাকার কারণে ওই সমস্ত প্রার্থীরা কোনো অবস্থাতেই সরে যাচ্ছে না।

আওয়ামী লীগের দুই মেয়র প্রার্থীই অভিযোগ করেছেন যে, একাধিক কাউন্সিলর প্রার্থী থাকার কারণে তাদের প্রচারণায় বিঘ্ন ঘটছে। আওয়ামী লীগ স্থানীয়ভাবে ওয়ার্ড পর্যায়ে বিভক্ত হয়ে পড়ছে। কারণ বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে যেমন আওয়ামী লীগের একটি অংশ কাজ করছে, তেমনি আরেকটি অংশ কাজ করছে দল সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে। এ অবস্থায় বিদ্রোহী প্রার্থীদের বসিয়ে দেওয়া এবং তারা যেন নির্বাচনী প্রচারণা থেকে সরে দাঁড়ায় সেজন্যে আওয়ামী লীগ চেষ্টার কোনো কমতি রাখেনি। কিন্তু যেহেতু প্রত্যেক বিদ্রোহী প্রার্থীর পেছনেই গডফাদার রয়েছেন, যারা অধিকাংশই স্থানীয় এমপি বা স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, তাই তারা সরে যাননি। এ অবস্থায় বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে বিব্রতিকর পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগের করণীয় নিয়ে গতরাতেই দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলেন সিনিয়র নেতৃবৃন্দ।

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কৌশলগত কারণে এখন বিদ্রোহীদের ব্যাপারে নমনীয় অবস্থানে থাকার নির্দেশনা দেন। কারণ যদি এখন বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয় তাহলে হিতে বিপরীত হতে পারে বলে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা মনে করছেন। কারণ বিদ্রোহীদের বহিস্কার করা হলে তারা আরও বেপরোয়া হয়ে কাজ করতে পারে। এটার ঢেউ দুই মেয়রের উপরও আছড়ে পড়তে পারে।

দ্বিতীয় যে বিষয়টি হচ্ছে তা হলো, বিদ্রোহী প্রার্থীদেরকে এই বার্তা দেওয়া হচ্ছে, যেভাবেই যে অবস্থান থেকে তারা নির্বাচন করুক তারা যেন মেয়রের নৌকা প্রতীকের পক্ষে কাজ করেন। বিদ্রোহী প্রার্থীরা এ ব্যপারে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন বলেও একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে এখনই ব্যবস্থা গ্রহণ না করার আরেকটি কারণ হচ্ছে সংগঠন যেন দুর্বল না হয়ে পড়ে। নির্বাচনের সময় এমন দুর্বল হলে সংগঠনের মধ্যে এক ধরণের মেরুকরণ হয় ফলে সংগঠনের একটি অংশ দলীয় কার্যক্রম থেকে নিজেদের গুটিয়ে ফেলে। কাজেই এখনই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে না।

আওয়ামী লীগ মনে করছে যে, নির্বাচনে যারাই বিজয়ী হোক না কেন তারাই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে কাজ করছে। কারণ এখানে আওয়ামী লীগকে অনেকে সমর্থন দিয়েছে কিন্তু দলীয় প্রতীক নিয়ে তারা নির্বাচন করছেন না। স্থানীয় সরকার নির্বাচনের সময়ও আওয়ামী লীগ এমন অবস্থান গ্রহণ করেছিল এবং সেরকম অবস্থানে ইতিবাচক ফলাফল পেয়েছিল।

আওয়ামী লীগ মনে করছে যে, দলীয় প্রার্থীদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করলে তাদেরকে আর কখনোই আওয়ামী লীগে ফিরিয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হবে না। তারা যদি কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হয় সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগে ফিরে আসা তাদের জন্য কঠিন হয়ে যাবে। কিন্তু তাদের প্রতি যদি নমণীয় থাকা হয় এবং তাদেরকে উপেক্ষা না করা হয় তাহলে বিজয়ী হওয়ার পর তারা আওয়ামী লীগে ফিরে আসতে পারবে। আওয়ামী লীগার হিসেবে রয়ে যেতে পারবে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো, ওয়ার্ড কাউন্সিলররা যদি নৌকার প্রচারে কাজ করতে পারে তাহলে আওয়ামী লীগের প্রচারণা আরো বাড়বে। এই সমস্ত বিবেচনা থেকেই আওয়ামী লীগ বিদ্রোহীদের ব্যাপারে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা থেকে সরে এসেছে।