ঢাকা, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগে কমিটি জট

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৮ জানুয়ারি ২০২০ শনিবার, ০৭:০০ পিএম
আওয়ামী লীগে কমিটি জট

আওয়ামী লীগের অঙ্গ সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর সম্মেলন হয়েছে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলের আগে। কিন্তু জাতীয় কাউন্সিলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হলেও আওয়ামী লীগের অঙ্গ সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর পূর্ণাঙ্গ কমিটি এখনো ঘোষিত হয়নি।

সর্বশেষ তথ্যে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা মনে করছে আগামী সিটি নির্বাচনের পর পর্যায়ক্রমে এই কমিটিগুলো ঘোষণা করা হবে। আর নিরবে কমিটি গঠনের কাজ চলছে বলে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা জানিয়েছেন।

কিন্ত এই সমস্ত কমিটি গঠন না হওয়ার ফলে আওয়ামী লীগের তৃণমূল এবং মাঠ পর্যায়ে হতাশা বিরাজ করছে। বিশেষ করে সিটি নির্বাচনে নেতৃত্বহীন হয়ে পড়েছে স্থানীয় পর্যায়ের ওয়ার্ডগুলো।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে গেল বছরের ২১ ডিসেম্বর। তার আগেই আওয়ামী যুবলীগের কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। স্বেচ্ছা সেবক লীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ ও মহিলা লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের উত্তর-দক্ষিণের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় কাউন্সিলের আগেই। কিন্তু সেই সময় জাতীয় কাউন্সিলের কারণে এই সমস্ত অঙ্গ সহযোগী সংগঠনগুলোর পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়নি। সে সময় বলা হয় কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের পরেই এই কমিটিগুলো ঘোষণা করা হবে। কিন্তু কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হওয়ার পরপরই শুরু হয়েছে ঢাকা উত্তর এবং দক্ষিণের সিটি কর্পোরেশনের কার্যক্রম। যে কারণে এখনো পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়নি।

আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষ স্থানীয় নেতা বলেছেন, এই কমিটিগুলোর খসড়া তৈরির কাজ চলছে। বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করে খসড়া কমিটি তৈরির কাজ প্রাধানমন্ত্রীর কাছে জমা দিতে বলা হয়েছে। প্রত্যেক সম্মেলন সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে কমিটির নাম দিতে বলা হয়েছে। সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক এখন পূর্ণাঙ্গ কমিটির একটি খসড়া জমা দেবেন। কিন্তু নেতৃত্ব থেকে শুধুমাত্র গাইডলাইন জমা দেওয়া হয়েছে, আর এ ব্যাপারে যে নির্দেশনাগুলো জমা দেওয়া হয়েছে তা হলো;

১। যারা বিগত কমিটিতে বিতর্কিত ভূমিকা পালন করেছে, যাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির অভিযোগ ছিল তাদেরকে নতুন কমিটিতে রাখা হবে না।

২. ছাত্রলীগ থেকে যারা সফলভাবে দায়িত্ব শেষ করেছেন তাদেরকে কমিটি গঠনে প্রাধান্য দেওয়া হবে।

৩. অন্যান্য দল থেকে যারা এসেছেন তাদেরকে এ ধরণের কমিটিতে রাখা হবে না।

৪. যারা বিভিন্ন সময় দলের জন্য অবদান রেখেছেন, বিশেষ করে ওয়ান ইলেভেন, একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায়, অথচ কমিটিতে তাদের মূল্যায়ন করা হয়নি তাদেরকে কমিটিতে স্থান দেওয়া হবে।

সর্বশেষ যেটি মাপকাঠি দেওয়া হয়েছে; যারা গত কিছুদিন ধরে অভিমানে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছেন তাদেরকে মূলধারায় সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করা হবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে শেখ ফজলে শামস পরশ এবং মাইনুল হোসেন নিখিলকে। তারা এখন কমিটি গঠনে কাজ করছে। স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ ও সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমানও কমিটি গঠনে কাজ করেছে বলে জানা গেছে। এই কমিটিগুলোর খসড়া দেওয়া হবে আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে। তিনি চূড়ান্ত করলেই তা অনুমোদন হবে। আওয়ামী লীগের একটি সূত্র বলছে যে, খসড়া কমিটিগুলো বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা পরীক্ষা নিরিক্ষা করবে এবং কোন অভিযোগ আছে কিনা সে ব্যাপারে রিপোর্ট করা হবে। আওয়ামী লীগের অন্য একটি সূত্র বলছে, ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে আওয়ামী লীগের একটি তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছে। সেই সময় দেখা গেছে যাদেরকে কমিটিতে নেওয়া হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে। অন্যান্য অঙ্গ সহযোগি সংগঠনগুলোর ক্ষেত্রে এমন পরিস্থিতি যেন সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। এ জন্যই কমিটি গঠনে বিলম্ব হচ্ছে।

তবে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বলছেন যে, আগামী ১৭ মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী শুরু হবে। তার আগেই সবগুলো কমিটি গঠন করা হবে। আশা করা হচ্ছে, ৩০ জানুয়ারি নির্বাচনের পর থেকে পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন কমিটিগুলো গঠন করা হবে। কিন্তু কমিটি ঘোষণা না করার ফলে আওয়ামী লীগের অঙ্গ সহযোগি সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে একটি সাংগঠনিক স্থবিরতা বিরাজ করছে। দলীয় অঙ্গ সহযোগি সংগঠনগুলোর কার্যক্রম প্রায় নেই বললেই চলে। এটা দলের জন্য ইতিবাচক নয় বলেই মনে করছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা।