ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সিটি নির্বাচন নিয়ে বিরক্ত খালেদা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২০ রবিবার, ০৬:০০ পিএম
সিটি নির্বাচন নিয়ে বিরক্ত খালেদা

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন বেগম খালেদা সিটি কর্পোরেশন নিয়ে অত্যন্ত বিরক্ত। তিনি প্রশ্ন করেছেন যে এই নির্বাচন করে কার কি লাভ হবে? বিএনপি থেকে মেয়র হলেই বা কি উদ্ধার হবে? বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসক এবং কর্মকর্তাদের সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আজ বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেডিকেল বোর্ডের তিনজন সদস্য তার সঙ্গে দুপুর সাড়ে ১২টা নাগাদ দেখা করেন। দীর্ঘক্ষণ পর তাদেরকে ডেকে নেন বেগম জিয়া। এরপর তার ব্লাড সুগার পরিমাপ করা হয়, ব্লাড প্রেসার মাপা হয়। স্বাস্থ্য পরীক্ষার পরে চিকিৎসকেরা জানান, খালেদার স্বাস্থ্যগত অবস্থা এখন স্থিতিশীল, তার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। এসময় বেগম খালেদা জিয়া নিজেই উপযাজক হয়ে নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং বিরক্তি প্রকাশ করেন। তিনি বলেন যে সিটি নির্বাচন করে কি হবে? এই নির্বাচন কি সরকার পরিবর্তন করবে? এই নির্বাচনের ফলাফল তো আগে থেকেই নির্ধারিত, ওরা কেন নির্বাচনে যাচ্ছে?

অবশ্য বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা এসময়ে নিরব ছিলেন। তিনি জানতে চান যে নির্বাচনের প্রচারণা কেমন হচ্ছে? উত্তরে একজন চিকিৎসক বলেন যে, নির্বাচনী প্রচারণা জমে উঠেছে। দুইপক্ষই প্রচারণা চালাচ্ছে। এরপর খালেদা বলেন, প্রচারণা করে কি হবে, যে জিতবে সেই তো আওয়ামী লীগার হয়ে যাবে। এতে বিএনপির কোনো লাভ হবে না। বিএনপি কেন নির্বাচনে যাচ্ছে, এটা নিয়েও বেগম খালেদা জিয়া প্রশ্ন করেন।

উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে বিএনপি। উত্তরে তাবিথ আউয়াল এবং দক্ষিণে ইশরাক হোসেন দলটির হয়ে মনোনয়ন পেয়েছেন। কিন্তু জিয়ার পারিবারিক সূত্র বলছে, বেগম খালেদা জিয়ার মতামত ছাড়াই এই নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএনপির একাধিক নেতা এই নির্বাচনে যাওয়ার আগে বেগম খালেদা জিয়ার মতামত নেওয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছিল। কিন্তু মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ তারই ঘনিষ্ঠ নেতৃবৃন্দ সিটি নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়ার মতামত নেওয়ার প্রয়োজন নেই বলে মন্তব্য করেছিলেন।

বেগম খালেদা জিয়ার মতামত ছাড়াই এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যে নির্বাচনে প্রথমদিকে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির কথা বলা হলেও পরবর্তীতে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রসঙ্গটি উহ্য রয়ে যাচ্ছে। বিএনপির মনোনীত দুই মেয়র প্রার্থীর কেউই বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি তাদের নির্বাচনের প্রচারণায় আনছেন না।

অবশ্য বিএনপির নেতারা বলছেন, কৌশলগত কারণেই তারা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রসঙ্গটি আনছেন না। কারণ ভোটাররা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি বা বিএনপির বিরুদ্ধে মামলা হামলা এই বিষয়গুলো নিয়ে আগ্রহী না। বরং মেয়র নির্বাচিত হলে বিএনপির প্রার্থীরা এলাকার জনগণকে কি ধরণের সুযোগ সুবিধা দেবেন বা নগরের উন্নয়নে কি ধরণের কাজ করবে সে ব্যাপারেই বেশি আগ্রহী।

উল্লেখ্য, বিএনপির দুই মেয়র প্রার্থী মনোনয়র পাওয়ার পর বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু আজকে পর্যন্ত তাবিথ আউয়াল কিংবা ইশরাক হোসেনের পক্ষ থেকে কারাগারে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য আবেদন পত্র স্বারাষ্ট্রমন্ত্রণালয় কিংবা জেল কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হয়নি।

অর্থাৎ বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়টি ছিল শুধুমাত্র কথার কথা। বেগম জিয়া মনে করছেন তার মুক্তির বিষয়টিকে আড়াল করার জন্যই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনটি আয়োজন করা হয়েছে। বিএনপিতে সরকারের একটি তল্পিবাহক অংশ সরকারকে বৈধতা দেওয়ার জন্য এবং সরকারকে একটা অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে দেওয়ার জন্য সিটি নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ